অপ্রাপ্তবয়স্কদের ‘মারদানি’ দেখা নিষেধ যে কারণে

ঢাকা:–
বলিউডে চলছে এখন ‘মারদানি’ মৌসুম। সমালোচকদের প্রশংসা কুড়ানো মারদানি ২২ আগস্ট মুক্তি পাওয়ার পর প্রথম সপ্তাহে ১৫ কোটি রুপির বেশি আয় করেছে। তবে মারদানির এমন সাফল্যেও খুশি হতে পারছেন না রানী মুখার্জি।

কারণ নির্মাতা যশ রাজের ছবিটি ১৮ বছরের কম বয়সীদের দেখার অনুমতি দেয়নি সেন্সর বোর্ড। বলিউডের ছবি নিরীক্ষাকারী সংস্থা সেন্ট্রাল বোর্ড অব ফিল্ম সার্টিফিকেশন মারদানিকে ‘এ’ ক্যাটাগরির ছবির অনুমতি দিয়েছে। আর এখানেই বেধেছে বিপত্তি।

নিয়মানুযায়ী ভারতীয় সেন্সর বোর্ডের ‘এ’ ক্যাটাগরির সার্টিফিকেট পাওয়া ছবি ১৮ বছরের কম বয়সীদের দেখা নিষেধ। সাধারণত যৌনতা সংশ্লিষ্ট ভাষা ও দৃশ্য, মাদকদ্রব্য ব্যবহার এবং সহিংস দৃশ্য সম্বলিত ছবিগুলোই ‘এ’ ক্যাটাগরির সার্টিফিকেট পায়।

ভারতীয় সেন্সর বোর্ডে যশ রাজের কোনো ছবি এই প্রথম ‘এ’ ক্যাটাগরি মূল্যায়নে মুক্তি পেয়েছে। এর আগে ছবিটির কিছু দৃশ্য এবং ভাষা সম্পাদনাও করে সেন্সর বোর্ড।

আর এতেই ক্ষেপেছেন রানী। বুধবার মুম্বাইয়ে সংবাদ সম্মেলনে রানী বলেন, ‘লজ্জার কারণে আমরা কেন বাস্তবতা থেকে দূরে থাকছি? বুঝতে পারছি না; সেন্সর বোর্ড তরুণদের কী দেখা থেকে বিরত রাখতে চাইছে?’

রানী বলেন, ‘অনেক এনজিও ছবিটি শিশুদের দেখা উচিত বলে মনে করে। আমি তাদেরকে সেন্সর বোর্ডে চিঠি দিতে বলেছি। আমরা তো শিশুদের মধ্যে সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যেই ছবিটি তৈরি করেছি।’

ক্যাটাগরি পুনর্বিবেচনার জন্য ছবিটি আবার সেন্সর বোর্ডে পাঠাবেন বলেও জানান রানী।

মারদানির প্রজোযক আদিত্য চোপড়াও সেন্সর বোর্ডের সঙ্গে দেখা করে ছবিটি ১২ বছরের বেশি বয়সীদের জন্য উন্মুক্ত করার কথা বলেন।

‘এ’ ক্যাটাগরি থেকে বাদ দিয়ে মারদানিকে ‘ইউ/এ’ ক্যাটাগরির সার্টিফিকেট দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন আদিত্য। আর সেটি হলে ১২ বছরের বেশি বয়সের শিশুরা দেখতে পারবে মারদানি।

তারা অযৌক্তিক দাবি করছেন না মন্তব্য করে মারদানির এক কর্মী বলেন, দু’একটি দৃশ্যের জন্য শিশুদের কাছ মারদানি দেখা থেকে দূরে রাখা উচিত নয়। দরকার হলে সেগুলো পরিবর্তন বা বাদ দেওয়া যায়।

মারদানি ‘ইউ/এ’ ক্যাটাগরি পেলে তারা ১২ বছরের কম বয়সী শিশুদের ছবিটি দেখানোর জন্য নিজেরাই প্রচারণা চালাবেন বলেও জানিয়েছেন। দরকার হলে এজন্য তারা অভিভাবকদের অনুরোধ করতেও রাজি।

৩৬ বছর বয়সী রানী মারদানি ছবিতে শিবানী শিবাজী রায় নামে এক জেদি ও কর্তব্যপরায়ণ পুলিশ কর্মকর্তার ভূমিকায় অভিনয় করেছেন। মুম্বাই পুলিশের অপরাধ বিভাগের কর্মকর্তা শিবানী শিশু পাচারকারীদের নির্মূল করতে বদ্ধপরিকর। জটিল এক মামলার তদন্ত করতে গিয়ে শিবাজীর জীবনে ঘটে যাওয়া কাহিনী নিয়েই মারদানি। এমন চরিত্রে রানীকে এর আগে দেখা যায়নি। সূত্র: বলিউডহাঙ্গামা

Check Also

কুমিল্লায় তিন গৃহহীন নতুন ঘর পেল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– কুমিল্লা সদর উপজেলায় গ্রামীণ উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের গৃহহীন নুরজাহান বেগম, ...

Leave a Reply