কৃষকদের যুগোপযুগী সহযোগীতার মাধ্যমে দেশ আজ খাদ্যে সংসম্পূর্ণ হয়েছে–মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম

শামসুজ্জামান ডলার :–

কৃষি প্রধান দেশে কৃষকদের যুগোপযুগী প্রকল্প বাস্তবানের মাধ্যমে দেশ আজ খাদ্যে সংসম্পূর্ণ হয়েছে। সরকার কৃষকদের কথা বিবেচনা করে বিভিন্ন সময় বাস্তবমুখি পদক্ষেপ গ্রহন করে সফলতা লাভ করেছে। আজ দেশ খাদ্যে সংসম্পূর্ণ হয়েছে। শুধু তাই নয় এখন দেশের খাদ্য বিদেশেও রপ্তানি করা হয়। এটি আওয়ামীলীগের একটি বিরাট অর্জন। সরকার কষকদের আরো আধুনিকীরন ও সহজে আধুনিক যন্ত্রপাতি ক্রয়ের জন্য ২৫% ভর্তুকী দিচ্ছে। যাতে কৃষকরা আরো বেশী উন্নত হয় ও সল্প খরচে অধিক ফসল পেতে পারে। মতলব উত্তর উপজেলা কৃষি অফিসের বাস্তবায়নে ও খামার যান্ত্রিকীকরনের মাধ্যমে ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্পের (২য় পর্যায়) সহযোগীতায় ৫ বছর মেয়াদী সরকারী ভাবে কৃষকদের মাঝে আধুনিক কৃষি যন্ত্রপাতি বিতরণ অনুষ্ঠান শুক্রবার বিকেলে উপজেলা কৃষি অফিস কার্যালয় স্মুখে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম এ কথা গুলো বলেন।
উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনজুর আহমেদ মঞ্জু’র পরিচালনায় আরো বক্তব্য রাখেন, জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাহাবউদ্দিন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আবু আলী মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মফিজুল ইসলাম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নিলুফা আক্তার, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এমএ কুদ্দুছ, যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী গাজী, কৃষকলীগের সভাপতি মোকলেছুর রহমান মাষ্টার, গজরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম সরকার, দূর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দেওয়ান আবুল খায়ের, মতলব উত্তর উপজেলা ভেটেরিনারি সার্জন ডা. খালিদ ইবনে আবু নাইম, প্রকৌশলী এনামুল হক, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কাজী ওয়াহিদ মোঃ আবু সালেহ, সহকারী শিক্ষা অফিসার আশ্রাফুল আলম, সমাজ সেবা কর্মকর্তা মীর মোঃ আবদুল হান্নান, মৎস্য কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বেলাল হোসেন মজুমদার, পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ, বিআরডিবির কর্মকর্তা মোঃ ইসরাইল হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাম্মেল হক, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মিনহাজ উদ্দিন খান প্রমুখ।
উপজেলা কৃষি অফিসার মোহাম্মদ আবদুল কাইয়ুম মজুমদার সাংবাদিকদের জানান, খামার যান্ত্রিকীকরনের মাধ্যমে ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি এই প্রকল্পের (২য় পর্যায়) সহযোগীতায় ৫ বছর মেয়াদী সরকারী ভাবে কৃষকদের মাঝে ২৫% ভর্তুকীতে আধুনিক কৃষি যন্ত্রপাতি বিতরন করায় কৃষকদের অভাব দূর করবে ও সময় ও অর্থ ব্যয় কমবে। তিনি আরো বলেন, আজকে কৃষকদের মাঝে কৃষি চাষাবাদের জন্য যে পাওয়ার টিলার বিতরণ করা হয়েছে তা বর্তমান বাজার মূল্য ১ লাক্ষ ১২ হাজার টাকা, কিন্তু সরকার ২৫% ভর্তুকী দিয়ে কৃষকদের মাঝে বিতরণ করছন ৮৪ হাজার টাকা করে।
৫ বছর মেয়াদী ভর্তুকী করণ যন্ত্রপাতি হচ্ছে, পাওয়ার টিলার (জমি চাষ করা), পাওয়াে থ্রেসার (ধান কাটা ও মাড়াই মেশিন), কম্বাইন হারভেস্টার (ধান মাড়াই মেশিন), রাইসট্রান্সপ্লান্টার (ধান লাগানো মেমিন), ফুট পাম্প (ফল গাছে কীটনাশ স্প্রে মেশিন) ও রিপার যন্ত্র (ধান কাটার যন্ত্র)।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply