মুরাদনগরে উপজেলা পরিষদের দেয়াল ঘেষা সড়কটির বেহাল দশা : দেখার কেউ নেই

মো: হাবিবুর রহমান, স্টাফ রিপোর্টার :–

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলা পরিষদের পূর্ব পাশের দেয়াল ঘেষা সড়কটি দীর্ঘদিন যাবত সংস্কার না হওয়ার কারণে বেহাল দশায় পরিনত হয়েছে। একটু বৃষ্টি হলেই পানি জমে থাকে। বৃষ্টি ছাড়াও উক্ত সড়ক দিয়ে চলাচল করতে কষ্টকর। ফলে স্কুল-কলেজ ও মাদরাসার ছাত্র-ছাত্রীসহ প্রতিদিন প্রায় হাজার খানেক লোকজন মারাত্বক ভাবে দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। কিন্তু পরিতাপের বিষয় এটি দেখার কেউ নেই। দূর্ভোগের শিকার এলাকাবাসী বিষয়টির ব্যাপারে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন।
সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলা পরিষদের পূর্ব পাশের দেয়াল ঘেষা সড়কটির পাশেই রয়েছে উম্মেহানী মহিলা মাদরাসা নামে একটি দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এতে রয়েছে প্রায় ৩ শতাধিক শিক্ষার্থী রয়েছে। এর আশ-পাশে রয়েছে আরো কয়েক হাজার লোকের বসবাস। কিন্তুু উক্ত সড়কটিই নিমাইকান্দি এলাকার চলাচলের একমাত্র সম্বল। ১৯৯৫ সালে তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হানিফ এর সহযোগিতায় এ সড়কটি নির্মিত হয়। পরবর্তীতে তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খান মোহাম্মদ বিলালও সামান্য কাজ করে অবদান রেখে গেছেন। বিগত ৮/১০ বছরে উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন গ্রামীন রাস্তা পাকা ও সংস্কার হচ্ছে। কিন্তুু এটি উপজেলা পরিষদের পূর্ব পাশের দেয়াল ঘেষা হলেও সড়কটি কারো নজরে আসছে না। এলাকাবাসীর অভিযোগ, কত সরকার আসে আর যায়, কিন্তুু জনগুরত্বপূর্ণ এ সড়কটির কোন পরিবর্তন হয়না।
উম্মেহানী মহিলা মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আবুল হাছান জানান, তার মরহুম পিতা আব্দুস ছাত্তার অক্লান্ত পরিশ্রমের বিনিময়ে এ সড়কটি নির্মিত করা হলেও এ পর্যন্ত সংস্কার করার কেউ উদ্যোগ নেয়নি। সড়কটি সংস্কার কিংবা পাকা করার জন্য তিনি দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন অফিসে ঘুরাফেরা করলেও কোন কাজে আসছে না।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান খান জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। উক্ত সড়কটির বেহাল দশার ব্যাপারে আমার কাছে কেউ কিছু বলেনি। তারপরও খোঁজ-খবর নিয়ে দেখব, যদি সড়কটি জনগুরত্বপূর্ন হয় তাহলে সহসাই সংস্কার কিংবা পাকা করার উদ্যোগ নেয়া হবে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply