মতলবের চরাঞ্চলে দু’শতাধিক একর জমিতে এ্যস্টারিজ জাতের আলু চাষীরা এখন দিশেহারা : পাটওয়ারী কোল্ডষ্ট্রোরেজের নিন্ম মানের বীজ ও দাদনের চাপে!

নিজস্ব প্রতিবেদক :–

পাটওয়ারী কোল্ডষ্টোরেজের নিন্মমানের বীজ ও তাদের দেয়া দাদনের চাপে চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার চরাঞ্চলের দু’শতাধিক জমিতে এ্যস্টারিজ জাতের আলু চাষীরা এখন দিশেহারা। মতলব উত্তর উপজেলার এখলাছপুর ইউনিয়নের ও মেঘনা নদীর পশ্চিম পাড়ের বোরচর, চরকাশিম, বাহেরচর ও ৬ষ্ঠ খন্ড বোরচর অঞ্চলে এবার ৪শতাধিক জমিতে আলুর আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে চাঁদপুরের পাটওয়ারী কোল্ডষ্টোরেজ থেকে নিন্ম মানের বীজ ও তাদের প্রতি ১০০ বস্তা এস্টারিজ জাতের আলু কোল্ডষ্ট্রোরেজে এনে দিতে হবে এর বিপরীতে ৬০হাজার করে টাকা দাদন দেয়া হয় এ অঞ্চলের কৃষকদের। অথচ, প্রকৃতপক্ষে এ জাতের ১০০ বস্তা আলুর বাজার দাম ৮৫/৯০ হাজার টাকার মতো। এ্যস্টারিজ জাতের আলুর বীজ বাজারে ৩২/৩৩ টাকা কেজি দরে কিনতে পাওয়া গেলেও এই বীজের মান অনেক ভাল বলে পাটওয়ারী কোল্ডষ্টোরেজ এই চরাঞ্চলের কৃষকদের থেকে এস্টারিজ জাতের বীজ প্রতি কেজি ৩৮ টাকা হারে কিনতে বাধ্য করেন। কেননা, আলু বীজের সাথে কৃষকরা পাচ্ছেন মোটা অংকের দাদন।
বড় ধরনের কোন রোগ বালাই না হলেও চাষীরা এ্যস্টারিজ জাতের সেই আলু তুলতে গিয়ে দেখেন কোন গাছে একটি কিংবা কোন গাছে একাধিক হলে সেই আলু আকারে ছোট। অর্থাৎ ফলনের অবস্থা এমন যে যা কোন ভাবেই তুলনা করার মতো নয়।
চরকাশিমের জাকির বকাউল জানায়, সে চাঁদপুরের পাটওয়ারী কোল্ডষ্টোরেজের বীজে ২৫ একর জমিতে এ্যস্টারিজ জাতের আলু রোপন করেছিলেন। বর্তমানে ফলন দেখে জাকির বকাউল হতাশ। এ আলু একর প্রতি যেখানে ৩০ থেকে ৩৫ টন হবার কথা কিন্তু বাস্তবে উৎপাদন হয়েছে একর প্রতি ৫ থেকে সাড়ে ৫টনের মতো। হিসেবমতে পাটওয়ারী কোল্ডষ্টোরেজের এই বীজে আলু করে আমার লোকসান হবে ২০ লাক্ষ টাকারও বেশী। আমি যে একন কি করবো এবং কাকে কি দিয়ে বুঝাবো তা ভেবেই পাচ্ছিনা।
বোরচরের আলী আজম মাষ্টার জানায়, সে চাঁদপুরের পাটওয়ারী কোল্ডষ্টোরেজ থেকে ৩৮ টাকা হারে ৪ টন এ্যস্টারিজ জাতের আলুর বীজ সংগ্রহ করে আলু চাষ করে এখন মহা বিপদে। তারা বীজ দেয়ার সময় একর প্রতি ৩০ থেকে ৩৫ টন ফলন হবার কথা বল্লেও বর্তমানে ফলন দেখছি একর প্রতি সাড়ে ৫ টনের মধ্যে হচ্ছে।
বোরচরের ছিদ্দিকুর রহমান জানান, সে ৩০একর জমিতে পাটওয়ারী কোল্ডষ্টোরেজের এই নিন্মমানের বীজ ও দাদন নিয়ে ৩০ একর জমিতে এই এ্যস্টরেজ জাতের আলু রোপন করে তার লাভতো দূরের কথা লোকসান হবে ২০/২২ লক্ষ টাকার বেশী। এতোবেশী রোকসানের কথাভেবে এখন আমি দিশেহারা। বোরচরের মিন্নত ব্যপারী জানায়, পাটওয়ারী কোল্ডষ্টোরেজের বীজ ও দাদন নিয়ে ২০ একর জমিতে এই এ্যস্টরেজ জাতের আলু রোপন করে তার ও এখন একই হাল। চরকাশিমের জসিম গাজীর ২০ একর, আঃ মাজেদ ঢালী’র ১৫ একর, বোরচরের শিবলু এ্যস্টোরেজ জাতের আলু রোপন করে ১০ হাজার একর জমিতে। মোটা অংকের লোকসানে পড়ে তারা একন দিশেহারা তার মধ্যে মাথার উপর দাদনের টাকা পরিশোধের কথা ভাবতেই তাদের গা শিহরিয়ে উঠে বলে জানায়।
বোরচরের এবাদুল্যাহ বাদশাহ জানায়, সে মুন্সিগঞ্জ থেকে ৩৩ টাকা কেজি দরে এ্যস্টরিজ জাতের বীজ এনে ৫ একর জমিতে রোপন করেছেন বর্তমানে আলু তুলছেন যা একর প্রতি ২৮ টন হারে ফলন হয়েছে।
চাঁদপুরের পাটওয়ারী কোল্ডষ্টোরেজের ম্যানেজারের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করলেও তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।
মতলব উত্তর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল কাইয়ূম মজুমদার বলেন, আমি সরেজমিনে গেলে স্থানীয় ভূক্তভোগী কৃষকরা নিন্মমানের বীজের কারনে ফলন বিপর্যয়ের কথা জানান। এছাড়াও শর্তসাপেক্ষে দাদনের বিষয়টিও জেনেছি। এব্যপারে লিখিত অভিযোগ পেলে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হবে।

Check Also

যে কোনো আন্দোলন-সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে : বিএনপি

চাঁদপুর প্রতিনিধি :– চাঁদপুর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সাধারণ সভায় বক্তারা বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম ...