কবি ইকবালের চিকিৎসায় সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন

মো. আলী আশরাফ খান :—
মানুষ মানুষকে সাহায্য-সহযোগিতা করবে-এটা মানুষের সহজাত প্রবৃত্তি। কিন্তু আজকাল সমাজে এমন কিছু মানুষ রয়েছে যারা সমস্যাগ্রস্ত না হয়েও নানারকম ভণিতা ও প্রতারণার সাহায্য নিয়ে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে যাচ্ছে। যার ফলে কিছু সৃষ্টিশীল মানুষ এখন মানুষকে সাহায্য-সহযোগিতা করা থেকে বিরত থাকছেন। কিন্তু তারপরেও কথা থাকে, সমাজে এমনও কিছু মানুষ রয়েছেন, যারা হাজার সমাস্যাক্রান্ত হয়েও কারো সাহায্য-সহযোগিতা কামনা করেন না-একমাত্র আল্লাহ ছাড়া। আর তেমনি একজন নির্ভীক সমাজকর্মী কবি ইকবাল হোসেন। যার দু’টি কিডনি নষ্ট হয়ে যাওয়ার পরেও তিনি কারো কাছে কোন রকম সাহায্যের আবেদন করেননি-করছেন না।
কিন্তু আমরা যারা তার শুভাকাঙক্ষী-আপনজন তারা নিজ থেকেই কবি ইকবাল হোসেনের জন্য আর্থিক সাহায্য-সহযোগিতার চিন্তা করছি এবং দেশের লেখক, সংগঠক এবং সৃষ্টিশীলদের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি যে, তাকে কিছু আর্থিক সহযোগিতার জন্য। আশা করি, আমাদের এই আহ্বানে সাড়া দেবেন কেউ কেউ এবং প্রমাণ করবেন, ‘মানুষ মানুষের, জীবন প্রয়োজনে জীবনের।’ এই কথাটির।
আমাদের প্রিয় এই মানুষটি কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার চাটিতলা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক, বাংলাদেশ কবি ফোরাম বাকফের সদস্য, নাঙ্গলকোট রাইটার্স এসোসিয়েশনের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, নেট সেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্য তথা নিরলস একজন সমাজকর্মী। তিনি বহু মানুষের প্রয়োজনে শ্রম, সময়, অর্থ ও মেধাকে নিবেদিত করেছেন। বিনিময়ে কোন দিন কোন কিছুই প্রত্যাশা করেননি। কিন্তু আজ কবি ইকবাল হোসেন নিঃস্ব, তার পাশে কেউ নেই। নষ্ট দু’টি কিডনি নিয়ে বাঁচার স্বপ্ন দেখছেন তিনি। আমরা জানি, স্বপ্ন-ই মানুষকে বাঁচায়, অন্ধকারে আলো দেয়। যদিও তিনি দুরারোগ্য ব্যাধি গ্লুমেরুলু নেফ্রাইটিস রোগে আক্রান্ত। চিকিৎসার প্রয়োজনে বর্তমানে চট্টগ্রামের আত্মীয়ের বাড়িতে অবস্থান করছেন। তারপরেও আমরা চাই, সৃষ্টিশীল মানুষদের সাহায্য-সহযোহিতায় তার চিকিৎসা কার্য চালিয়ে যেতে। ইতিমধ্যে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও ভারতের চেন্নাইয়ের অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন কবি ইকবাল হোসেন। এবং কিছুদিন পর পর তাঁকে কিডনি ডায়ালাইসিস করাতে হচ্ছে। এতে করে প্রচুর টাকা খরচ হচ্ছে তার।
চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, ‘নতুন কিডনি প্রতিস্থাপন না করলে তাঁর সুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা নেই। ভারতের কলকাতায় কিডনি প্রতিস্থাপনের খরচ পড়বে ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকা। স্বল্প আয়ের এই শিক্ষক সাত বছর ধরে চিকিৎসার পেছনে বহু টাকা ব্যয় করেছেন। বর্তমানে ব্যয়বহুল চিকিৎসা করানোর সামর্থ নেই তাঁর পরিবারের।
সুতরাং আমরা তার জন্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছি। আপনিও বাড়িয়ে দিন আপনার সহযোগিতার হাত। হোক তা যত অল্প, আপনার পাঠানো টাকা হয়তো তার জীবনকে নিয়ে যেতে পারে বহু দূর-রঙ্গিন ভূবনে আবার হতে পারে তার স্বাভাবিক বিচরণ এবং তার সৃষ্টিশীল কর্মচর্চার ফলে বহু মানুষ হতে পারে উপকৃত।
সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা, ইস্টার্ন ব্যাংক, ও আর নিজাম রোড, চট্টগ্রাম অ্যাকাউন্ট নম্বর: ০১৬১০১০০২৮৮৯২। বিকাশ নম্বর, ০১৯১২-৬৬৯৯৮১।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...