অর্থনৈতিক দৈন্যতা ভাল ফলাফল অর্জনে বাঁধা নয় এর প্রমাণ মাসুমের জিপিএ-৫ অর্জন

শামীমা সুলতানা, দাউদকান্দি :–
কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি উপজেলার ওয়াজউদ্দিন ফাউন্ডেশন ট্রাষ্ট ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসা থেকে হত দরিদ্র পরিবারের মেধাবী সন্তান মো. মাসুম বিল্লাহ ২০১৪ ইং সালের এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পেয়েছে। সে নেত্রকোণা জেলার কমলাকান্দা উপজেলার হরিপুর গ্রামের আব্দুল মান্নান ও মোসাঃ নূরবানু বেগমের সুযোগ্য জৈষ্ঠ পুত্র। ছোট্টকাল থেকেই তার বাবা-মা অভাবের কারণে তাকে ভালভাবে পড়াশোনার খরচ চালাতে পারেননি। অভাব অনটনের ফলে তার লেখাপড়া প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। মাসুম একসময় তার এক শিক্ষকের সহযোগিতায় কুমিল্লা দাউদকান্দির ওয়াজউদ্দিন ফাউন্ডেশন ট্রাস্ট ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসায় পিয়নের চাকুরির সুযোগ পান। এই বালক অন্য ছাত্রছাত্রীদের দেখাদেখি চাকুরির পাশাপাশি পড়াশোনর সংকল্প করেন। পিয়নের চাকুরী করে ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে নিরলস প্রচেষ্টায় মাসুম এবারের এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে সকলকে অবাক করে দেন। তিনি প্রমাণ করেন যে, অর্থনৈতিক দৈন্যতা মানুষের ভাল ফলাফল অর্জনে বাঁধা হয়ে দাঁড়ায় না বরং কোন কোন সময় তা সহায়তা করে। মাসুম বরাবরই লেখাপড়া শিখে বড় হয়ে একজন সফল মানুষ হওয়ার স্বপ্ন দেখেন। যদিও তার বাবা-মার এমন সাধ্য নেই যে তাকে ভাল কোন কলেজে ভর্তি করাবে। তারপরেও এই স্বপ্ন বুকে নিয়ে মাসুম চলছে মাসুমের মত। বাবা-মা আর ৬ ভাই বোনের সংসারে মাসুম সবার বড়। পরিবারের সদস্যদের ভরনপোষন তাকেই করতে হয়। অভাবের সংসারেও ভাই-বোনদের পড়ালেখা চালিয়ে নিচ্ছেন মাসুম। ছোট বোন আসমা বিবাহীত, রেশমা দশম শ্রেণীর ছাত্রী, ভাই শরীফ এলাকার একটি দোকানে চাকুরী করে, মারুফ ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্র এবং সবার ছোট বোন পান্না দ্বিতীয় শ্রেণীতে পড়ছে। অভাবের সংসার নিয়ে স্বল্প উর্পাজনে লেখাপড়া শিখে বড় হয়ে একজন সফল মানুষ হওয়ার স্বপ্ন দেখেন মাসুম। এমন কি কেউ আছেন সমাজে যিনি মাসুমের পড়াশোনার দায়িত্ব নেবেন, ফুলের সৌরভ ছড়িয়ে দেবেন তার দরিদ্র পরিবার তথা সমাজের মাঝে?

Check Also

দাউদকান্দিতে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

হোসাইন মোহাম্মদ দিদার :কুমিল্লার দাউদকান্দিতে শান্তা বেগম (২৪) নামে এক গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। ...

Leave a Reply