কুমিল্লায় জমে উঠেছে ঈদ বাজার : তরুণীদের পছন্দ পাখি তরুণদের অরন্য

এস.বি.সাইফুল, কুমিল্লা :–

মুসলিম উম্মাহ পবিত্র ঈদুল ফিতর অনুষ্ঠিত হবে ২৯ জুলাই। আর ঈদের কেনা কাটা করতে কুমিল্লার লাকসাম, চৌদ্দগ্রাম, নাঙ্গলকোট, মনোহরগঞ্জ, সদর দক্ষিন, আদর্শ সদর, বুড়িচং, মেঘনা, তিতাস, হোমনা, বরুড়া, দাউদকান্দি, মুরাদনগর, বি-পাড়া, দেবিদ্বার সহ ১৬টি উপজেলায় জমে উঠেছে ঈদ বাজার। বড় বড় বিপণি বিতান থেকে শুরু করে ফুটপাতের দোকানগুলোতেও তরুণ-তরুণীসহ সব বয়সের সব পেশার লোকদের ভিড় বেড়ে গেছে। কুমিল্লার লাকসাম, চৌদ্দগ্রাম ও নাঙ্গলকোট বাজার সহ কুমিল্লা শহরের বেশ কয়েকটি মাকের্ট ও বাজারে রোজার গত ২২দিনে ঘুরে দেখা হয়েছে। এতে অনেক ব্যবসায়ীরা আমাদেরকে জানিয়েছেন এ বছর রমজানের শুরুতেই অথ্যার্ত আগের দিন ২৯ জুন থেকেই বেচাকেনা ধীরে ধীরে শুরু হয়েছে। অন্যদিকে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে কুমিল্লা শহরের অভিজাত বিপণি বিতানগুলোকে সাজানো হয়েছে বাহারি রঙে। অনেক মাকের্ট আর দোকানে ঘোষনা করেছে র‌্যাফেল ড্র’র। অভিজাত বিপণি বিতানগুলো শোভা পাচ্ছে; মেয়েদের পাখি ,আনার কলি, লেহেঙ্গা, পাগলো, শিলা, ছাম্মাক ছালো, ঝিলিক, ফুলকলি, আনারকলি, শিপন, স্কাট টপস, থ্রি পিস, জিন্স প্যান্ট, জামদানি শাড়ি, বেনারশি, কাতান, সিল্ক, জর্জেট জয়পুরি, ছেলেদের নবাবী পাঞ্জাবি, শেরওয়ানি, ফতুয়া, টি-শার্ট, প্যান্ট এবং ছোট ছেলেমেয়েদের জন্য রয়েছে বাহারি ডিজাইনের তৈরি পোশাক। এ ছাড়া তৈরি পোশাকের সঙ্গে জুতা, চুড়ি, কসমেটিক্স ও বিভিন্ন গহণার দোকানগুলোতেও ভিড় চোখে পড়েছে। সেই সঙ্গে টেইলার দোকান গুলোতেও অনেক ভিড় বাড়ছে। সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, লাকসামের চানঁ মিয়া টাওয়ার,মোকছোদ আলী টাওয়ার, খন্দকার মাকেট, চৌদ্দগ্রাম বাজারের গাজী টাওয়ার, আল হাফিজ প¬াজা, আবদুল জলিল শপিং মল, আবদুল গণি মার্কেট, চৌদ্দগ্রাম প¬াজা, সওদাগর মার্কেট, ওহাব সুপার মার্কেট, ভাই ভাই মার্কেটসহ বিভিন্ন মার্কেটে নারী-পুরুষের উপচেপড়া ভিড়। তবে ক্রেতাদের মধ্যে পুরুষের ছেড়ে নারীর সংখ্যাই বেশী লক্ষ্য করা গেছে। চলছে জমজমাট কেনাবেচা। এদিকে তৈরি পোশাক দোকানগুলোতে মেয়ে শিশুদের ফ্রক ফতুয়া, শার্ট, বড়দের আনারকলি, লেহেঙ্গা, পাগলু, শিলা, ছাম্মাকছালো, ঝিলিক, ফুলকলি, শিপন, স্কাট টপস, থ্রি পিস, জিন্স প্যান্টসহ বিভিন্ন নামের বাহারি পোশাক তুলেছেন দোকানিরা। তাছাড়া রয়েছে জামদানি বেনারশি, কাতান, সিল্ক, জর্জেট জয়পুরি শাড়িও। ছেলেদের বাহারি ডিজাইনের শার্ট, অরন্য পাঞ্জাবি ,নবাবী পাঞ্জাবি, শেরওয়ানি, ফতুয়াসহ বেশ কিছু বৈচিত্র এসেছে। পাশাপাশি জুতা, চুড়ি, কসমেটিক্স ও বিভিন্ন গহণার দোকানগুলোতেও রমজানের শুরু থেকেই বেশ চাহিদা রয়েছে ক্রেতাদের কাছে। দোকানিরা জানান, কসমেটিক্স সামগ্রী কেনার দিকে মেয়েদের বেশ আগ্রহ রয়েছে। কেনাবেচাও বেশ ভালো হচ্ছে বলে জানান। এদিকে ফুটপাতের দোকানগুলোতে সমানতালে স্বল্প আয়ের লোকজন কেনাকাটা করছেন। কেনাকাটা করতে আসা সাইফুল ইসলাম টুটুল বলেন, গত বছর গুলোর তুলনায় এ বছর কাপড়ের দাম অনেক বেড়েছে। আমাদের মতো স্বল্প আয়ের লোকদের কাপড় কেনা খুবই কঠিন হয়ে পড়েছে। ব্যবসায়ীরা জানান, বর্তমানে বেচাকেনা ভালোই হচ্ছে। তিনি আশা করছেন বেচাকেনা আরো বাড়বে। দর্জি দোকানগুলোতে টেইলাররা ব্যস্ত সময় পার করছেন। লাকসামের অনতর ফ্যাশন এর মালিক মোহাম্মদ মনির হোসেন ও উষা ফাশনের মালিক নিমাই সাহা বলেন, ঈদে প্রত্যেকটি মানুষই চায় নতুন পোশাক পড়তে। এ বছর রমজানের শুরু থেকেই কাজের চাহিদা বেশ ভালো রয়েছে। তবে পোশাক বানানোর মজুরি তেমন বেশি বাড়েনি। এছাড়া লাকসামের চানঁ মিয়া টাওয়ার,মোকছোদ আলী টাওয়ার, খন্দকার মাকের্ট, নাঙ্গলকোট বাজারের কাজী মাকের্ট, জামান’স মাকের্ট ও বেশ ঈদের কেনাকাটা করতে বেশ ভিড় লক্ষ করা গেছে।অন্যদিকে কুমিল্লা শহরের কান্দিরপাড়,বাদুরতলা,মনোহরপুর,ঝাউতলা,রানীর বাজার,টমছমব্রীজ,চকবাজার,পদুয়ার বাজার বিশ্বরোড, মোগলটুলি,জিলাস্কুল রোড,ভিক্টোরিয়া কলেজ মাধ্যমিক শাখা রোড,কুমিল্লা মহিলা কলেজ রোডসহ সকল দোকান পাট ও আর মাকের্টেই জমে উঠেছে এবারের ঈদবাজার।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply