রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি চেয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন মুক্তিযোদ্ধা আবদুল লতিফ

 

মো. আলাউদ্দিন :–
কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি চেয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন এক মুক্তিযোদ্ধা। তার নাম মোঃ আবদুল লতিফ চৌধুরী। তিনি উপজেলার জোড্ডা ইউনিয়নের বাইয়ারা গ্রামের বাসিন্দা। বয়সের ভারে ন্যুয়ে পড়া এ মুক্তিযোদ্ধার শেষ চাওয়া একটি সনদ ও রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি। এজন্য তিনি মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আহ্বানে অনলাইনে আবেদন করেছেন। বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নাঙ্গলকোট উপজেলা কমান্ড ও জেলা কমান্ডকে একজন বীরমুক্তিযোদ্ধা হিসেবে প্রত্যয়নপত্র দিয়ে তাঁর নামটি মুক্তিবার্তা ও মুক্তিযোদ্ধা গেজেটে তালিকাভুক্ত করার দাবি জানিয়েছেন।
আবদুল লতিফ চৌধুরী জানান, মুক্তিযুদ্ধের সময় সক্রীয়ভাবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করলেও মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তার নাম তালিকাভূক্ত হননি। স্বাধীনতার পর থেকে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, জেলা কমান্ডসহ অবশেষে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয়ে আবেদন করেও কোন লাভ হয়নি। তিনি অত্যন্ত দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল হইতে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তাহাকে ৫’শ টাকা চেকের মাধ্যমে প্রদান করেছেন। যাহার নং-ডি,এ ০০৪৬৮০। অথচ মুক্তিযোদ্ধাদের কোন তালিকায় তাহার নাম অর্ন্তভূক্ত হয়নি। সবাই মুক্তিযোদ্ধা বললেও বাস্তবে তিনি গেজেটভুক্ত মুক্তিযোদ্ধা হতে পারেননি। বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য সর্বোচ্চ সম্মান ও সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করলেও তার ভাগ্যে তা ঝুটেনি। জীবনের শেষ প্রান্তে এসেও তিনি পাননি রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি। পাশাপাশি পরিবার পরিজন নিয়ে অনেক কষ্টে দিনাতিপাত করছেন এ বীর মুক্তিযোদ্ধা।
প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও প্রমানাদি থাকার পরও মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি না পেয়ে নিরুপায় হয়ে তিনি এথস মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...