মুক্তিযুদ্ধে নজরুলের গান ছিল প্রেরণার উৎস……ইউসুফ হারুন এমপি

মুরাদনগর প্রতিনিধি :–
এফবিসিসিআই’র সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন এমপি বলেছেন, নজরুল দৌলতপুর আসায় এ এলাকাবাসী ভাগ্যবান। তিনি নার্গিসের সাথে প্রেম নিবেদন করে পরিনয় সূত্রে আবদ্ধ হয়েছেন। তার এই স্মৃতি ধন্য কবিতীর্থ দৌলতপুরকে উন্নয়ন করতে হলে সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। তিনি কবিকে মানবতার কবি, প্রেমের কবি, বিদ্রোহী কবি ও জাতীয় কবি উল্লেখ করে বলেন, তার গান, কবিতা, উপন্যাস ও নাটক বাংলা সাহিত্য ভান্ডারকে সমৃদ্ধ করেছে। আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে তার গান ছিল মুক্তিযোদ্ধাদের প্রেরণার উৎস। তিনি নজরুলের সৃষ্টি কর্মের মুল্যায়ন করার জন্য নজরুল প্রেমিক গবেষকদের আহবান জানান। নজরুল ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন। তিনি নারী নীতির উল্লেখ করে বলেন, নর-নারী অংশ গ্রহনের মাধ্যমে দেশ উন্নত হবে নজরুল আমাদেরকে এ শিক্ষা দিয়েছেন। তিনি আরো বলেন ত্রিশালের দরিরামপুরের মতো দৌলতপুরের গুরত্ব অনেক। আগামীতে কুমিল্লায় নয়, জাতীয় পর্যায়ের অনুষ্ঠান দৌলতপুরে হওয়া উচিৎ। কারণ, যৌবনে যিনি এখানে এসে নার্গিসকে বিয়ে করেন। তিনি ক্ষনাজন্মা মহান পুরুষ। যদি এখানে বিয়ে না হতো ধুমকেতুর মতো উদিত হতে পারতো না। তিনি দৌলতপুরবাসীকে নজরুলের স্মৃতি রক্ষার্থে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান। ত্রিশালে কিছুদিন অবস্থান করে যদি বিশ্ববিদ্যালয় হতে পারে তাহলে দৌলতপুরে বিশ্বদ্যিালয়সহ অনেক প্রতিষ্ঠান হতে পারে।
ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন এমপি সোমবার বিকেলে মুরাদনগর উপজেলার কবিতীর্থ দৌলতপুরে ২ দিনব্যাপী জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৫ তম জন্মবার্ষিকীর সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মোঃ তোফাজ্জল হোসেন মিয়ার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সরকার, উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ আব্দুল কাইয়ুম খসরু। বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান খান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সরকার, শ্রীকাইল কলেজের অধ্যাপক শ্যামা প্রসাদ ভট্টাচার্য ও নজরুল পত্মী নার্গিসের ভ্রাতুষ্পুত্র রৌশন আলী মুন্সী। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসকের সহধর্মীনী আফরোজা খান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আব্দুল মতিন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট গোলামুর রহমান, জেলা সংস্কৃতি কর্মকর্তা বশিরুল আনোয়ার, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সানোয়ারা বেগম লুনা, কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মহিউদ্দিন মোশাহেদুল্লাহ, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ম রুহুল আমিন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) জাকির হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবুল কালাম আজাদ, থানার অফিসার ইনচার্জ নাজিম উদ্দিন, নবীপুর পূর্ব ইউপি চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন, বাঙ্গরা পূর্ব ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হাকিম সওদাগর, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা তাপস কুমার সরকার, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সফিউল আলম তালুকদার, আওয়ামীলীগ নেতা স্বপন কুমার সাহা, এডভোকেট আবুল কালাম আজাদ তমাল, আলমগীর কবির, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক খাইরুল আলম সাধন, মুরাদনগর প্রেসক্লাবের সভাপতি হাবিবুর রহমান, নার্গিস বংশের উত্তরসূরী বাবলু আলী খান, কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সৈয়দ রাজিব আহাম্মদ, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবুবকর সবুজ প্রমুখ।
অনুষ্ঠানের শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করেন দৌলতপুর রহমানিয়া আলীম মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা নাইমুর রহমান। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন যুবলীগ নেতা হুমায়ুন কবীর খান। এ ছাড়াও বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষিকা ও ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ এবং উপজেলা স্কাউটসের ৪টি টিম উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা সভা শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সিনিয়র নজরুল সঙ্গীত শিল্পী ইয়াকুব আলী খান ও ফেরদৌস আরা সঙ্গীত পরিবেশন করে অনুষ্ঠানস্থল মাতিয়ে তোলেন। এছাড়াও কুমিল্লা শিল্পকলা একাডেমী ও মুরাদনগর উপজেলার বিভিন্ন সঙ্গীত একাডেমীর শিল্পীবৃন্দ মনমুগ্ধকর সঙ্গীত পরিবেশন করে। এতে প্রায় ৮/১০ হাজার লোকের সমাগম ঘটে।
সভাপতির বক্তব্যে কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মোঃ তোফাজ্জল হোসেন মিয়া বলেন, কবি নজরুল যে কত বড় মনের মানুষ ছিলেন, নজরুল প্রেমী ভক্তবৃন্দ দৌলতপুরে না এলে তা কেউ অনুধাবন করতে পারবেন না। দৌলতপুর আগের চেয়ে অনেক বেশী গ্রহনযোগ্যতা ও স্মৃতিধন্য হয়েছে। ১৯২১ সালের দৌলতপুর আর এখনকার দৌলতপুর অনেক পরিবর্তন হয়েছে। তিনি বলেন, কবি নজরুলের দ্বিতীয় জন্ম মুরাদনগরের দৌলতপুর থেকে শুরু। যখন তিনি যৌবনপ্রাপ্ত হয়ে নিজের ভাব ও চেতনাকে সাধারণ মানুষের সাথে যুক্ত করেছেন। তাঁর পরিপূর্ণ বিকাশ লাভ করেছে মাত্র ২৩ বছর সাহিত্য জীবনে। কবির দ্রোহ, প্রেম, ভালবাসা, ব্যর্থতাসহ সবকিছু নিয়ে দৌলতপুরের প্রেক্ষাপট অনেক গুরুত্বের দাবিদার। নজরুলের মাঝে বাঙালীসত্তা পরিপূর্ণভাবে বিদ্যমান। তাঁর কবিতা, গান ও প্রবন্ধে সেগুলোর সাক্ষর বহন করে। নজরুল তাঁর লেখনীর মাধ্যমে নয়, আন্দোলনের মাধ্যমে অধিকার আদায়ের চেষ্টা করতেন। তিনি পত্রিকায় লেখার কারণে বার বার জেল খেটেছেন। নজরুল বাঙ্গালী ও নারী স্বাধীনতার কথা লিখে গেছেন। তাঁর কলম ছিল দুর্দমনীয়। নজরুল চর্চার মাধ্যমে নবপ্রজন্মের কাছে নজরুলের চেতনা তুলে ধরার জন্য নজরুল গবেষক ও শিক্ষকদের প্রতি আহবান জানান। তিনি দৌলতপুরে নার্গিস-নজরুল বিদ্যা নিকেতনসহ অন্যান্য স্মৃতিগুলো সংরক্ষণের মাধ্যমে আমরা নজরুলের চাওয়া-পাওয়ার মর্যাদা দিতে পারি।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সরকার বলেন, নজরুলের গান, কবিতা সকল অন্যায় অত্যাচারের বিরুদ্ধে মানুষকে জাগ্রত করেছেন। তিনি অবিভক্ত বাংলা কিংবা ভারতের কবি নন, তিনি বিশ্ব কবি। তিনি তার লেখায় বিশ্ব বিবেককে নাড়া দিয়েছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উৎসাহ উদ্দীপনায় তাকে বাংলাদেশে এনে জাতীয় কবি হিসেবে স্বীকৃতি দেন।
উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ আব্দুল কাইয়ুম খসরু বলেন, আমরা নজরুলের স্মৃতিকে ধরে রাখতে হলে কবি নজরুলের নামে প্রস্তাবিত থানা বাস্তবায়ন করতে হবে। নজরুলের স্মৃতিকে চিরস্মরনীয় রাখতে হলে সকলে এগিয়ে আসতে হবে। তিনি নজরুলের চেতনাকে ধারণ ও লালন করে নতুন প্রজন্মকে চর্চা করতে হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান খান বলেন, নজরুলের লেখা কবিতা, গান এবং সাহিত্য বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। নজরুলের অগ্নিঝরা লেখনি শোষিত-বঞ্চিতদের অধিকার আদায়ে আমাদের সোচ্চার করে এবং অন্যায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর শিক্ষা দেয়। অন্যায়ের প্রতিবাদ ও সমাজের কুসংস্কার দূর করতে নজরুল সবসময় তারণ্যের জয়গান গেয়েছেন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply