নাসিরনগরে দূর্গা প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত মৃৎশিল্পীরা

আকতার হোসেন ভুইয়া,নাসিরনগর :–

আগামী ১ অক্টোবর থেকে শুরু হচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। বাঙালি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দূর্গাপূজা উপলক্ষে নাসিরনগরে মৃৎশিল্পীরা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন । কাশফোটা শরতের শারদীয় এ দুর্গোৎসবকে পরিপূর্ণ রুপ দিতে মন্দিরগুলোতে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসবকে ঘিরে উপজেলার হিন্দুপাড়া গুলোতে আগাম শারদীয় উৎসবের আমেদ লক্ষ করা গেছে। উচু-নিচুর বিভেদ ভুলে সমাজের সকল স্তরের মানুষকে এক্ত্র করে মহাসম্মিলন ঘটনো হয় বলে এ পূজাকে বলা হয় সার্বজনীন পূজা। আর শরৎকালে হয় বলে বলা হয় শারদীয় উৎসব। আর দূর্গাপূজাকে সামনে রেখে উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের ১২৮টি মন্ডপের পূজা উদযাপন কমিটি ব্যস্ত সময় পার করছে। এছাড়াও পূজা শুরুর দু’দিন আগে শুরু হয় শেষ তুলির আঁচড়ে মৃিশল্পীর সমস্ত শিল্পীসত্তা দিয়ে প্রতিমা তৈরিতে শ্রেষ্ঠত্বের খেতাব অর্জনের অঘোষিত প্রতিযোগিতা। প্রতিমার গায়ে রঙ-তুলির কাজ শেষে অলংকার জড়ানো ও বস্ত্র আচ্ছাদনের পরই শুরু হয় পূজার মূল পর্ব। দুর্গাপূজার প্রতিমা ৫ ভাগে বিভক্ত থাকে। মূল কাঠামোর ১ ভাগে থাকে দশ হাতরূপী (দশভূজা) দুর্গা, বাহন সিংহ, পদতলে মহিষ ও অশুভ শক্তির ধারকরূপী অসুর। অপর ৪ ভাগে লক্ষ্মী, সরস্বতী, কার্তিক ও গণেশের আলাদা কাঠামো থাকে। দুর্গার প্রত্যেক হাতে থাকে শঙ্খ, চক্র, ত্রিশূলসহ বিভিন্ন উপকরণ। মহিষ ও অসুর বধের প্রতীকই হচ্ছে অশুভ শক্তির বিনাশ। একনাগাড়ে বৃষ্টির কারণে প্রতিমা শুকাতে বিলম্ব হয়েছে আবার কোন কোন মন্ডপে প্রতিমা তৈরির কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে বলে কারিগররা জানায়। আগামী ১ অক্টোবর থেকে ৫ দিনব্যাপী সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা শুরু হবে। ২৪ সেপ্টেম্বর নৌকায় দেবীর শুভাগমন (মহালয়ার) মধ্যদিয়ে শুরু এবং ৩ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে দোলায় করে দেবীর প্রস্থানের মধ্যদিয়ে শেষ হবে এ উৎসব। স্থানীয় কারিগর ছাড়াও বিভিন্ন স্থান থেকে কারিগররা এখানে এসে মাটির প্রতিমা তৈরি করছে । প্রতিটি পুজা মন্ডপের জন্য তৈরি করা হচ্ছে দূর্গা , লক্ষী, সরস্বতী, কার্তিক, গনেশ, অসুর ,সিংহ , মহিষ , পেচা,হাঁস, সর্পসহ প্রায় ১১টি প্রতিমা। হিন্দু সম্প্রদায়ের দূর্গতিনাশীনী দূর্গাদেবীকে বরণ করে নিতে মন্ডপে মন্ডপে প্রতিমা তৈরির কাজ,সাজসজ্জার কাজ চলছে। ঢাক বাদ্যকাররা বাদ্যযন্ত্র ঠিকঠাক করে নিচ্ছেন। পাশাপাশি প্রতিমা শিল্পীরাও মহাব্যস্ত প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত এর কারিগররা। দেবীকে স্বাগত জানাতে সবর্ত্র আনন্দঘন পরিবেশ বিরাজ করছে। হিন্দু সম্প্রদায়ের আবাল ,বৃদ্ধ-বনিতা,নারী,পুরুষসহ সব বয়সী মানুষ এ সর্ববৃহৎ শারদীয় উৎসবকে সার্থক করতে প্রহর গুনছে। সব মিলিয়ে ব্যাপক প্র¯ত্ততি চলছে প্রতিটি পূজামল্ডপে।
উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি কাজল জ্যোতি দত্ত জানান, এবার ১২৮টি মল্ডপে পূজা উৎসবের প্রস্তুতি চলছে। এছাড়াও কোন কোন স্থানে পূজা মন্ডপ বাড়তে অথবা কমতেও পারে। তাছাড়া নাসিরনগর সাম্প্রদায়িত সম্প্রীতির উপজেলা। দীর্ঘদিন ধরেই এখানে হিন্দু-মুসলমানেরা একসাথে ধর্মীয় উৎসব পালন করে আসছে। এবারও তার ব্যত্যয় ঘটবে না বলে তিনি দাবি করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চৌধুরী মোয়াজ্জম আহমদ জানান, হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের এ বড় অনুষ্ঠানের শান্তি -শৃঙ্খলা বজায় রাখতে প্রশাসনিকভাবে সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে ।

Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply