নবীনগরে জামাই ও শাশুড়ি মিলে গৃহবধূকে প্রান নাশের চেষ্ঠা

সাধন সাহা জয়: নবীনগর(ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধি :–

ব্রাহ্মণবাড়িয়া নবীনগর উপজেলার আলমনগর গ্রামের এক গৃহবধূকে জামাই, শাশুরি ও দেবরের সহযোগিতায় শনিবার সকালে কিটনাশক ঔষধ খাইয়ে দিয়ে মরে গেছে ভেবে ঘড়ের ভিতর রেখে চলে যায়।

গৃহবধূর মা ফরিদা বেগম জানান, নবীনগর পশ্চিম ইউনিয়নের দড়িগাও মধ্যপাড়ার হেলাল মিয়ার ছেলে শফিকুল ইসলাম বাবু আমার মেয়ে তাসলিমার সাথে আলমনগর গ্রামে ৪ বছর আগে বিয়ে হয়।
বিয়ের পর তাদের একটি কন্যা সন্তান হয়, কন্যা সন্তান হওয়ার পর থেকে আমার মেয়েকে নানান ভাবে নির্যাতিত করে আসছে, তার পর ও পরিবারে ঝগড়া-বিবাদ লেগেই আছে ভেবে কিছুই বলতাম না। সবশেষে আমার মেয়েকে ৪/৫ মাস আগে আমার বাড়িতে নিয়ে আসি।

বাড়িতে আনার পর শনিবার সকালে আমার অজান্তে মেয়েকে জামাই তাদের বাড়িতে নিয়ে গিয়ে তার মা এবং সে মিলে জোর করে মেয়েকে কিটনাশক ঔষধ মুখের ভিতর খাইয়ে দেই, দেওয়ার পর মরে গেছে ভেবে ফেলে দড়জা বন্ধ করে দিছে।

এলাকাবাসিরা শুনে দড়জা খুলে তাসলিমাকে নবীনগর সদর স্থাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ভর্তি করে এবং কর্তব্যরত ডাক্তার জানান ভাগ্যক্রমে বেছে গেছে, আর একটু দেরি হলে বাছানো সম্বভ হতো না।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply