বাংলাদেশের মানুষের ভালোবাসায় আমি অভিভূত: শচীন

ঢাকা :–

বাংলাদেশের মানুষের ভালোবাসা আমাকে অভিভূত করেছে। এই দেশের সঙ্গে আমার অনেক স্মৃতি জড়িয়ে আছে। ১৯৯৮ সালে যখন বাংলাদেশে প্রথমবারের খেলতে এসেছি; সেই সময়কার কথা আমি এখনো ভুলিনি।সবাই ‘শচিন’, ‘শচিন’ করে করতালি দিয়ে তখন যেই ভালোবাসা প্রকাশ করেছে সেটা সত্যিই অসাধারণ।মঙ্গলবার বিকেলে সোনারগাঁও হোটেলে ‘লিজেন্ড অব রূপগঞ্জ’র লোগো উন্মোচন অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে টেন্ডুলকার এ কথা বলেন।
শচীন বলেন, ক্যারিয়ারের শততম সেঞ্চুরিটি বাংলাদেশের মাটিতে করেছি। টেস্টের সর্বোচ্চ রানের ইনিংসটিও ঢাকায় খেলেছি।এ দেশের সঙ্গে মধুর স্মৃতিগুলো কখনো ভোলার মতো নয়।এ সময় ‘লিটল বয়’ শচিন ‘লিজেন্ড অব রূপগঞ্জ’ ক্লাবের কর্ণধার ও তার বন্ধু লুৎফুর রহমান বাদলকে ধন্যবাদ জানান।
লুৎফর রহমান বাদলের ব্যক্তিগত আমন্ত্রণেই মঙ্গলবার সকালে একদিনের সফরে শচিন বাংলাদেশের মাটিতে পা রাখেন।লিজেন্ড অব রুপগঞ্জ’র লোগো উন্মোচন অনুষ্ঠানে আইসিসির সভাপতি ও পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল, লিজেন্ড অব রূপগঞ্জের মালিক লুৎফুর রহমান বাদল, এনটিভির চেয়ারম্যান মোসাদ্দেক আলী ফালু, বাংলাদেশ জাতীয় দলের অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন ।
মঙ্গলবার বেলা ১১টায় শচিন রমেশ টেন্ডুলকার শাহজালাল বিমান বন্দরে নামেন।ভারতের গৌহাটি থেকে মুম্বাই হয়ে একটি চার্টার্ড বিমানে করে শচিন বেলা ১১টায় হযরত শাহজালাল রহ. আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান। সেখান থেকে হেলিকপ্টারে করে রুপগঞ্জ বালুর মাঠে নামেন।
মঙ্গলবার দুপুরে হাজার হাজার মানুষ শত শত বেলুন উড়িয়ে শুভেচ্ছা জানায়। শচিন এখানে ২৫মিনিট অবস্থান করেন। রাতেই ঢাকা ত্যাগ করার কথা রয়েছে শচীনের।

Check Also

শেষ ষোলোতে চোখ ফ্রান্সের

  রাশিয়া বিশ্বকাপে গ্রুপ সি’র লড়াইয়ে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে আজ পেরুর মুখোমুখি হবে ফ্রান্স।ইয়েবাতেরিনবার্গের অ্যারেনায়া ...

Leave a Reply