মনোহরগঞ্জে দরিদ্র কৃষকদের ধান লুট

মনোহরগঞ্জ প্রতিনিধি:–

মঙ্গলবার কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে নিজস্ব জমি থেকে অবৈধভাবে জোরপূর্বক ধান কাটা বন্ধকরণ প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোস্তফা মোরশেদ বরাবর অভিযোগ দায়ের করেছেন ৪নং উত্তর ঝলম ইউনিয়নের বড় কেশতলা গ্রামের ভূমিহীন স্থায়ী বাসিন্দা দরিদ্র কৃষক ঝর্ণা বেগম, আবদুল খালেক, রোকেয়া বেগম, রফিক মিয়া গংরা। জানাযায়, কুমিল্লা জেলাধীন মনোহরগঞ্জ উপজেলার অর্ন্তগত ০৪ নং উত্তর ঝলম ইউনিয়নে বড়কেশতলা গ্রামের ভূমিহীন কয়েকজন কৃষক এবং স্থায়ী বাসিন্দাকে সরকার কিছু চরের জমিন চাষাবাদ করে ভোগ দখল করার জন্য বন্দোবস্থ করে দিয়েছে। এরই সুবাধে উক্ত ভূমিহীন বাসিন্দারা চরাজমিনে ধান চাষ করেছে। কিন্তু তাদের চাষকৃত ধান লুট করে নিয়ে গেছে স্থানীয় কিছু কুচক্রী মহল। কষ্টের আবাদকৃত ফসল কেটে নিয়ে যাওয়ায় কান্নাজড়িত কন্ঠে তারা জানায়, মৌসুমি ফসল কাঁটার সময় একই এলাকার কিছু প্রভাবশালী অসাধু লোক ১। রুবেল (৩২), পিতা অজ্ঞাত, ২। খোরশেদ (২৬), পিতা এন্তাজ মিয়া, ৩। ছত্তর মিয়া (৫৫), পিতা অজ্ঞাত সহ আরো অনেকে অবৈধ ভাবে আমাদের নিজস্ব চাষ করা জমিন থেকে ধান কাটা শুরু করেছে। পূর্বেও এরা আমাদেরকে নানা ভাবে হুমকি ধমকি দিয়েছে। আমরা দরখাস্তের মাধ্যমে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে এই ঘটনা অবগত করি। বর্তমানে আমরা তাদেরকে ধান কাটতে নিষেধ করলে তারা আমাদেরকে নানা ধরণে হুমকি-ধমকিসহ অশালিন ব্যবহার সহ তারা জোর পূর্বকভাবে ধান কাটার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থায় অনেক কষ্টের ফসল কেটে নেওয়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে না খেয়ে মরতে হবে। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, ঘটনাটি আমি জেনেছি এ ব্যাপারে মনোহরগঞ্জ থানা পুলিশকে ঘটনাটি তদন্ত করে আইনানুগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য বলা হয়েছে। মনোহরগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবদুল হাই সরকার জানান, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশ পেয়েছি। ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত স্বাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...