কালিকাপুর আব্দুল মতিন খসরু ডিগ্রী কলেজ : মনোরম পরিবেশে পাঠদান দিয়ে শিক্ষিত মানুষ গড়ে তুলছে

মোঃ ইমরান হোসেন, বুড়িচং :–
কুমিল্লা শিক্ষা বোডের অধিনে কালিকাপুর আব্দুল মতিন খসরু ডিগ্রী কলেজটি মনোরম পরিবেশে পাঠদান দিয়ে শিক্ষিত, মার্জিত, নম্র, ভদ্র করে ছাত্র/ছাত্রী গড়ে তুলছে। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা কুমিল্লা সেরা  ২০টি কলেজের মধ্যে স্থান দখল  করে রেখেছে এই কলেজটি। এই কলেজে পড়া লেখা করে আজ অনেক ছাত্র দেশের বিভিন্ন বিশ্ব বিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া সাফল্য অর্জন করেছে।
কলেজটি সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, কুমিল্লা জেলা অতি নিকটবর্তী উপজেলা এবং ঢাকা-চট্রগ্রাম -সিলেট মহাসড়ক ও রেল পথের একটি বিশাল অংশ বিশেষ । সীমান্ত ঘেঁষা সম্ভবনাময়ী এই বুড়িচং উপজেলার বাকশীমূল ইউনিয়ের মধ্যে কালিকাপুর আব্দুল মতিন খসরু ডিগ্রী কলেজটি অবস্থিত। বুড়িচং উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ সাজ্জাদ হোসেন কালিকাপুর আব্দুল মতিন খসরু ডিগ্রী কলেজটি ১৯৯৭ সালে স্থাপিত করেন। ১৯৯৭ সালে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেনীর ১ম অনুমোদন করলে এমপিও ভুক্তি করা হয় ১৯৯৯ সালে। এই কলেজটি ৩.৮৫একর জমি নিয়ে তৈরী করা হয়েছে। এই কলেজে প্রায় ১১শত শিক্ষার্থী আছে। কালিকাপুর আব্দুল মতিন খসরু ডিগ্রী কলেজে অভিজ্ঞ ও মেধাবী ৩৪জন শিক্ষকমন্ডলী আছে। যাদের প্রচেষ্টা আজ কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডে ১৬তম স্থান অর্জন করেছে। কালিকাপুর আব্দুল মতিন খসরু ডিগ্রী কলেজে ছাত্র/ছাত্রীদের জন্য কমন রুমসহ আরো আছে বিজ্ঞানাগার ৭টি, নামাজ কক্ষ ২টি, খেলার মাঠ ১টি, ১শত শয্যা ১টি ছাত্রবাস, শ্রেনী কক্ষ ২২টি। আর শিক্ষকদের জন্য রয়েছে অফিস কক্ষ ২টি, শিক্ষক মিলনায়তন ১টি। কালিকাপুর আব্দুল মতিন খসরু ডিগ্রী কলেজে মোট ১৪টি কম্পিউটার আছে। কলেজের মধ্যে একটি পাঠাগার আছে। এই পাঠাগারে প্রায় ৩ হাজার এর অধিক পুস্তক রয়েছে। যা শিক্ষার্থীদের লেখা পড়া দিকে আগ্রহী করে তুলে।
কালিকাপুর আব্দুল মতিন খসরু ডিগ্রী কলেজটি ২০০৬ সালে কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডে ৯ম, ২০০৭ সালে ৪র্থ, ২০০৮ সালে ৪র্থ, ২০১২ সালে ১৬তম স্থান অর্জন করে বুড়িচং উপজেলা সেরা কলেজে নাম করন করেছে।
কালিকাপুর আব্দুল মতিন খসরু ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মোঃ মফিজুল ইসলাম জানায়, প্রতিষ্ঠার পর থেকে আমরা প্রতিনিয়ত ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। আমরা প্রতি বৎসর ভাল ফলাফল অর্জন করেছি। এই সাফল্যের পেছনে রয়েছে অভিজ্ঞ ও মেধাবী শিক্ষকমন্ডলী পরিশ্রম। যারা শিক্ষার্থীদের লক্ষ্যে পৌছার জন্য দিন রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। ফলশ্র“তি হিসেবে প্রতি বছর শিক্ষার্থীগন বিভিন্ন বিশ্ব বিদ্যালয়ে অধ্যয়নের সুযোগ গ্রহন করছে।

কলেজের ছাত্র/ছাত্রীদের আলাপকালে শিক্ষার্থীগন জানায়, আমাদের কলেজে নিয়মিত পাঠদান দিয়ে আসছে অভিজ্ঞ শিক্ষক শিক্ষিকা দ্বারা। শিক্ষকগন আমাদের পরিকল্পনামাফিক পাঠ দান দিয়ে থাকেন। এই কলেজের ভালো ফলাফলের পেছনে রয়েছে গাইড শিক্ষকের অবদান । ১০জন শিক্ষার্থীর জন্য একজন গাইড শিক্ষক নিয়োগ করা হয়, যাতে শিক্ষার্থীগন সার্বিক মান উন্নয়ন করতে পারে। প্রতিষ্ঠাকাল থেকে কালিকাপুর আব্দুল মতিন খসরু ডিগ্রী কলেজ শিক্ষার্থীদের মেধার পরিপূর্ণ বিকাশ  ঘটানো, তাদেরকে বর্তমান যুগোপযোগী করে গড়ে তোলার জন্য কলেজের মধ্যে  নিয়মিত সভা, সেমিনার ও  প্রতিযোগিতার আয়োজন করে থাকে। সীমন্তবর্তী হয়েও জেলা নামি দামি কলেজের সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে এই কলেজের লেখাপড়া। এই কলেজটি রাজনৈতিক মুক্ত হওয়া উপজেলা অন্যান্য কলেজের তুলনা পড়া লেখার মানও এগিয়ে যাচ্ছে। শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর মাঝে আন্তরিক সর্ম্পক রয়েছে। এই আন্তরিক সর্ম্পকের কারণে পাঠদান করতে সহজ হয়। ছাত্র/ছাত্রীদের সুশিক্ষা শিক্ষিত করতে অক্লান্তপরিশ্রম করে যাচ্ছে শিক্ষকগন।

এই কলেজের ভালো ফলাফল হওয়ার পেছনে রয়েছে অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মোঃ মফিজুল ইসলাম, উপাধ্যক্ষ মোঃ জামাল হোসেন সহ কলেজের প্রতিটি শিক্ষক/শিক্ষিকার অক্লান্ত প্রচেষ্টা। সব মিলিয়ে কালিকাপুর আব্দুল মতিন খসরু ডিগ্রী কলেজটি অত্যন্ত সমৃদ্ধশীল একটি কলেজ হিসেবে কুমিল্লা বোর্ডে পরিচিত।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply