লাকসামের বিএনপির শীর্ষ দু’নেতা জীবিত না মৃত? উদ্বারের দাবী, র‌্যাব-১১ কে দায়ী করলেন পরিবারবর্গ

লাকসাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি:–
লাকসাম উপজেলা বিএনপি সভাপতি সাবেক এমপি আলহাজ্ব সাইফুল ইসলাম হিরু ও লাকসাম পৌরসভা বিএনপি সভাপতি আলহাজ্ব হুমায়ন কবির পারভেজ জীবিত না মৃত? সাড়ে ৫মাসেও হদিস নেই। হিরু হুমায়ুন পরিবার বর্গ ও বিএনপি নেতাকর্মীদের দাবী গত ২৭ নভেম্বর বুধবার রাত সাড়ে ৯ টায় লাকসামের পাশ্ববর্তী সদর দক্ষিণ উপজেলার আলিশ্বর নামক স্থান থেকে এম্বুলেন্স যোগে ঢাকা যাবার পথে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে সাদা পোশাকদারী লোকজন তাদের আটক করে নিয়ে যায়। কিন্তু তাদের আটকের বিষয়ে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি ও ডিবিসহ কোন সংস্থাই কিছুই জানেনা এবং আটকের বিষয়টি এ পর্যন্ত স্বীকার করছেন না। এ নিয়ে হিরু হুমায়ুন পরিবারবর্গ ও  লাকসাম বিএনপি নেতাকর্মীদের মাঝে চরম ক্ষোভ, আতঙ্ক ও উৎকন্ঠা  বিরাজ করছে। তারা মৃত না জীবিত পরিবারের কেউই জানেনা। তাদের দুপরিবারের সদস্যরা জীবিত উদ্বার চান এবং মৃত হলেও লাশ ফেরত চান। হুমায়ুন কবির পারভেজের স্ত্রী শাহনাজ আক্তার ও পরিবারের সদস্যরা সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন র‌্যাব-১১ সাবেক সিও লে.কর্ণেল তারেক সাঈদ মাহমুদের নেতৃত্বে গত ২৭ নভেম্বর বুধবার রাত সাড়ে ৯ টায় ঢাকা লাকসাম আঞ্চলিক মহাসড়কের লাকসামের পাশ্ববর্তী সদর দক্ষিণ উপজেলার আলিশ্বর নামক স্থান থেকে লাকসাম ফেয়ার হেল্থ হসপিটালের এম্বুলেন্সযোগে যাবার পথে তাদের আটক করে নিয়ে যায়। এসময় এম্বুলেন্সে লাকসাম উপজেলা বিএনপি সভাপতি সাবেক এমপি আলহাজ্ব সাইফুল ইসলাম হিরু ও লাকসাম পৌরসভা বিএনপি সভাপতি আলহাজ্ব হুমায়ন কবির পারভেজ ও পৌরসভা বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন ছিলেন। পরে এম্বুলেন্স চালক সাদেক তার গাড়ি নিয়ে লাকসাম ফিরে আসে। পরে সদর দক্ষিন উপজেলার পদুয়ার বাজার বিশ্বরোডে অন্য একটি গাড়িতে পৌরসভা বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিনকে তুলে দিয়ে হিরু ও হুমায়নকে নিয়ে চলে যায়। রাতেই লাকসাম থানায় জসিমসহ আরো লাকসামের ১০ জনকে র‌্যাব-১১ সহকারী পরিচালক শাহজাহান আলীর নেতৃত্বে হস্তান্তর করে। হিরু-হুমায়ন পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করে আরো বলেন র‌্যাব-১১ সাবেক সিও লে. কর্ণেল তারেক সাঈদ মাহমুদের নেতৃত্বে র‌্যাবই হিরু হুমায়ুনকে গুম করেছে। র‌্যাব নেওয়ার পর থেকে অদ্যবধি পর্যন্ত তাদের সাড়ে ৫মাসেও হদিস নেই। তারা কি মৃত না জীবিত? তাদের জীবিত চান পরিবারের সদস্যরা এবং মৃত হলেও লাশ ফেরত চান। বর্তমানে লাকসামের শীর্ষ দু’বিএনপির নেতার পরিবারে চরম আতঙ্ক ও ক্ষোভ বিরাজ করছে। দু’নেতাকে ফিরে পাওয়ার জন্য পরিবারের সদস্যরা হরতাল পালন, সাংবাদিক সম্মেলন, মানববন্ধন, বিক্ষোভ করেছেন। গত বুধবার রাতে সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য দেন নিখোজ হুমায়নের স্ত্রী শাহনাজ আক্তার এসময় হুমায়ুনের বড় ছেলে শাহরিয়ার কবির, মেয়ে মায়মুনা জাহান ঈশিকা, জান্নাতুল ফেরদৌস মাঈশা, হুমায়ুনের মাতা রাজিয়া বেগম, পৌর সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম খোকন, উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শাহআলম, বিএনপি নেতা রমেন্দ্র ভুট্টাচার্য্য প্রমুখ ছিলেন। নিখোজ হুমায়ুনের ছোট ভাই গোলাম ফারুক তার বড় ভাইয়ের সন্ধানে র‌্যাবসহ বিভিন্নস্থানে ধর্ণা দিচ্ছেন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply