বুড়িচংয়ে স্কুল ছাত্র হত্যা মামলার প্রধান আসামী গ্রেফতার

মো. জাকির হোসেন :–

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার কোরপাই এলাকায় চাঞ্চ্যলকর স্কুল ছাত্র নাজমূল হত্যার ঘটনার এজহার ভূক্ত প্রধান আসামী মাদক ব্যবসায়ী সুমনকে গ্রেফতার করেছে বুড়িচং থানাধীন দেবপুর ফাঁড়ী পুলিশ।
বুড়িচং থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জহিরুল ইসলাম জানায়, স্কুল ছাত্র হত্যার পর থেকে সন্দেহ ভাজনদের উপরে কঠোর নজরদারী রাখা হয়। হত্যার সাথে জড়িতের গ্রেফতারের বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করে আসছিল। হত্যার পরিকল্পনাকারী আবুল বাশারের ১৬৪ ধারায় শিকারোক্তি ও আসামী সুমনের মোবাইল ফোন ট্রেকিং এর মাধ্যমে গতকাল সকাল সাড়ে ১১ টায় কুমিল্লা নগরীর কাপ্তার বাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই নজরুল ইসলাম জানায়, হত্যার পর থেকে আসামী সুমন চট্টগ্রামে অবস্থান করে। গতকাল ভোরে সে চট্টগ্রাম থেকে রওনা হয়ে কুমিল্লা আসে। মোবাইল ফোন ট্রেকিং ও সোর্সের দেয়া তথ্য অনুযায়ী তাকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়েছে। গ্রেফতারকৃত দুই আসামীর শিকারোক্তিতে জানা যায়, মূলত সিএনজিটি নেয়ার জন্যই স্কুল ছাত্র নাজমূলকে হত্যা করা হয়। হত্যার মিশনে আরো দুইজন অংশগ্রহন করেছে। ওই দু’জনকে গ্রেফতার করতে পারলে হত্যায় ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধারসহ আরো তথ্য বেড়িয়ে আসবে। উল্লেখ্য, কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার মধ্যমতলা গ্রামের আব্দুর রবের পুত্র গোবিন্দপুর আলী মিয়া ভূইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেনীর ছাত্র নাজমূল হাছান গত শুক্রবার তার বড় ভাইয়ের মালিকীয় সিএনজি অটো রিক্সা চালাচ্ছিল। রাত্র ৯ টায় নাজমূল ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের গোবিন্দপুর এলাকা থেকে কোরপাই গ্রামের সেলিম মিয়ার ছেলে মোঃ সুমন মিয়া (২৫) ও ৩ জন যুবককে নিয়ে বরুড়া বাজারের দিকে রওনা দেয়। রাতে নাজমূল আর বাড়ী ফেরেনি। পরদিন শনিবার ভোর সাড়ে ৬ টায় বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের কোরপাই-পিহর সড়কের কোরপাই শান্তামূড়া নামক স্থানে জনৈক মফিজুল ইসলামের জমির মেশিন ঘরের পাশে একটি গলাকাটা লাশ দেখতে পায় স্থানীয়রা। পরে নিহতের পরিবারের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতের লাশ সনাক্ত করে। এ ঘটনায় নিহতের পিতা আবদুর রব বাদী হয়ে শনিবার রাতে উল্লেখিত সুমন মিয়াকে নামীয় ও অজ্ঞাত আরো ৩জনকে আসামী করে বুড়িচং থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। এদিকে সোমবার সকালে মামলার আসামী সুমন মিয়ার বাড়ী থেকে ১শ’ত গজ দূরে একটি ডোবায় স্থানীয়রা সিএনজির সিট ভাঁসতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। পরে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই নজরুল ইসলাম ঘটনাস্থলে পৌঁছে ডোবা থেকে অন টেষ্ট সিএনজিটিকে উদ্ধার করে। স্কুল ছাত্র নাজমূলের হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবীতে তার নিজ স্কুলের শিক্ষার্থীসহ এলাকার লোকজন বিক্ষোভ করে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply