শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নিয়ম অমান্য করে বুড়িচংয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নিয়োগ : সভাপতিকে কারন দর্শানোর নোটিশ

মোঃ জাকির হোসেন :–

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলা সদরের মডেল ট্রাস্ট পরিচালিত বুড়িচং মডেল একাডেমীতে শিক্ষা বোর্ডের নিয়ম অমান্য করে অবৈধ ভাবে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নিয়োগের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অবৈধ নিয়োগকৃত প্রধান শিক্ষকের নিয়োগ বাতিল না করার শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক সভাপতিকে কারন দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে।
জানা যায়, বুড়িচং মডেল একাডেমীর প্রধান শিক্ষক পদটি ২০০৪ সালে খালি হয়। শূন্যস্থলে তৎকালিন সিনিয়র শিক্ষক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেয় ম্যানেজিং কমিটি। পরে ২০০৭ সালে শিক্ষক প্রতিনিধিদের আপত্তি উপেক্ষা করে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের পরিপত্র অমান্য করে বিদ্যালয়ের এমপিও ভূত্ত সিনিয়র শিক্ষকদের ডিঙ্গিয়ে নন এমপিও ভূক্ত সহকারি ও জুনিয়র শিক্ষক মোঃ কবির হোসেনকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ দেয়া হয়। যা শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের ০৬/০৬/২০১১ইং তারিখে পরিপত্রের সম্পূন লঙ্গন। বিধি মোতাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নিয়োগ না দেয়ায় বিদ্যালয়ের প্রশাসনিক শূঙ্খলা ও লেখা পড়ার পরিবেশ বিঘিœত হতে থাকে। বিষয়টি লিখিত ও মোখিক ভাবে ১৪ আগষ্ট ২০১১, ২ সেপ্টেম্বর ২০১১ সর্বশেষ এ বছরের ০৮জুন সভাপতিকে অবগত করা হয়। ৩ সেপ্টম্বর ২০১১ইং তারিখে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যানকে বিষয়টি অবগত করলে বোর্ডের কর্র্তৃপক্ষ স্মারক ৩০/০১/২০১২ইং তারিখে সভাপতি বরাবরের চিঠি প্রেরন করে এবং শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের ০৬/০৬/২০১১ইং তারিখের পরিপত্র বলবৎ করার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। কিন্তু মডেল একাডেমীর পরিচালনা পর্ষদ অদ্যাবধি পর্যন্ত কোন বিহিত ব্যবস্থা নেয় নি। ফলে ২৭ অক্টোবর কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড কর্তৃপক্ষ বুুড়িচং মডেল একাডেমীর ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিকে কারন দর্শানোর নোটিশ প্রদান করেন। সভাপতি কেন শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের পরিপত্র ও বোর্ডের নির্দেশনা অমান্য করেছেন তা এখনো জানা যায়নি। মডেল একাডেমীর সিনিয়র শিক্ষক নূরুল ইসলামের সাথে আলাপকালে তিনি জানান, বিধি বর্হিভূত ভাবে জুনিয়র শিক্ষককে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ দিয়ে সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মোঃ ফরিদ উদ্দিন ক্ষমতার চরম অপব্যবহার, স্বজনপ্রীতি ও শিক্ষকদের সাথে বিভাজন সৃষ্টি করেছেন। প্রশাসনিক শূঙ্খলা ও শিক্ষায় সুষ্ঠু পরিবেশ বিঘিœত হয়েছে। তিনি আরও জানান, অবৈধ ভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নিয়োগের বিষয়ে সমাধান লক্ষে দীর্ঘদিন ধরে আমরা সভাপতি ও শিক্ষা কর্তৃপক্ষের নিয়ে লেখা-লেখি করায় সভাপতি ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আমাদের বেতন বন্ধ, এমপিও বিলে স্বাক্ষর করবে না। মিথ্যা অভিযোগ এনে হয়রানি, শোকজ করা, অসৌজন্য মূলক আচারনসহ বিভিন্ন ভয়ভীতি ও চাকুরিচ্যূত করার আইনী প্রক্রিয়া আবলম্বন করছেন।
এ বিষয়ে পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মোঃ ফরিদ উদ্দিনের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, মন্ত্রনালয়ের জারীকৃত পরিপ্রতের পূর্বেই ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নিয়োগ হয়েছে। জ্যেষ্ঠতম শিক্ষককে কেন নিয়োগ দেয়া হলো না, এবিষয়ে তিনি বলেন জ্যেষ্ঠ শিক্ষকদের প্রধান শিক্ষক হওয়ার যোগ্যতা নেই। তাই তাদের নিয়োগ দেয়া হয়নি। শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক কারন দর্শানোর নোটিশের বিষয়ে তিনি বলেন, পর্যাক্রমে জবাব দেয়া হবে।
এ বিষয়ে বুড়িচং উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ ইকবাল হাছান জানান, শিক্ষা মন্ত্রনালয় ও বোর্ডের নির্দেশ অমান্য করে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নিয়োগের বিষয়ে বুড়িচং মডেল একাডেমী কর্তৃপক্ষকে কয়েক বার মৌখিক ও লিখিত ভাবে জানানো হয়েছে। সর্বশেষ শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক কারন দর্শানোর যে, নোটিশ প্রদান করা হয়েছে তা অমান্য করলে আমি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply