জাতিকে সুশিক্ষিত করে সঠিক পথ প্রদর্শনের মাধ্যমে প্রত্যাশিত লক্ষ্যে নিয়ে যেতে পারেন শুধু শিক্ষকরাই

কুমিল্লা প্রতিনিধি :–

বাংলাদেশে শিক্ষকতা পেশাটি তেমন জনপ্রিয় না হওয়ায় অনেক কৃতি শিক্ষার্থীরা তাদের শিক্ষাজীবন শেষ করে এই পেশায় আসতে চায় না। অথচ মানসম্পন্ন শিক্ষা প্রদান ও আলোকিত মানুষ গড়ার লক্ষ্যে পেশাগত দক্ষতা সম্পন্ন বিপুল সংখ্যক শিক্ষক প্রয়োজন। ইউনেস্কো ইন্সিষ্টিটিউট ফর স্টেটিসটিকস অনুসারে মানসম্মত শিক্ষকের স্বল্পতার কারণে অনেক দেশে সার্বজনীন প্রাথমিক শিক্ষা ব্যহত হচ্ছে। বিশ্ব শিক্ষক দিবস শুধুমাত্র শিক্ষকদের ন্যায্য স্বার্থ সংরক্ষণের কথাই বলে না, বরং আগামী প্রজন্মের মানসম্মত শিক্ষার কথা চিন্তা করে শিক্ষকতা পেশাকে আরও আকর্ষণীয় এবং শিক্ষকদের জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণেরর কথাও বলে। শিক্ষকদের দক্ষতা ও মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য জাতীয় শিক্ষানীতির আলোকে সময়োপযোগী প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করলে শিক্ষার মানন্নোয়ন ঘটবে। কারণ জাতিকে সুশিক্ষিত করে সঠিক পথপ্রদর্শনের মাধ্যমে প্রত্যাশিত লক্ষ্যে নিয়ে যেতে পারেন শুধু শিক্ষকরাই। ১৯ অক্টোবর দাতা ডিএফআইডি ও সিএসইএফ আর্থিক সহায়তায় বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা গণসাক্ষরতা অভিযান ও দর্পণ সমাজ উন্নয়ন কেন্দ্রের যৌথ উদ্যোগে দর্পণের অপরাজিতা সম্মেলন কক্ষে বিশ্ব শিক্ষক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তাগন এ কথাগুলি বলেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার কুমিল্লার উপ-পরিচালক (উপ-সচিব) জনাব সঞ্জয় কুমার ভৌমিক। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জনাব ফাতেমা মেহের ইয়াসমিন ও কুমিল্লা প্রেস ক্লাবের নব-নির্বাচিত সাধারন সম্পাদক ৭১ টিভির কুমিল্লা প্রতিনিধি কাজী এনামুল হক ফারুক । সভায় সভাপতিত্ব করেন কুমিল্লা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও সাপ্তাহিক অভিবাদন সম্পাদক আবুল হাসানাত বাবুল।
অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য ও মাল্টিমিডিয়া প্রেজেন্টেশন করেন -দর্পণ সমাজ উন্নয়ন কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক মো: মাহবুব মোর্শেদ। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- মালেকা মমতাজ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহাদাৎ হোসেন. রাজেশপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল মালেক, হাউজিং এস্টেট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, লালবাগ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মরিয়ম বেগম, বাগিচাগাঁও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোহাম্মদ আলী, বিশিষ্ট কবি ও সংগঠক ফখরুল হুদা হেলাল, যমুনা টিভির কুমিল্লার স্টাফ রিপোর্টার ও সমতটের কাগজ ডট কমের প্রধান সম্পাদক দিলরুবাইয়াৎ সৌরভী, বিজয় টিভির কুমিল্লা প্রতিনিধি ও সাপ্তাহিক কুমিল্লা দর্পণ-এর বার্তা সম্পাদক মো: শাকিল মোল্লা, ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন চৌধুরী এবং শিক্ষার্থী আফসানা আফরোজ জুঁই। আলোচনা সভায় বিশ্ব শিক্ষক দিবস ২০১৪ উপলক্ষে যেসব দাবী উপস্থাপন করা হয় সেগুলো হলো: মৌলিক শিক্ষাকে অধিকার হিসেবে স্বীকৃতি প্রদানের লক্ষ্যে সমন্বিত শিক্ষা আইন প্রণয়ন করতে হবে এবং তার যথাযথ বাস্তবায়নের জন্য রাষ্ট্রকেই পর্যাপ্ত বিনিয়োগ করতে হবে; শিক্ষার্থী ভর্তির ক্ষেত্রে সরকার নির্ধারিত ফি এর বাইরে অতিরিক্ত কোন ফি না নেওয়া এবং শিক্ষার ঢালাও বাণিজ্যিকীকরণ বন্ধে মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশের আলোকে রাষ্ট্র কর্তৃক যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে; ঝরে