কুমিল্লার বুড়িচংয়ে ভাতিজার হাতে চাচা খুন

মো.জাকির হোসেন :–
কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার দূর্ঘাপুর গ্রামে পুকুরে মাছ ফেলার টাকা নিয়ে বিরোধের জের ধরে ভাতিজার লাঠির আঘাতে আহত হয়ে দেড় মাস হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মেনেছে হতভাগ্য চাচা আবদুর রহমান (৪০)। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী আয়শা আক্তার বাদী হয়ে প্রথমে কুমিল্লা আদালতে ও পড়ে রোববার বুড়িচং থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে।
অভিযোগের বিবরন ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের দূর্ঘপুর গ্রামের আবদুর রহমান গত ১৪ জুলাই বিকেলে পুকুরের মাছ ফেলার টাকার জন্য তার ভাতিজা আবদুল মালেকের পুত্র কবির হোসেনের বাড়ীতে যায়। সেখানে মাছের টাকা নিয়ে কথা কাটা-কাটির এক পর্যায়ে ভাতিজা কবির হোসেন লাঠি নিয়ে অতর্কিত ভাবে চাচার উপর হামলা চালিয়ে তাকে পিটিয়ে মারাত্মক ভাবে আহত করে। স্থানীয়রা তাকে প্রথমে কুমিল্লা মেডিকেল সেন্টারে নিয়ে যায়। সেখানে তার অবস্থা উন্নতি না হওয়ায় কুমিল্লা টাওয়ারের আইসিওতে রাখা হয়। ডাক্তার তার অবস্থার আরো অবনতি দেখে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। পরে গত ২১ আগষ্ট হতভাগ্য চাচা ৪০ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে মৃত্যুবরন করে। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী প্রথমে ২০ জুলাই কুমিল্লা আদালতে সিআর ২৮৩/১৫ ও গতকাল কবির হোসেনকে প্রধান আসামী দিয়ে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে বুড়িচং থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে। এদিকে নিহত আবদুর রহমানের লাশ ময়নাতদন্ত শেষে গত ২২ আগষ্ট নিজ বাড়ীতে নিয়ে আসা হয়। ওই দিন সন্ধ্যায় নিহতের জানাজা শেষে লাশ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। জানাজায় অংশগ্রহনকারী স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন, সমাজ সেবক আবু তাহের, জামাল মাষ্টার, ফজর আলী মেম্বার, সুয়া মেম্বার, আবদুল খালেক মেম্বারসহ অন্যান্যরা জানাজার নামাজের পূর্বে তাদের বক্তব্যে বলেন, অন্যায় ভাবে আবদুর রহমানকে হত্যা করায় আমরা সামাজিক ভাবে কবির হোসেনকে অবাঞ্চিত ঘোষনা করছি। এছাড়া ঘাতক কবিরকে অনতিবিলম্বে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে এসে সর্বোচ্চ বিচারের দাবি করেন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...