দেবিদ্বারে তিন সন্তানের জননীর রহস্যজনক মৃত্যু

মোঃ আক্তার হোসেন :—

দেবিদ্বারে উপজেলার সুবিল ইউনিয়ন’র পশ্চিম পোমকাড়া গ্রাম থেকে রোববার বিকালে তিন সন্তানের জননীর লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আজ রোববার বিকালে উপজেলার সুবিল ইউনিয়ন’র পশ্চিম পোমকাড়া গ্রামের রজ্জব আলীর বাড়ি থেকে দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি তদন্ত) মোরশেদ পারভেজ তালুকদার এবং উপ-পরিদর্শক (এস.আই) শ্যামল চক্রবর্ত্তী’র নেতৃত্বে একদল পুলিশ আলেয়া বেগম সুমি (২৭) নামে ওই তিন সন্তানের জননীর লাশ উদ্ধার করে। নিহত আলেয়া বেগম সুমি পশ্চিম পোমকাড়া গ্রামের মোঃ রজ্জব আলীর পুত্র জাহাঙ্গীর আলম’র স্ত্রী।
পারিবারিক বিরোধের কারনেই নিহতার স্বামী জাহাঙ্গীর আলম পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যা করেছে বলে স্থানীয়রা ধারনা করলেও দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি তদন্ত) মোরশেদ পারভেজ তালুকদার বলছেন নিহতার মুখে বিষের গন্ধ পাওয়া গেছে, শরীরের ক্ষত-বিক্ষতের বিষয়ে বলেন ক্যামিকেলে ধাহ্যপদার্থের কারনেও হতে পারে, বিষয়টি হত্যা নাকি আত্মহত্যা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।
ধারনা করা হচ্ছে শনিবার দিবাগত রাতে কোন এক সময় ওই তিন সন্তানের জননীকে দুস্কৃতিকারীরা হত্যা করে তাকে ঘরের মেঝেতে ফেলে গেলেও পুলিশ রোববার বিকেল সোয়া ৩টায় ঘটনাস্থলে পৌঁছান এবং সন্ধ্যায় লাশ উদ্ধার উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। সোমবার সকালে লাশ ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করার কথা রয়েছে।
সংবাদ পেয়ে রোববার দুপুর আড়াইটায় ঘটনাস্থলে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় নিহতার লাশ নিজ ঘরের মেঝেতে পড়ে আছে। লাশের হাত, ঘার, মুখমন্ডলসহ শ্বরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে, দাত ভাঙ্গা ও হাতের এক পাশের চামড়া ছিলে আছে এবং কপাল ও ঘারের পেছনে ক্ষত চিহ্ন রয়েছে। ওই বাড়ির অন্যান্য ঘরের দরজা জানালা খোলা থাকলেও কোন লোকজনকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। প্রতিবেশীরাও এ বিষয়ে কোন কথা বলতে চাননি। নিতার মা রাবিয়া বেগম(৫০) ও বোন রেনুয়ারা বেগম(৩০), নূরজাহান বেগম(২২) এবং নিহতার ৩ কণ্যা সন্তান সুবর্ণা(১০), স্বর্ণা(৮) ও সাদিয়া(৩)’র আহাজারি আর্তনাদে আকাশ ভারী করে তুলছে। উপস্থিত শত শত লোকজনের চোখে-মুখে ক্ষোভ ও আতঙ্কের ছাপ দেখা যায়।
নিহতার ভাই ফারুক(২০) জানান, আমার ভগ্নীপতি জাহাঙ্গীর আলমই পরিকল্পিত ভাবে ভাড়াটে কিলার দিয়ে আমার বোনকে হত্যা করেছে। আমার ভগ্নীপতিকে গত রাতে এ এলাকায় স্থানীয়রা দেখেছেন বলেও জানায়। আমার বোনের অনুমতি ছাড়া গত বছর ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার সিদলাই গ্রামে নাছিমা নামে এক মেয়েকে বিয়ে করেছিল, সালিসের রায়ে ওই মেয়েকে বিতাড়িত করে। প্রায় দু’মাস পূর্বে আবারো গোপনে বিয়ে করে কোম্পানীগঞ্জ বাজারের আব্দুল জলীল’র মাছের আরত’র কর্মচারী হওয়ার সুযোগে ১লক্ষ ৮৬হাজার টাকা নিয়ে ঢাকায় পালিয়ে যায়। গত এক মাস সে পরিবারের সাথে কোন ধরনের যোগাযোগ রক্ষা করেনি। ফলে খাদ্যাভাবে বোন তার ৩কণ্যা সন্তানকে নিয়ে পিত্রালয়ে আশ্রয় নেন। শুক্রবার ভগ্নীপতি জাহাঙ্গীর’র বন্ধু রসুলপুর গ্রামের আবদুল গফুরের পুত্র আক্কাস মিয়া তার বোনকে জানান, তার স্বামীর সন্ধান পেয়েছে। তার কাছে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে তার শ্বশুর বাড়িতে নিয়ে আসে। গত (শনিবার রাত ৮টায়) বোনের সাথে ফোনে কথা বলার সময় সে জানায়, আক্কাস আমাকে মিথ্যে বলে বাড়িতে নিয়ে এসেছে। শেষ রাতে শোনতে পাই আমার বোনের লাশ ঘরের মেঝেতে পড়ে আছে।
প্রতিবেশী ফারুকের স্ত্রী নাছিমা জানান, ওদের খুব অভাব, গতকাল আমার কাছে চাইলের খুদ ধার চেয়েছিল, আমি এক টুরি খুত দিলে ওরা রান্না করে রাতের খাবার খায়। মাঝ রাতে সুবর্ণা আমার ঘরের দরজা ধাক্কায়ে আমাকে ঘুম থেকে উঠিয়ে জানায় তার মা’ কথা বলছেনা, তার মা’কে বাঁচাতে আমি বাড়ির লোকদের নিয়ে ঘরে ঢুকে এ অবস্থা দেখতে পাই।
নিহতার মেয়ে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার পোমকাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়’র তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী সুবর্ণা(১০) জানায়, রাতে টয়লেটে যেতে মাকে অনেক ডাকা-ডাকি করি, তখন বাহিরে বৃষ্টি হচ্ছিল, আমি একাই টয়লেট শেষ করে ঘরে আসি, খাটে উঠার সময় আমার পায়ে মা’র পা লাগে হাত দিয়ে ধরে দেখি মা মাটিতে শুয়ে আছে, আমার ছোট বোন স্বর্ণা(৮) ও সাদিয়া(৩) জেগে কান্নাকাটি শুরু করে, বাতি জ্বালিয়ে মায়ের অবস্থা দেখে বাড়ির লোকদের ডাকতে যাই, কেউ দরজা খুলেনা, অনেক পড়ে নাছিমা চাচি কয়েকজন লোক নিয়ে ঘরে ঢুকেন, মাকে দেখে বলেন মা’ জীবীত নেই। সন্ধ্যায় মা’ আমাদের জন্য পাশের বাড়ি থেকে একটি ডিম এন ভাজি করে আমাদের খাইয়েছে, মাকে ডিম খাইতে বললে মা বলেন, আমার ভালো লাগে না, তোমরা খাও বলে আমাদের তিন বোনকে বুকে টেনে জড়িয়ে ধরে।
দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মোঃ মিজানুর রহমান জানান, নিহতের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনার রহস্য উদঘাটনে তদন্ত চলছে। ময়না তদন্তের পরেই বলা যাবে হত্যা নাকি আত্ম হত্যা, তবে নিহতের পরিবার’র পক্ষ থেকে মামলা দায়ের’র প্রস্তুতি চলছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply