বুড়িচংয়ে নদীর মাটি যাচ্ছে বিএনপি নেতার ইটভাটায়

বুড়িচং প্রতিনিধি :–

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার পূর্বাঞ্চল দিয়ে প্রবাহিত ঐতিহ্যবাহী ঘুংঘুর নদীর থেকে দীর্ঘ দিন ধরে অবৈধ্য ভাবে সিন্ডিকেটদের মাধ্যমে প্রকাশ্যে মাটি কেটে নেয়া হচ্ছে। আর এই মাটি প্রশাসনের নাকের ডগা দিয়ে যাচ্ছে উপজেলা বিএনপির এক প্রভাবশালী নেতার ইটভাটায়।
সরজমিনে পরিদর্শন ও স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার পূর্বাঞ্চল দিয়ে প্রবাহিত ঐতিহ্যবাহী ঘুংঘুর নদীর পানি দিয়ে হাজার হাজার একর জমি চাষ করা হয়। এই নদী পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত থেকে প্রবাহিত হয়ে কুমিল্লার সদর উপজেলা হয়ে বুড়িচংয়ে বাকশীমূল ও রাজাপুর ইউনিয়নের মধ্য দিয়ে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলায় প্রবেশ করেছে। সম্প্রতি বুড়িচং উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের হাজী বাড়ি এলাকায় ওই নদী থেকে অবৈধ্য ভাবে মাটি কেটে বিক্রয় করে দেয়া হচ্ছে। এর এই কাজটি করছেন সদর ইউনিয়নের পূর্ব হরিপুর গ্রামের মৃত তিতু মিয়ার ছেলে মোঃ কবির হোসেন। নদীর থেকে দৈনিক প্রায় দু’শতাধীক ট্রাক মাটি কাটতে দেখা যায়। আর এই মাটির সিংহ ভাগ যাচ্ছে উপজেলা বিএনপি প্রভাবশালী নেতা ও বুড়িচং সদর ইউনিয়েনের চেয়ারম্যান মোঃ জাবেদ কাউছার সবুজের পরিচালিত দড়িয়ার পাড় ইটভাটায়। মোঃ কবির হোসেন বিএনপি নেতা সহ বিভিন্ন ইটভাটায় হাজারো ট্রাক মাটি বিক্রয় করেছে। সবুজ চেয়ারম্যান মাটি সিন্ডিকেট বিক্রেতা কবির হোসেন এর কাছ থেকে কম মূল্যে মাটি ক্রয় করে থাকে। এই পযর্šÍ ৩২০ ট্রাক মাটি গেছে বিএনপির নেতা ইট ভাটা। প্রতি ট্রাক মাটির মূল্য ৬শত ৫০ টাকা ধরে বিক্রয় করে থাকে। অবৈধ ভাবে এই মাটি কাটার ফলে আগামী বর্ষায় নদীর বাঁধের সাথে পার্শ্ববর্তী কৃষকদের জমি বিলীন হওয়ার আসংখ্যা দেখা দিয়েছে। তাছাড়া প্রতিদিন শতাধীক ট্রাক ওই রাস্তা দিয়ে চলাচল করার কারণে রাস্তাটি ভেঙ্গে যাচ্ছে। অন্যদিকে আ’লীগের নাম ভাঙ্গীয়ে মাটি কেটে বিক্রয় করছে কবির হোসেন। এ বিষয়ে ওই এলাকার লোকজন জানায় প্রায় ২০/২৫ দিন ধরে প্রতিদিন শতাধীক ট্রাক দিয়ে নদী গর্ত করে মাটি কাটা হচ্ছে। এই মাটি কোথা যাচ্ছে জানতে চাইলে সে বলেন সবুজ চেয়ারম্যনের ইট ভাটা যাচ্ছে আমি শুনেছি। মাটি বহন কারী ট্রাক চালক খোরশেদ আলম বলেন, এই মাটি সবুজ চেয়ারম্যনের ইটভাটায় যাবে। ট্রাকের খরচ সর্ম্পকে জানতে চাইলে সে বলেন ট্রাকের মালিক মফিজুল ইসলাম তা বহন করেন। কবির হোসেনের মোবাইল ফোনে আলাপ করলে তিনি জানান, আপনাদের খাইয়া আর কাজ নেই, সরকার আপনাদের কাজ দিছে নাকি নদীর মাটি দেখে রাখতেন। আমি মাটি কাটবো, পারলে পত্রিকা দিয়ে দেন। আমার কিছু হবে না। বিএনপি নেতা সবুজ চেয়ারম্যানের সাথে আলাপ করলে তিনি জানান, আমি ট্রাকের মালিক মফিজ মিয়ার কাছ থেকে মাটি কিনেছি। ট্রাকের মালিক মফিজুল ইসলামকে মাটি বিক্রয় করেছে কিনা তা জিঞ্জাসা করলে তিনি বলেন আমি মাটি বিক্রয় করেনি। এবিষয়ে বুড়িচং উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আনম নাজিম উদ্দিন বলেন, মাটি কাটার বিষয়টি নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছি।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply