দেবিদ্বারে চাঞ্চল্যকর গৃহবধূ শাহিনা হত্যা কান্ডের ঘাতক করিম এর প্রধান সহযোগি ইজ্জত আলী গ্রেফতার

মোঃ জামাল উদ্দিন দুলাল, দেবিদ্বার :–
কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ছেঁচরাপুকুরিয়া চাঞ্চল্যকর গৃহবধূ শাহিনার হত্যার প্রধান আসামী আব্দুল করিম এর সহযোগি ইজ্জত আলী (২৭)কে গ্রেফতার  করেছে  দেবিদ্বার থানা পুলিশ।
শনিবার দুপুর দেড়টায় চট্টগ্রাম জেলার আনোয়ারা উপজেলার বরকল এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ঘাতক ইজ্জত আলী কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ছেঁচরাপুকুরিয়া গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলীর ছেলে।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা (এস.আই) শাহ্ কামাল আখন্দ জানান, ‘দেবিদ্বার উপজেলার ছেচরাপুকুরিয়া গ্রামের গৃহবধূ শাহিনাকে হত্যার করে গভীর নলকূপের পাইপের ফেলে দেওয়ার সাথে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ছিল ইজ্জত আলী। বাদী পক্ষের অভিযোগ ও গ্রেফতারকৃত প্রধান আসামী আব্দুল করিম এর স্বীকারোক্তি মোতাবেক তাকে গ্রেফতার করতে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করা হয়েছে’।
তদন্ত কর্মকর্তা আরও জানান, ‘ইজ্জত আলী চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার বরকল এলাকায় নির্মাণ শ্রমিকের কাজ করছিলেন। মোবাইল ট্র্যাকিং এর মাধ্যমে তার অবস্থান সনাক্ত করে আমরাও সেখানে নির্মাণ শ্রমিকের কাজ করার ভান করে যাই এবং তাকে সনাক্ত করে আটক করি। তাকে আটক করার পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে খুনের কথা স্বীকার করে।
উল্লেখ্য ভাবে জানাযায়, প্রায় ১৫বছর পূর্বে উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের তুলাগাঁও গ্রামের মোঃ কেরামত আলী সরকারের মেয়ে সাহিনা আক্তার(৩৫)’র সাথে একই ইউনিয়নের ছেচড়াপুকুরিয়া গ্রামের মোঃ দুধমিয়া’র পুত্র (বর্তমানে আবুধাবী প্রবাসী) মোঃ মোবারক হোসেন (৪০)’র সাথে বিয়ে হয়। দাম্পত্য জীবনে তাদের ২ ছেলে ও ১ মেয়ে রয়েছে।
গত প্রায় ২ বছর পূর্বে মোবারক হোসেন ছুটিতে বিদেশ থেকে দেশে আসার পর তাদের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে দাম্পত্য কলহ সৃষ্টি হলে মোবারক হোসেন ও তার পরিবারের সদস্যরা শাহিনা আক্তারের উপর নির্মম নির্যাতন চালায়। প্রায় ৩/৪ মাস ছুটি শেষে মোবারক হোসেন বিদেশে চলে যাওয়ার পরও মোবারক হোসেন এর পরিবার শাহিনাকে শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন চালিয়েছিল। এক পর্যায়ে আমার বোন বাদি হয়ে তাদের বিরুদ্ধে দেবিদ্বার থানায় নারী নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে মোবারক হোসেন বিদেশ থেকে মোবাইল ফোনে এবং তার পরিবারের সদস্যরা মামলা তুলে নেওয়ার জন্য আমার বোনের উপর চাপ সৃষ্টি করার পরও শাহিনা মামলা তুলে না নেওয়ায় স্বামী মোবারক হোসেন দুই লক্ষ টাকায় ভাড়াটে খুনী দিয়ে স্ত্রীকে হত্যা করে।
গত ৭ ফেব্রুয়ারী রাতে শাহিনাকে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে ভাড়াটে খুনি আব্দুল করিমসহ আরও কয়েকজন শ্বাসরূদ্ধ করে শাহিনাকে হত্যা করে পরিত্যক্ত ডিপটিউবওয়েলের পাইপে ফেলে গুম করে রাখে। পুলিশ মোবাইল ফোনের কল লিস্টেও মাধ্যমে সন্দেহভাজন ভাবে খুনি আব্দুল করিমকে আটক করতে লোমহর্ষক ও চাঞ্চল্যকর এ হত্যার তথ্য বেরিয়ে আসে। টানা ৭ দিন উদ্ধার অভিযান শেষে গভীর নলকূপের ৬৫ ফুট নিচ থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply