নাঙ্গলকোটে ঈদবাজার জমজমাট; চাহিদার শীর্ষে পাঁখি ও অরণ্যে’র পোষাক

মোঃ আলাউদ্দিন মজুমদার, নাঙ্গলকোট :–

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে শেষ মুহুর্তে জমে উঠেছে ঈদের বাজার। ঈদের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, বিপনীবিতানগুলোতে ক্রেতাদের ভিড় ততই বৃদ্ধি পাচ্ছে।
সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, নাঙ্গলকোট জামান্স প্লাজা, বাদশা মিয়া কমপ্লেক্স, চেয়ারম্যান মার্কেট, নাঙ্গলকোট টাওয়ার মার্কেট, হাজী আলী আকবর প্লাজা, হাজী লতিফ কমপ্লেক্সসহ বিপনীবিতানগুরোতে সব বয়সী ক্রেতার উপচেপড়া ভিড়। বিশেষ করে নারী ক্রেতাদের ভিড় ছিল লক্ষনীয়। ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে লাগানো হয়েছে নানা ধরনের ব্যানার ও পেষ্টুন। লাগালো হয়েছে জোনাক বাতিও। রেডিমেট গার্মেন্ট, জুতা, কসমেটিকস ও ঈদের পাঞ্জাবি বেশি বিক্রি হচ্ছে। দুপুরের তপ্ত রোদ উপেক্ষা করে দোকানে দোকানে ঘুরে পছন্দের পণ্য কিনছে ক্রেতারা। দাম কম থাকায় ক্রেতারা কেনাকাটা নিয়ে সন্তুষ্ট। নাঙ্গলকোট জামান্স প্লাজায় কেনাকাটা করতে এসেছেন উপজেলার রায়কোট ইউপির পিপড্ডা গ্রামের এইচ,এম আজিজুল হক। তিনি জানান, তার বাবার পাঞ্জাবি, মায়ের জন্য শাড়ি, বোনের জন্য থ্রীপিস এবং নিজের জন্য পোশাক কিনেছেন। দাম তার কাছে গত বছরের মতোই মনে হয়েছে।
এবারের ঈদে কিশোরি ও তরুনীদের প্রথম পছন্দ ভারতীয় সিরিয়ালের নায়িকার নামে তৈরি করা বিভিন্ন ড্রেস। অবশ্য তরুনীদের পছন্দের শীর্ষে রয়েছে “পাখি” নামের থ্রীপিস ও ফ্রগ। দোকানে থরে থরে সাজানো বাহারি রং আর মনকাড়া ডিজাইনের পাখি থ্রীপিস। উপজেলার জোড্ডা গ্রাম থেকে এসেছেন হালিমা খাতুন। মেয়ের বায়না মেটাতে পাখি থ্রীপিস কিনতে এসে নিজের জন্যও কিনতে হলো। তিনি বলেন, পছন্দ হয়ে গেল তাই কিনলাম। তন্নি ফ্যাশনের মালিক আলমগীর হোসেন জানান, এবার পাখি নামের থ্রীপিস ও ফ্রগ বিক্রির শীর্ষে রয়েছে। ১২’শ থেকে শুরু করে ১২ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে দেশী-বিদেশী বিভিন্ন ব্রান্ডের পাখি ড্রেস। তবে ডিজাইনে নতুনত্ব থাকায় দেশী পাখি ড্রেসের চাহিদাই বেশি।
কিশোরি ও তরুনীদের পোশাক নিয়ে হৈচৈ বেশি হলেও তরুণরাও কেনাকাটায় শরিক হচ্ছেন। ছেলেদের শর্ট পাঞ্জাবির কদর একটু বেশিই দেখা যাচ্ছে এবার। দাম ৭শ থেকে ৩হাজার টাকা পর্যন্ত। ছেলেদের শার্ট-প্যান্ট প্রকারভেদে ৭শ থেকে ৪হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তরুণীদের পাখি ড্রেসের মতোই তরুণ যুবকদের পছন্দের শীর্ষে রয়েছে “অরণ্য” ব্রান্ডের পোষাক। জেন্টাল বয়েস এর সাদ্দাম হোসেন (মন্টু) জানান, তরুণদের পছন্দের শীর্ষে রয়েছে অরণ্য ব্রান্ডের পোষাক। বেচা-বিক্রিও মোটামোটি ভালোই চলছে।
পোষাকের বাইরে জুতো-স্যান্ডেল আর কসমেটিকসের দোকানেও ভিড় কম নয়। সাজগোজে নতুনত্ব আনতে পোষাকের সাথে ম্যাসিং করে তরুণীরা কিনছেন প্রসাধনী সামগ্রী।
সদর ছাড়াও উপজেলার ভোলাইন, বাঙ্গড্ডা, ঢালুয়া, বক্সগঞ্জ, দৌলখাঁড়, জোড্ডা বাজারসহ অন্যান্য বাজারগুলোতেও একই দৃশ্য দেখা যায়।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply