কুমিল্লার মেঘনার চরে বাঙ্গি চাষ লাভবান কৃষকেরা

মো. আলাউদ্দিন :–

কুমিল্লার মেঘনা উপজেলার বাঙ্গি চাষ করে লাভবান হচ্ছে স্থানীয় কৃষকরা। সম্প্রতি সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, উপজেলার চালিভাংগা ও গোবিন্দপুর ইউনিয়নের ছয়টি গ্রামে চাষ করা হচ্ছে বাঙ্গি। উপজেলার চালিভাংগা ইউনিয়নের বড়ইকান্দি ও মৈসারচর গ্রাম এবং গোবিন্দপুর ইউনিয়নের বিনোদপুর, খাসেরগাঁও, খিরারচক ও বুইরারচক গ্রামের ফসলি মাঠজুড়ে বাঙ্গি আর বাঙ্গি। এখন ফসল তোলার সময়। কৃষকেরা খেত থেকে বাঙ্গি তুলে জড়ো করছেন। কয়েকজন কৃষক বলেন, অনুকূল আবহাওয়া থাকায় এবার বাঙ্গির ফসল ভালো হয়েছে। এছাড়া বাঙ্গির বাজার মূল্যও খুব ভালো। ন্যায্য মূল্য পাওয়ায় আমরা খুব খুশি।
মেঘনা উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে উপজেলার ১২২ হেক্টর জমিতে বাঙ্গির আবাদ হয়েছে। ফেব্র“য়ারী মাসের শেষ দিকে বাঙ্গি তোলা শুরু হয়। পুরো মার্চ মাসেই ফসল তোলা হয়।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. গোলাম হাসান মজুমদার বলেন, বেলে-পলি মাটিতে বাঙ্গির আবাদ ভালো হয়। আর এ কারণে মেঘনার চরাঞ্চলের মানুষ বাঙ্গি চাষে লাভবান হচ্ছেন।
উপজেলার বিনোদপুর গ্রামের কৃষক সুরুজ মিয়া বলেন, তিনি চলতি বছর ১৮০ শতাংশ জমিতে বাঙ্গি চাষ করেছি। এতে খরচ হয়েছে ৩০ হাজার টাকা। আাশা করছি, এক লাখ টাকারও বেশি বাঙ্গি বিক্রি করতে পারর।
কৃষক হযরত আলী বলেন, মেঘনার চরের বাঙ্গি জমিতেই বিক্রি করা যায়। ঢাকার শ্যামবাজার ও সদরঘাট, নারায়ণগঞ্জ, চাঁদপুরের মতলবসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে পাইকারিরা ট্রলারে করে মেঘনার চরে বাঙ্গি কিনতে আসেন।
নারায়ণগঞ্জের পাইকারী ব্যবসায় খলিলুর রহমান ও মহিউদ্দিন আহমেদ জানান, মেঘনার চরের বাঙ্গি নদীপথে যেকোনো স্থানে নিয়ে যাওয়া সহজ। তাই বাঙ্গি কিনতে সরাসরি এখানকার চরে চলে আসেন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...