নায়েক মিজানের কুমিল্লার বাড়িতে স্ত্রী-সন্তান ও স্বজনদের আহাজারি, লাশের অপেক্ষায় স্বজনরা

স্টাফ রিপোর্টারঃ–
বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়িতে মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) হাতে নিহত বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের (বিজিবি) নায়েক মিজানুর রহমানের (৪৩) কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার বড়কামতা ইউনিয়নের ভেলানগর গ্রামের বাড়িতে চলছে স্ত্রী-সন্তান ও স্বজনদের আহাজারি।
তার মা রাবিয়া, স্ত্রী শামিমা আক্তার পারুল ও ৪ কন্যা সন্তান ফাতেমা, হালিমা, শিমু এবং ছোট অবুজ সন্তান হাবিবার আহাজারিতে চোখের পানি দরে রাখতে পারছেনা আগত বিভিন্ন এলাকার মানুষেরাও। এ নিয়ে নিহত মিজানের গ্রামের বাড়িতে কুমিল্লার চলছে শোকের মাতম। পরিবারের সদস্যরা শুক্রবার মিজানের নিখোঁজ হওয়ার সংবাদ পায় এবং শনিবার বিভিন্ন গণমাধ্যমে নিহত হওয়ার খবর পায়। শনিবার বিকেলে মিজানের লাশ বিজিবি’র নিকট হস্তান্তরের খবর এলাকায় মুহুর্তের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে মিজানের বাড়িতে শত শত নারী-পুরুষ ভীড় জমায়।
তার বৃদ্ধা মা ও তার স্ত্রী-স্বজনরা এখন অপেক্ষায় রয়েছেন লাশের জন্য। এদিকে মিজানের মৃত্যুর খবর শুনে দেবিদ্বার থেকে নাইক্ষ্যংছড়িতে ছুটে যান তার শ্যালক জালাল উদ্দিন। গতকাল শনিবার সন্ধ্যা মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিজিবি লাশ গ্রহন করেছে, রোববার সকালে নাইক্ষ্যংছড়িতে প্রথম নামাজে জানাযা ও সরকারী আনুষ্ঠানিকতা শেষে বিকালে কুমিল্লার দেবিদ্বারে লাশ আনা হবে।
পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে মিজানুর রহমানের পিতা আবদুল হাফিজ সেনাবাহিনীতে ল্যান্স কর্পোরাল পদে কর্মরত ছিলেন। যুদ্ধে আবদুল হাফিজ শহীদ হন। মিজানুর রহমান ১৯৮৮ সালে চাকুরীতে যোগদান করেন। গত ২ মাস আগে লালমনিরহাট থেকে তাকে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে বদলী করা হয়। তিনি নাইক্ষ্যংছড়ির দোছড়ি ইউনিয়নের পানছড়ির বিজিবি ক্যাম্পে কর্মরত ছিলেন। পরিবারের একমাত্র উপার্জনশীল ব্যক্তিকে হারিয়ে সন্তান ও বৃদ্ধা শ্বাশুড়ীকে নিয়ে মিজানের স্ত্রী শামীমা আক্তার পারুল এখন দিশেহারা।
নিহত মিজানের মা রাবিয়া বলেন, আমার স্বামী ৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধে শহীদ হন আজ আমার ছেলেও দেশের সীমান্ত রক্ষা করতে গিয়ে নিজের জীবন দিল।
স্থানীয় বড়কামতা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হারুন-অর রশীদ জানান, নিহত মিজান ছিল পরিবারটির একমাত্র অবলম্বন, তাই তিনি সরকারিভাবে ওই অসহায় পরিবারের জন্য যথাযথ আর্থিক সহায়তা দাবি করেন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply