যানজটকে পূজিঁ করে মহাসড়কে সিএনজি অটোরিক্সা ভাড়া দ্বিগুণ

মো: জাকির হোসেন:–
কুমিল্লায় ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের পদুয়ারবাজার, ময়নামতি ক্যান্টনমেন্ট,নিমসার,চান্দিনা,মাধাইয়া,নগরীর শাসনগাছা,বুড়িচং সহ বিভিন্নস্থানে গত কয়েকদিন ধরে যানজটের নামে সিএনজি চালকরা যাত্রীদেরকে একপ্রকার জীম্মি করে অতিরিক্ত ভাড়া হাতিয়ে নিচ্ছে। এতে করে সাধারন মানুষ চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। কোথাও কোথাও অতিরিক্ত ভাড়া নিয়ে প্রতিবাদ করে যাত্রীদের নাজেহাল হতে হচ্ছে।
সরেজমিন বিভিন্নস্থান ঘুরে পাওয়া তথ্যে জানা যায়,দীর্ঘ দিন ধরে নগরীর কান্দিরপাড় থেকে শাসনগাছা ১০ টাকা ভাড়ায় যাত্রীরা চলাচল করতো। কিন্তু সম্প্রতি সিএনজি চালকরা সেটা বাড়িয়ে ১৫ টাকা করে যাত্রীদের কাছ থেকে নিচ্ছে। এতে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষকে অতিরিক্ত ভাড়া গুনতে হচ্ছে । একইভাবে গত ২/৩ দিন ধরে মহাসড়কের মাধাইয়া,ময়নামতি ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় মহাসড়কের কাজ করায় যান চলাচল কিছুটা ধীর গতির কারনে কুমিল্লার সদর উপজেলার ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের আলেখারচর থেকে চান্দিনার মাধাইয়া পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার এলাকায় যানবাহন কিছুটা থেমে থেমে চলাচল করছে। আর সেটাকে যানজট বলে সিএনজি চালকরা চান্দিনা থেকে নিমসার,ময়নামতি ক্যান্টনমেন্ট এবং ক্যান্টনমেন্ট থেকে নগরীর শাসনগাছা পর্যন্ত সড়কে সিএনজি ভাড়া দ্বিগুন/তিনগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। এতে করে চরমভাবে হয়রানীর শিকার হতে হচ্ছে সাধারন যাত্রীদের । দায়িত্বশীল সুত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান,কুমিল্লা মহানগরী ও এর আশপাশ এলাকায় যাত্রীবাহী লোকাল বাস চলাচল একেবারেই কম থাকায় সিএনজি চালকদের কাছে অনেকটা জীম্মি সাধারন যাত্রীরা। আর সেটাকে পূজিঁ করে তারা যখন তখন খেয়াল খুশিমত বাড়িয়ে দিচ্ছে সিএনজি ভাড়া। কুমিল্লা শাসনগাছা থেকে প্রতিদিন ময়নামতি ক্যান্টনমেন্ট যাতায়াত ভাড়া ১০ টাকা হলেও সেটা বর্তমানে ৩০ টাকা। একইভাবে ক্যান্টনমেন্ট থেকে কংশনগর একইভাড়া হলেও রাতে সেটা দ্বিগুন হয়ে যাচ্ছে। চান্দিনা,নিমসার রুটেও দিনে এক রকম ভাড়া থাকলেও রাতে সেটা বেড়ে দ্বিগুণ হচ্ছে। গত কয়েক দিনের মহাসড়কের ফোর লেনের কাজের জন্য যান চলাচলে কিছটিা ধীর গতির কারনে চান্দিনা,নিমসার রুটেও বর্তমানে দ্বিগুন ভাড়া। একই অবস্থা ক্যান্টনমেন্ট থেকে পদুয়ারবাজার পর্যন্ত সড়কেও । সেখানেও বর্তমানে ভাড়া দ্বিগুণ। এছাড়াও শাসনগাছা থেকে বুড়িচং সদরের ভাড়া ২০ টাকা হলেও বর্তমানে অজ্ঞাত কারনে সেটা বেড়ে ৩০ টাকা। এইভাবে প্রতিদিন যাত্রীদের জীম্মি করে সিএনজি চালকরা অতিরিক্ত ভাড়া হাতিয়ে নিলেও প্রশাসনও এক্ষেত্রে নিরব। কখনো কখনো যাত্রীরা অতিরিক্ত ভাড়া নিয়ে প্রতিবাদ করলেও কোন লাভ হচ্ছে না। সিএনজি অটোরিক্সা ছাড়া নগরি থেকে কোথাও যাওয়া-আসায় সিএনজি অটোরিক্সা ছাড়া অন্য কোন যানবাহন না থাকায় তাই মানুষ অনেকটা নিরুপায় হয়ে অতিরিক্ত ভাড়ায় নিজ নিজ গন্তব্যে যেতে বাধ্য হচ্ছে। এদিকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিষয়ে চালকদের সাথে যোগাযোগ করলে বেড়িয়ে আসে অন্য তথ্য। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সিএনজি চালক জানান,একেতো রাস্তায় যানজট,তাছাড়া ঘাটে ঘাটে চাঁদা দিতে দিতে নাকাল। পাশাপাশিহাইওয়ে পুলিশ, ট্রাফিক পুলিশ সহ সার্জেন্টদের যত্রতত্র গাড়ি ধরে মামলা দেওয়ার কারনে তারা নিজেরাও হয়রানীর শিকার হতে হচ্ছে। এক একটি মামলায় কমপক্ষে ৫ হাজার টাকা গুনতে হচ্ছে চালকদের। তারা এক্ষেত্রে মালিকদের কাছ থেকে কোন সুবিধা না পাওয়ায় ভাড়া বাড়িয়ে সেটা
যাত্রীদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...