হরতাল-অবরোধে হুমকির মুখে কুমিল্লার শিক্ষা ব্যবস্থা

মো. আলাউদ্দিন :–

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের লাগাতার অবরোধ ও থেমে থেমে হরতালের কারণে হুমকির মুখে কুমিল্লার বিভিন্ন শিক্ষাঙ্গনের শিক্ষা কার্যক্রম। শ্রেণীকক্ষে উপস্থিতি কম থাকাসহ নির্ধারিত সময়ে সিলেবাস সম্পন্ন করে পরীক্ষা গ্রহণ নিয়ে আশংকার কথা জানিয়েছেন কুমিল্লা নগরীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।
জানা যায়, কুমিল্লা বোর্ডের অধীন প্রায় আড়াইশ প্রতিষ্ঠানে এসএসসির পরীক্ষা কেন্দ্র রয়েছে। এতে করে বোর্ডের সময়সূচি অনুযায়ী এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত না হওয়ায় এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের শ্রেণীর নিয়মিত ক্লাস-পরীক্ষা নিয়ে বিপর্যয়ের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। তবে শহরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর বেশিরভাগের অবস্থা নাজুক। দীর্ঘ ২ মাস ধরে অবরোধ-হরতালের কারণে কুমিল্লার স্কুল, কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মিত ক্লাস, পরীক্ষা ও একাডেমিক বিভিন্ন কর্মকান্ড স্থবির হয়ে পড়েছে। এক্ষেত্রে গ্রামের তুলনায় শহরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো অধিক বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। শ্রেণীকক্ষে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কম থাকা, পাঠদানে বিঘœ এবং এতে সিলেবাস সম্পন্ন করা না গেলে নির্ধারিত সময়ে পরীক্ষা গ্রহণ করতে না পারার আশংকার কথা জানিয়েছেন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানসহ সংশ্লিষ্টরা। এতে ক্ষতির মুখে পড়েছে শিশু শ্রেণী থেকে শুরু করে কারিগরি-মেডিকেলসহ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত কয়েক লাখ শিক্ষার্থী।
কুমিল্লা জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা রাশেদা আক্তার জানান, এ বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র রয়েছে। তাই শিক্ষার্থীদের অবরোধ-হরতালের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে বোর্ডের নির্দেশে এসএসসি পরীক্ষার দিন ব্যতীত অন্যান্য দিন ক্লাস নেয়া হচ্ছে। তবে শিক্ষার্থীর উপস্থিতি খুবই কম।
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, হরতাল ও অবরোধের কারণে নাশকতার আশংকায় শিক্ষার্থীদের পরিবহনে বিঘœ ঘটছে। তাই সপ্তাহে ৩-৪ দিন ক্লাস হচ্ছে। জানা গেছে, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ডিগ্রি-অনার্স-মাস্টার্স পর্যায়ে উপস্থিতি সন্তোষজনক থাকলেও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থী উপস্থিতি একেবারে নেই। এতে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে বলে আশংকা করছে কলেজ কর্তৃপক্ষ।
উদ্বিগ্ন শিক্ষক-অভিভাবকরা জানান, লাগাতার অবরোধ ও হরতাল কর্মসূচির মাঝে বার বার বোর্ডের সময়সূচির পরিবর্তন ঘটিয়ে এসএসসি পরীক্ষা চলছে। আসন্ন এইচএসসি পরীক্ষার সময় এ অবস্থা চলতে থাকলে শিক্ষার্থীরা চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। লাগাতার অবরোধ-হরতালের মধ্যে বাধ্য হয়ে বন্ধের দিনেও এসএসসি পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে। এমন অবস্থায় এইচএসসি পরীক্ষা চলুক এটা আমরা কোনোভাবেই চাই না। তবে চলমান অনিশ্চয়তা শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের জন্য চরম দুঃশ্চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এতে জাতির মেরুদণ্ড শিক্ষাক্ষেত্র অনাকাঙ্খিত ক্ষতির মুখে পড়ছে, যা দেশপ্রেমিক কারও কাম্য হতে পারে না।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...