মনোহরগঞ্জে স্ত্রীর সাথে জগড়া করে প্রাণ গেল স্বামীর!!

 

আকবর হোসেন, মনোহরগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার সরষপুর ইউনিয়নের আলোকপাড়া গ্রামে স্ত্রীর সাথে পারিবারিক কলহের জেরধরে প্রাণ গেল স্বামীর।
জানাযায়, বিপুলাসার ইউনিয়নের মৃতঃ আলী হায়দারের পুত্র নূরে আলী (৪০) নামে এক প্রবাস ফেরত যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। অন্যদিকে পরিবারের অভিযোগ তাকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে, বুধবার অনুমান দুপুর ১২ ঘটিকার সময়।পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সুত্রে জানাযায়, প্রায় ১২ বছর আগে সরষপুর ইউনিয়নের শ্রীধরপুর গ্রামের জয়নাল আবেদীনের কন্যা পাাখি আক্তার (২৩) এর সাথে বিপুলাসার ইউনিয়নের সাইকচাইল গ্রামের মৃতঃ হায়দার আলীর পূত্র নূরে আলীর (৪০) বিয়ে হয়। সাংসারিক জীবনে তাদের কোল জুড়ে আসে দুটি সন্তান। আয়েশা আক্তার (৭) নামে কন্যা এবং আব্দুল্লাহ (৩) নামে পুত্র। দীর্ঘ পনের বছর যাবত নূরে আলী দুবাইতে থাকে। মাঝে-মধ্যে ছুটিতে বাড়ীতে আসতেন। সম্প্রতি দুই মাস বিশ দিনের ছুটিতে তিনি দেশের বাড়ীতে আসেন। কিন্তু আর বিদেশ যাওয়া হলো না তার। নূরে আলী বিদেশ যাওয়ার পরে তার শশুর এর গ্রামের পার্শ্ববতী আলোকপাড়া গ্রামে মাঠে জায়গা কিনে নতুন বাড়ী করেছেন। সেখানে থাকতো তার স্ত্রী পাখি আক্তার ও তার দুই সন্তান। নতুন বাড়ীতে শান্তিতে বসবাস করতে থাকে তারা । হঠাৎ করে অজ্ঞাত কারণে স্বামী নূরে আলীর সাথে কথাকাটি হয় তার স্ত্রীর। একপর্যায়ে গত মঙ্গলবার নূরে আলীর সাথে তার স্ত্রীর জগড়া বিবাদ হয়। তখন নূরে আলী ঘর থেকে বের হয়ে সারা দিন বাড়ীতে না ফিরে রাতে বাড়ীতে ফিরে আসেন। এর পরদিন বুধবার সকালে আবার স্ত্রীর সাথে জগড়া হয়। একপর্যায়ে স্বামীর সাথে স্ত্রীর বিবেধ বাঁধে। সে তার স্ত্রী পাখি আক্তারকে মারধর করে এবং পাখি আক্তার ও তার স্বামীকে মারধর করে। একপর্যায়ে নূরে আলী জ্বালা সইতে না ফেরে বাড়ী থেকে বের হয়ে যান। প্রায় দুই ঘন্টা পরে বাড়ীতে আবার ফিরে এসে স্ত্রীর সাথে জগড়া করে। এ জগড়াকে কেন্দ্র করে আবার দুই জনের মধ্যে হাতাহাতি মারামারিতে লিপ্ত হয়। পরে নূরে আলীর স্ত্রীর আতœচিৎকার শুনে বাড়ীর আশ- পাশের লোকজন দৌড়ে এসে দেখে যে, নূরে আলী মাটিতে পড়ে আছে। দৌড়াদোড়ী করে তাকে লক্ষণপুর স্থানীয় হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। অন্যদিকে নূরে আলীর পরিবারের অভিযোগ তাকে হত্যা করা হয়েছে। এ হত্যা কে নাটক সাজানোর তড়িঘড়ি করে তার স্ত্রী পাখি আক্তার লক্ষনপুর হাসপতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়েছে বলে নূরে আলীর আতœীয় স্বজন কে জানান। নিহতের চাচা মোঃ ছাদেক আলী ও নিহতের বড় বোন লালমতী বেগম জানান- “ আমাদের ছেলে নূরে আলীকে হত্যা করা হয়েছে তবে কি কারণে প্রাণ গেল নূরে আলীর আমরা জানিনা”। নিহতের স্ত্রী পাখি আক্তারের সাথে কথাবলে জানাযায়-“ আমার স্বামী আমার সাথে জগড়া করে বিষ প্রাণ করে আতœহত্যা করেছেন। “আমি এ বিষয়ে বেশি কিছু বলতে চাইনা”। খবর পেয়ে মনোহরগঞ্জ থানার এস.আই.মোঃ আল-আমিন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে এসে লাশের সুরত হাল রির্পোট তৈরি করেন। প্রথমিক ভাবে লাশের গায়ে ছোট-ছোট আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। পরে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। এ বিষয়ে মনোহরগঞ্জের থানার ওসি বাবু চন্দন কুমার জানান, লাশটি ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য নিহতের স্ত্রীকে থানায় নিয়ে আশা হয়।এ ব্যাপারে মনোহরগঞ্জ থানায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে। স্থানীয় জনমতে প্রশ্ন “এটা কি হত্যা নাকি আতœহত্যা ?”। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য বিরাজ করছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...