মতলব উত্তরে সরকারিভাবে সোয়া কিঃ মিঃ বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণে ১১৫ গ্রাহক গুণতে হয়েছে ১০ লক্ষাধিক টাকা ॥ টাকা উত্তোলনকারী আবুল বাশার

শামসুজ্জামান ডলার, মতলব উত্তর (চাঁদপুর) :–

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলায় সরকারি ভাবে সোয়া কিঃ মিঃ বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণে ১১৫ গ্রাহকের কাছ থেকে উত্তোলন করা হয়েছে ১০ লক্ষাধিক টাকা। ছেংগারচর পৌরসভার জর্জ নগর ও বাগবাড়ী গ্রামের ১১৫ গ্রাহকের জন্য লাইন নির্মাণ করা হয় ১.৩১১ কিঃ মিঃ। সরকারি ভাবে এই লাইন নির্মাণে ব্যয় হয় ১৯ লক্ষ ৬৬৫০ টাকা। লাইন নির্মাণের ব্যয় সরকারিভাবে বহন করা হলেও ছেংগারচর পৌর মেয়রের ডানহস্থ হিসেবে পরিচিত স্থানীয় আবুল বাশার কর্তৃক এই টাকা উত্তোলন করার অভিযোগ রয়েছে। গত শুক্রবার আনুষ্ঠানিকভাবে বিদ্যুতায়নের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে চাঁদপুর পলী­বিদ্যুৎ সমিতির জিএম মোঃ ইউসুফ মিয়া তাঁর বক্তব্যে এই বিদ্যুৎ নির্মাণ সরকারিভাবে হয়েছে, গ্রাহকদের কাছ থেকে কোন প্রকার টাকা পয়সা নেওয়া হয়নি। তাঁর এমন বক্তব্যের পরপরই উপস্থিত গ্রাহকদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

সরেজমিনে গতকাল শনিবার নব বিদ্যুতায়িত জর্জ নগর ও বাগবাড়ি গ্রামের বিদ্যুৎ সুবিধাভোগী অনেক গ্রাহকদের সাথে কথা হয়। এ সময় গ্রাহকদের অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, জিএম স্যার বইলা গেলেন বিদ্যুৎ পাইছি সরকারিভাবে, তয় জীবগাঁওয়ের আবুল বাশার আমাগো থিকা ১০ হাজার কইরা টেকা নিলো কিল্লিগা। হেয়তো আমাগরে কইছে টেহা ছাড়া বিদ্যুৎ পাইতাম না। হেইল্লিগাইতো আমরা এতো কষ্ট কইরা টেহা পইসা দিলাম।

এমনকি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা ও অতিথিদের দুপুরের আপ্যায়ন খরচ বাবদ খরচের জন্য প্রতি গ্রাহককে ৫০০ টাকা করে গুণতে হয়েছে। কেউ কেউ আবার ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, অনুষ্ঠান অইল মেয়র সাবের বাইত, হেই অনুষ্ঠানের টেহা আমরা দিলাম, ভাই এইডা কেমন কথা কনতো?

এলাকাবাসী জানান, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আমাদের মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম বলেছেন, সরকার বিনা পয়সা সকল গ্রামে বিদ্যুৎ পৌছে দিবে। তাহলে এলাকার কিছু সংখ্যক লোক আমাদের কাছ থেকে টাকা নিয়েছে কেন? মন্ত্রী সাহেব যেন ওদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আবুল বাশারের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে সে জানায়, বিদ্যুৎ সংক্রান্ত ব্যাপারে আমি কারও কাছ থেকে কোন টাকা পয়সা নেইনি। চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মতলব উত্তর উপজেলা জোনাল অফিসের ডিজিএম মোঃ আবুল কালাম জানান, জীবগাঁয়ের আবুল বাশার বিদ্যুতের ব্যাপারে একাধিকবার আমার কাছে আসলেও সে স্থানীয়ভাবে কোন টাকা পয়সা নিয়েছে কিনা তা আমার জানা নেই। তবে তার সাথে আগত গ্রাহকদের আমি পরামর্শ দিয়েছি গ্রাহকরা যেন যার যার টাকা সে সে জমা দেয়।

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply