অপহরণের ২৯দিনেও উদ্ধার হয়নি যুবলীগ নেতা শাওন : জীবিত ফেরত পেতে স্ত্রী-সন্তানের কান্না স্বজন ও এলাকাবাসীর মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার :–
অপহরণের ২৯ দিনেও উদ্ধার হয়নি কুমিল্লার যুবলীগ নেতা শাওন। জীবিত ফেরত পেতে এখনো কান্নায় জর্জরিত স্বজনরা । পথ চেয়ে আছে এখনো বাবার জন্য ছোট্ট শিশু  রাইসা।  রোববার কুমিল্লা মহানগরীর টাউন হলের সামনে স্ত্রী-সন্তান সহ এলাকাবাসী মানবন্ধন করে।
র‌্যাবের অভিযানে গত ২৯ মার্চ ভোরে যুবলীগ নেতা শাওন কে তার বাসা থেকে অপহরণ করে। তার সাথে বিভিন্ন এলাকা থেকে আরো ৬ জন কে আটক করে র‌্যাব ১১। এ ঘটনায় গত ৩১ মার্চ কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানায় শাওনের স্ত্রী ফারজানা আক্তার মুন্নী বাদী হয়ে একটি সাধারণ ডায়রি করেন।
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও মহানগর যুবলীগ নেতা রকিবুল ইসলাম শাওন। পরিবারে ৪ ভাই এবং এক বোনের মধ্যে সে দ্বিতীয়। ২০০৯ সালের ২৫ মে জেলার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মহালক্ষ্মীপাড়া গ্রামের ওয়ারেন্ট অফিসার (অব.) মো. নুরুল ইসলামের মেয়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজে সমাজকর্ম বিভাগে ফারজানা আক্তার মুন্নীর সঙ্গে সে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়। তাসনুভা নুর রাইসা (৩) নামে তাদের একমাত্র মেয়ে রয়েছে।
স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, র‌্যাবের হাতে আটক জনৈক আনোয়ারকে দিয়ে মোবাইলের মাধ্যমে শাওনের বাসায় অবস্থানের বিষয়টি নিশ্চিত হয়। পরে র‌্যাব-এর পরিচয়ে ২ জন গেঞ্জি ও প্যান্ট পরিহিত অস্ত্রসহ আরও ১৫/২০ জন কালো পোশাক পরিহিত ও সাদা পোশাকধারী একটি দল শাওনের বাড়ির চারদিক ঘেরাও করে। এ সময় ঘরের দরজায় র‌্যাব’র সদস্যরা ধাক্কা দিলে শাওনের বাবা আবদুল মতিন ঘুম থেকে ওঠে দরজা খুলে পরিচয় জানতে চান। এ সময় কালো পোশাকধারী র‌্যাব পরিবারের সদস্যরা তাকে ধাক্কা দিয়ে ঘরে প্রবেশ করে বিভিন্ন কক্ষে ব্যাপক তল্লাশি চালিয়ে শাওনকে ঘুমন্ত অবস্থায় টেনেহিঁচড়ে শাওনকে নিয়ে গাড়িতে তুলে।
এ সময় তার স্ত্রী ফারজানা তাকে নেয়ার কারণ জানতে চাইলে তাকে হাতুরি দিয়ে মাথায় আঘাত করে এবং শাওনের বাবা-মাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। তারা শাওনকে নিয়ে একটি এক্সজিএল মাইক্রো এবং র‌্যাবেরই দুটি গাড়ি বিষ্ণুপুরের দিকে চলে যায়। বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক সেনা সার্জেন্ট এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজকীয় বাহিনীর দেহরক্ষী কাজী আবদুল মতিনের স্ত্রী ও অপহৃত যুবলীগ নেতা রকিবুল ইসলাম শাওনের মা আনোয়ারা বেগম এর আদরের সন্তান শাওন।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়,
শাওনের সন্ধান দাবিতে র‌্যাব ও পুলিশের নিকট একাধিকবার দ্বারস্থ হয়ে কোন খোঁজখবর না পেয়ে তার বাবা সাবেক সেনা কর্মকর্তা কাজী আবদুল মতিন লিখিতভাবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, আইজিপি, র‌্যাব-১১ হেডকোয়ার্টার, ডিজিএফআই হেড কোয়ার্টার, র‌্যাব-১১ হেডকোয়ার্টার, কুমিল্লা পুলিশ সুপার ও পরিদর্শক ডিএসবি (ওয়াচ)-এর কাছে অভিযোগ করেন। অপহৃত শাওনের স্ত্রী ফারজানা আক্তার মুন্নী কান্নাজড়িত কণ্ঠে জানায়, ‘আমার স্বামী অপহরণের পর থেকে আমাদের একমাত্র মেয়ে রাইসা তার বাবার পথ চেয়ে বসে আছে। গত বছর নববর্ষের দিন শাওন মেয়ের জন্য দোকান থেকে বিভিন্ন খেলনা নিয়ে এসেছিল। এবার সে তার বাবাকে না পেয়ে বাসায় কান্না করছে। আর বলছে আমার বাবাকে কারা আটকে রেখেছে। মা তুমি তাদের বল বাবাকে ছেড়ে দিতে। তবে এ বিষয়ে র‌্যাব-১১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক জানান, ‘শাওনের পরিবারের পক্ষ থেকে র‌্যাব-১১কে জড়িয়ে যে অভিযোগ করা হয়েছে তার সঙ্গে র‌্যাব-১১ এর কোন সম্পৃক্ততা নেই।’

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply