নবীনগরে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে শিক্ষকের এজহার দায়ের এফআইআর করতে পুলিশের গড়িমশি

সাধন সাহা জয়: নবীনগর প্রতিনিধি :—

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সন্ত্রাসী হামলা করে ক্ষতিসাধন ও শিক্ষককে লাঞ্চিত করায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার সাতগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইয়াকুব ভূইয়া চিহিৃত সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে থানায় এজাহার দায়ের করেছেন। কিন্তু ওই এজাহারটি এফআইআর করতে পুলিশ গড়িমশি করছে।

গত ১৮ মার্চ রাতে উপজেলার শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দসহ শিক্ষক সমাজ থানায় হাজির হয়ে ওই প্রধান শিক্ষককে বাদী করে নবীপুর গ্রামে সহিদুল ইসলামের ছেলে এম নজরুল ইসলাম দুলাল(৪০), মৃত আবু তাহের মিয়ার ছেলে আবু কাউছার(৩৫) ও মৃত আবদুল আবদুল খালেক মিয়ার ছেলে শাহ আলমকে নেতৃত্বদানকারী চিহিৃত সন্ত্রাসী উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৩০/৩৫জনকে আসামী করে এ এজাহারটি দায়ের করে।

এজাহারটি এখনো এফআইআর না হওয়ায় নবীনগরের গোটা শিক্ষক সমাজসহ সকল স্তরে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

মামলা এফআইআর এর বিষয়ে ওসি রূপক কুমার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি ছুটিতে আছেন জানিয়ে থানায় খবর নিতে বলেন।

গতকাল ওসি তদন্ত পেয়ার আহম্মদ এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি তদন্ত কর্মকর্তা এস আই মোস্তফা সাথে যোগাযাগ করতে বলেন।

এসআই মোস্তফার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি কোন রেকর্ডকৃত মামলার তদন্তভার পাননি বলে জানান ।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোর্শেদুল ইসলাম লিটন বলেন,আমরা শিক্ষক সমাজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে আইনী পদক্ষেপে প্রশাসনের সহযোগীতা পাচ্ছি না ।

উল্লেখ্য,ওই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনের বিরোধের জের ধরে গত ৩১ জানুয়ারী ইসলাম ধর্ম,মহানবী ও পবিত্র কোরআনকে নিয়ে কটাক্ষ করে বক্তব্য দেওয়ার কথিত কল্পিত অভিযোগে স্কুলে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে এলাকার চিহ্নিত দুস্কৃতিকারীরা ওই প্রধান শিক্ষককে চরম লাঞ্চিত করে অবরুদ্ধ করে।

১ ফেব্রুয়ারী ওই ছাত্রকে দিয়ে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে বক্তব্য দেওয়ার মিথ্যা অভিযোগ এনে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দায়ের করে তাঁকে জেলা হাজতে প্রেরণ করা হয় ।

এ ঘটনায় সমগ্র উপজেলার সকল শ্রেনির শিক্ষক সমাজ বিক্ষোভে ফেটে পড়ে ।

একের পর এক আন্দোলন পত্র পত্রিকায় চক্রান্তের নীলনকশা ও ঘটনার অন্তরালের খবর ধারাবাহিক ভাবে প্রকাশিত হওয়া রাজনৈতিক মহল সহ উর্ধতন কর্তৃপক্ষের টনক নড়ে ।

পুলিশ সত্য ঘটনা এড়িয়ে যেতে পারেনি। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি পুলিশ আসামী নিরপরাধ উল্লেখ করে ওই মামলার ফাইনাল রির্পোট আদালতে পেশ করেন।

মহামান্য আদালত ৩ মার্চ তাঁর বিরুদ্ধে‘ ইসলাম ধর্মের অবমাননার’ দায়ে বিশেষ ক্ষমতা আইনে দায়ের করা মামলাটি শুনানী শেষে নিস্পত্তি করে তাঁর মুক্তির আদেশ দেন।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...