পড়া রোধে শিক্ষক, অভিভাবক, স্কুল ম্যানেজিং কমিটিসহ সংশ্লিষ্ট সকলের অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরণ করতে হবে; কারিগরী ও বৃত্তিমূলক শিক্ষার প্রসার ও মান নিশ্চিতকরণের জন্য প্রশিক্ষক পুল গঠন করতে হবে; শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য ধারাবাহিক প্রশিক্ষণের সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে; মানসম্মত শিক্ষা নিশিশ্চতকরণে শিক্ষকদের অধিকতর প্রচেষ্টা গ্রহণ করতে হবে; অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চা-বাগান, চর, হাওর, দূর্গম ও পাহাড়ী অঞ্চলসহ সকল বিদ্যালয়বিহীন গ্রামে বিদ্যালয় স্থাপন করতে হবে; জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০-এর ঘোষনা অনুযায়ী স্থায়ী শিক্ষা কমিশন ও শিক্ষকদের জন্য পৃথক বেতন কমিশন গঠন করতে হবে; অবিলম্বে দেশের সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষাব্যবস্থা চালু করা এবং এ লক্ষে প্রয়োজনীয় শিক্ষক ও শ্রেণী কক্ষের ব্যবস্থা করতে হবে; জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ এর আলোকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সুবিধা বঞ্চিত জনগোষ্ঠী যেমনঃ দলিত, হরিজন, যৌনকর্মী অধ্যুষিত এলাকা চা বাগান, চর, হাওর, দুর্গম ও পাহাড়ি অঞ্চলসমূহে পর্যাপ্ত সংখ্যক শিক্ষক নিয়োগ করে শিক্ষার্থী- শিক্ষক অনুপাত ৩৫ঃ১ এ নামিয়ে আনতে হবে; শিক্ষার্থীদেরকে কোন প্রকার শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করা যাবেনা, এ ক্ষেত্রে মহামান্য হাইকোর্টের রায়কে অনুসরণ করতে হবে; তথ্য প্রযুক্তির অপব্যবহারের মাধ্যমে নারী শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের অবমাননারোধে শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষা প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে; শুধুমাত্র শিক্ষক নয় শিক্ষার সাথে সংশ্লিষ্ট সকলের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে; সকল ধরণের প্রতিবন্ধী ও ক্ষুদ্র জাতিসত্তার জন্য বৃত্তিমূলক কারিগরি শিক্ষায় ভর্তির নূন্যতম ৫% বিশেষ কোটা সংরক্ষণ করতে হবে; সরকারী-বেসরকারী ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার কর্মকর্তা কর্মচারীদের বদলীজনিত কারণসহ অন্যান্য যুক্তিযুক্ত কারণে শিক্ষার্থীদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিবর্তনের বিষয়ে সুস্পষ্ট নীতিমালা প্রণয়ন করতে হবে এবং শিক্ষার সুষ্ঠ পরিবেশ সৃষ্টি ও বজায় রাখার স্বার্থে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহকে দলভিত্তিক রাজনীতির উর্দ্ধে রাখা জরুরী, এ লক্ষ্যে নীতিমালা প্রণয়ন ও কঠোরভাবে প্রয়োগ করতে হবে।
অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন দর্পণ এর প্রোগ্রাম অর্গানাইজার তানিয়া আক্তার স্বপ্না। সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন দর্পণ সমাজ উন্নয়ন কেন্দ্রের সহকারি প্রকল্প পরিচালক মো: আবুল হাসেম এবং ডিস্টিক্ট ক্যাম্পেইন ফ্যাসিলেটেটর সালমা আক্তার চৈতী।
এর আগে দিবসটি উপলক্ষে দর্পণ ও গণ সাক্ষরতা অভিযান এর যৌথ উদ্যোগে সকালে পুলিশ লাইন স্কুল থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালী উদ্বোধন করেন জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ আবদুল মজিদ এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ফাতেমা মেহের ইয়াসমিন, সাপ্তাহিক অভিবাদনের সম্পাদক আবুল হাসানাত বাবুল, দর্পণের নির্বাহী পরিচালক মোঃ মাহবুব মোর্শেদ, বিশিষ্ট কবি ও সংগঠক ফখরুল হুদা হেলালসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, সাংবাদিক ও বেসরকারী উন্নয়ন সংগঠনের প্রতিনিধিবৃন্দ।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply