ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কে দিন ব্যাপী ৫০ কিঃমিঃ দীর্ঘ যানজট

মো. জাকির হোসেন :–

ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা ময়নামতি সেনানিবাস এলাকায় গতকাল শুক্রবার সকালে ট্রাক বিকল ও গৌরীপুরে ভোররাতে দু’টি ট্রাকের সংঘর্ষ এবং ফোর লেনের কাজের ফলে শুক্রবার ভোর থেকেই মহাসড়কে যানজটের সৃষ্টি হয়। এসময় দাউদকান্দির বিশ্বরোড থেকে কুমিল্লা কোটবাড়ি রাস্তার মাথা পর্যন্ত প্রায় ৫০ কিঃমিঃ দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।
হাইওয়ে পুলিশ সুত্র জানায়, ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা ময়নামতি সেনানিবাস এলাকায় শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০ টায় একটি ঢাকাগামী রডবাহী একটি ট্রাক বিকল হয়ে রাস্তায় পড়ে থাকলে সড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। এসময় দু’দিকে যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ময়নামতি হাইওয়ে পুলিশের একটি রেকার ঘটনাস্থলে পৌছে বেলা সাড়ে ১১ টায় বিকল হওয়া ট্রাকটি সরিয়ে নিলে যান চলাচল শুরু হয়। এসময় যানজট কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার কোটবাড়ি রাস্তার মাথা থেকে চান্দিনার মাধাইয়া পর্যন্ত প্রায় ২৫ কিঃমিঃ দীর্ঘ হয়। এছাড়াও গতকাল শুক্রবার ভোর পৌনে ৪ টায় দাউদকান্দির গৌরীপুর এলাকায় ঢাকাগামী একটি রড বোঝাই ট্রাককে পিছন থেকে মালবাহী অপর একটি ট্রাক ধাক্কা দিলে দু’টি ট্রাক মহাসড়কে বিকল হয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ইলিয়টগঞ্জ হাইওয়ে ফাঁড়ি থেকে উদ্ধারকারী রেকার দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছে ভোর সাড়ে ৫ টায় যান দু’টিকে সরিয়ে নেয়। দু’টি দুর্ঘটনা পাশাপাশি শুক্রবার সরকারী ছুটির দিন থাকায় মহাসড়কে এমনিতেই যানবাহনের চাপও ছিল অতিরিক্ত । ফলে যানজট দাউদকান্দিও বিশ্বরোড থেকে কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার কোটবাড়ি রাস্তার মাথা পর্যন্ত প্রায় ৫০ কিলোমিটার দীর্ঘ হয়। এতে সকাল থেকেই যানজট নিরসনে হাইওয়ে পুলিশের তিনটি টিম মহাসড়কে দায়িত্ব পালন করতে দেখা যায়। দুপুর ২ টার পর থেকে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়ে উঠে। এব্যাপারে কুমিল্লা হাইওয়ের সহকারী পুলিশ সুপার সুলায়মান মিয়া জানান, গতকাল মহাসড়কের কোথাও মোবাইল কোর্ট না থাকায় ভোর থেকেই যানবাহনের অতিরিক্ত চাপ ছিল। তার উপর দুটি দুর্ঘটনার পর যান চলাচল কিছু সময়ের জন্য বন্ধ থাকলে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। দুপুরের পর যান চলাচল স্বাভাবিক হয়ে আসে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply