কুমিল্লা থেকে কিশোর অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায় : ১৪৭ দিন পর গাজীপুরে লাশ শনাক্ত: গ্রেফতার ৪

কুমিল্লা প্রতিনিধি :–
কুমিল্লা থেকে আজিম হোসেন নামের এক কিশোরকে অপহরণ করে নেত্রকোনায় নিয়ে ৪ দফায় ৫০ হাজার ৫শ’ টাকা মুক্তিপণ আদায় করেছে সংঘবদ্ধ আন্ত:জেলা অপহরণকারী চক্র। এ চক্রের প্রধান মনির হোসেনসহ ৪ জনকে গ্রেফতারের পর ১৪৭ দিনের মাথায় গাজীপুরে ওই কিশোরের লাশ শনাক্ত করা হয়। পুলিশ শুক্রবার গ্রেফতারকৃত ৩ জনকে আদালতের মাধ্যমে কুমিল্লা কারাগারে প্রেরণ করে। এ ঘটনার সাথে জড়িত নেত্রকোনার নজরুল ইসলামকে অপর একটি অপহরণ মামলায় জিজ্ঞাসাবাদ করছে নেত্রকোনার আটপাড়া থানা পুলিশ। কিশোর আজিম জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার কাজীপাড়া গ্রামের রবিউল হোসেনের একমাত্র পুত্র।
থানায় দায়েরকৃত মামলার বিবরণ, পুলিশ ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত বছরের ২০ ডিসেম্বর কুমিল্লা মহানগরীর দক্ষিণ চর্থা এলাকার একটি প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বোনের জন্য দুপুরের খাবার নিয়ে আজিম হোসেন বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হয়। পরবর্তীতে তার মোবাইল নম্বরে ফোন করা হলে অপরপ্রান্ত থেকে অপরিচিত ব্যক্তি রিসিভ করে বলে আজিম কিডন্যাপ হয়েছে, তাকে নিতে হলে ৪০ হাজার টাকা নিয়ে দাউদকান্দি ব্রিজে আসতে হবে। এ বিষয়ে গত ১৪ জানুয়ারি অপহৃত আজিম হোসেনের পিতা রবিউল হোসেন সদর দক্ষিণ থানায় জিডি করেন। নিহতের পরিবার জানায়, কাজীপাড়া গ্রামের দুলাল মিয়ার পুত্র দেলোয়ার হোসেনের সাথে দিনাজপুর জেলার ফুলবাড়ি থানার বাসুদেবপুর গ্রামের মৃত মুনছুর আলী শেখের পুত্র আন্ত:জেলা অপহরণকারী চক্রের প্রধান মনির হোসেন প্রকাশ আরবীন শেখ প্রকাশ নীরব পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে কাজীপাড়া গ্রামে এসে অপর আসামি আবদুর রহমানের পুত্র মামুনের বাড়িতে অবস্থান করে। একপর্যায়ে সংঘবদ্ধ অপহরণকারীরা গত বছরের ২০ ডিসেম্বর কিশোর আজিমকে কৌশলে অপহরণ করে চক্রের প্রধান মনিরের শ্বশুর বাড়ি নেত্রকোনা জেলার আটপাড়ায় নিয়ে যায়। সেখান থেকে মোবাইল ফোনে তাকে ফেরত দেয়ার কথা বলে বিভিন্ন সময়ে বিকাশ নম্বরে ৪ দফায় ৫০ হাজার ৫শ’ টাকা নেয়া হয়। এদিকে জিডির সূত্র ধরে র‌্যাব বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে গত সোমবার অপহরণকারীচক্রের মনির হোসেন, মামুন ও তাদের আরেক সহযোগি কাজীপাড়া গ্রামের আবু তাহেরের মেয়ে ফারজানা আক্তারকে আটক করে এবং তাদেরকে আসামি করে পরদিন মঙ্গলবার অপহৃতের পিতা বাদী হয়ে সদর দক্ষিণ থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আক্তার হোসেন গত বুধবার রাতে আসামি মনিরকে নিয়ে নেত্রকোনার আটপাড়ায় গেলে বেরিয়ে আসে আরও চাঞ্চল্যকর তথ্য। মনিরসহ সংঘবদ্ধ অপহরণকারীচক্র আটপাড়া থেকে নেত্রকোনা পলিটেকনিকের ছাত্র আজহারুল ইসলামকেও অপহরণের পর হত্যা করে। আটপাড়া থানায় আজহারুলের পরিবারের দায়েরকৃত অপহরণ মামলারও ৪নং আসামি মনির। পুলিশ মনিরের সহযোগি আটপাড়া থানার জগন্নাথপুর গ্রামের আকু মিয়ার পুত্র নজরুলকে গ্রেফতার করে। আজহারুল হত্যা মামলার আসামি হওয়ায় নজরুলকে আটপাড়া থানায় রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। গ্রেফতারকৃত মনির ও নজরুল জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানায়, অপহরণের পর নেত্রকোনা থেকে গাজীপুর জেলার জয়দেবপুরের নলজানীয়া গ্রামের শাহীন মিয়ার ভাড়া বাসায় শ্বাসরোধ করে আজিমকে হত্যার পর লাশ গাজীপুর চৌরাস্তার পাশে ফেলে দেয়া হয়। পরে জয়দেবপুর থানা পুলিশ লাশটি উদ্ধারের পর ছবি তোলে রেখে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করে এবং গত বছরের ২২ ডিসেম্বর অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করে। গ্রেফতারকৃত আসামি ও নিহতের পরিবার জয়দেবপুর থানায় সংরক্ষিত আজিমের লাশ ছবি দেখে শনাক্ত করে। সদর দক্ষিণ থানার ওসি প্রশান্ত পাল জানান, গ্রেফতারকৃত মনির সংঘবদ্ধ আন্ত:জেলা অপহরণকারীচক্রের গ্যাং লিডার। দিনাজপুর, নেত্রকোনা, গাজীপুর, কুমিল্লাসহ বিভিন্ন জেলায় সে অপহরণসহ মাদক ও ইয়াবা ব্যবসা পরিচালনা করে। গতকাল শুক্রবার পুলিশ এ চক্রের ৩ জনকে থানায় জিজ্ঞাসাবাদ শেষে দুপুরে আদালতে সোপর্দ করে। এদিকে অপহরণের পর এ হত্যাকান্ডের খবরে নিহত কিশোর আজিমের হতদরিদ্র পরিবারে চলছে শোকের মাতম। একমাত্র পুত্রসন্তানকে হারিয়ে রিক্শাচালক বাবা রবিউল ও মা ফাতেমা বেগমসহ স্বজনদের আহাজারীতে এলাকার পরিবেশ ভারী হয়ে উঠে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে ওই বাড়িতে গেলে সাংবাদিক পরিচয় জেনে হাউমাউ করে কেঁদে হতদরিদ্র রবিউল জানান, আমার ছেলেকে অপহরণের ২/৩ দিন পরই পাষন্ডরা খুন করে ফেলে। এরপরও মোবাইল ফোনে মুক্তিপণ দাবি করলে বুকের ধন পুত্রকে ফিরে পাওয়ার আশায় সহায়-সম্বল বিক্রিসহ প্রতিবেশীদের কাছ থেকে দান-খয়রাত সংগ্রহ করে ৪ দফায় ৫০ হাজার ৫শ’ টাকা মোবাইল বিকাশের মাধ্যমে পাঠিয়েছি। পুত্রের লাশও পেলাম না। এখন আমার আর কিছুই নেই। আমি তাদের ফাঁসি চাই।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply