মুরাদনগরে উজির পরিবারের কাছে জিম্মি অর্ধশতাধিক পরিবার

মো: মোশাররফ হোসেন মনির, মুরাদনগর :–

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার শ্রীকাইল ইউনিয়নের মনহারাবাদ গ্রামের উজির মিয়ার পরিবারের কাছে প্রায় অর্ধশতাধিক পরিবার জিম্মি। এ পরিবারটি যেভাবে চাইবে, যা বলবে ঠিক তাই করতে হয় ঐ জিম্মি পরিবার গুলোর, তা না হলে তাদের উপর নেমে আশে নির্মম র্নিযাতন, হামলা, মামলা এবং কখনও কখনও রাতের অন্ধকারে মহিলাদের তুলে নিয়েও চালানো হয় নির্যাতন। উজির পরিবারের ভয়ে এলাকাবাসী ও নির্যাতিতরা কেউ মুখ খুলে না। যখন যেই রাজনৈতিক দল ক্ষমতায় থাকে তাদের ছত্রছায়ায় থেকেই উজির পরিবার চালিয়ে যাচ্ছেন এই কর্মকান্ড।
গতকাল রবিবার সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ঐ পরিবার গুলোর জীবন যুদ্ধের সেই হৃদয়বিদারক ঘটনা। উপজেলার শ্রীকাইল ইউনিয়নের হাটখোলা বাজারের পাশেই মনহারাবাদ গ্রামে অসহায় প্রায় অর্ধশতাধিক পরিবারের বসবাস। ঐ গ্রামের মৃত সাহেব আলীর ছেলে উজির মিয়া(৬০) ও তার দু’ছেলে নাছির(৩৫), ইয়াছিন আহাম্মদ বশির(৩২) সহ তার সন্ত্রাসী বাহিনী সব সময় ঔ পরিবার গুলির উপর চালায় নির্মম নির্যাতন।
গত ১০ নভেম্বর সোমবার উজির বাহিনী একটি লোককে মারধর করলে, মৃত আহাম্মদ আলীর ছেলে মো: তাজুল ইসলাম ও কিছু যুবক প্রতিবাদ করলে ঐ দিন রাতের বেলায় প্রতিবাদ কারীদের বাড়ি ঘর ও দোকানপাটে হামলা ভাংচুর লুটপাট চালায় উজির বাহিনী।
এ ব্যাপারে তাজুল ইসলাম জানান, আমি প্রতিবাদ করায় রাতে আমার বাড়িতে উজির মিয়ার নেতৃত্বে তার ছেলে নাছির, ইয়াছিন, ভুতাইল গ্রামের মৃত যাখু মিয়ার ছেলে জামালসহ ১০/১৫ জন সন্ত্রসীরা বাড়ি ভাংচুর করে সাড়ে ৪ ভরি সোনা, নগদ এক লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা, ল্যাপটপ, মোবাইল,কাপড় লুটপাট করে যায়। আর হাটখোলা বাজারের দোকান ভাংচুর ও লুটপাট করে ঐ উজির বাহিনীর সন্ত্রসীরা। আমি মুরাদনগর থানায় অভিযোগ করলে উল্টো উজির পরিবারের সন্ত্রাসীরা আমাকে হত্যার হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। আমি বাদি হয়ে মুরাদনগর থানায় অভিযোগ করলে মুরাদনগর থানার এসআই নুরুল আলমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ তদন্ত করে গত শনিবার রাতে মামলাটি গ্রহন করেন।
এব্যাপারে মুরাদনগর থানার এএসআই নুরুল আলম জানান, লোটপাট ও ভাঙচুড়ের ঘটনায় মামলা হয়েছে। অভিযোগ কারিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

Check Also

দাউদকান্দিতে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

হোসাইন মোহাম্মদ দিদার :কুমিল্লার দাউদকান্দিতে শান্তা বেগম (২৪) নামে এক গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। ...

Leave a Reply