চকরিয়ার মতো কুমিল্লায়ও হতে পারে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে গোলাপ ফুলের চাষ

নিজস্ব প্রতিনিধি :–
কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ ওমর ফারুকের নেতৃত্বে আমরা চারজন গিয়েছিলাম কক্সবাজার জেলার চকরিয়া উপজেলার বরইতলী ইউনিয়নে। উদ্দেশ্য গোলাপ চাষ সম্পর্কে ধারণা গ্রহণ করা ও তার সৌন্দর্য দেখা। পহেলা বৈশাখের আগের দিন নববর্ষকে কেন্দ্র করে গোলাপ ফুলসহ নানা রকমের প্রচুর ফুল বিক্রি হয়েছে। বিশেষ এই দিনে ফুলের ব্যাপক চাহিদা থাকায় বর্ষবরণের আগে সেখানকার বাগান গুলিতে চলে ফুল কাটার মহোৎসব। নববর্ষ উপলক্ষে স্থানীয় ২ শতাধিক বাগান থেকে প্রায় দেড় লাখ পিস গোলাপ বিক্রী হয়েছে।
স্থানীয় এক বাগান মালিক আনসারুল ইসলাম বলেন, তিনি এ বছর চার কানি (প্রায় দেড় একর) জমিতে গোলাপ চাষ করেছেন তিনি বলেন, বৈশাখী উৎসবে গ্ল্যাডিওলাস ফুলের চাহিদা থাকলেও অফ-সিজনের কারণে বেশীর ভাগ বাগানে এখনো এই ফুল ফোটেনি।
বরইতলী ফুল বাগান মালিক সমিতির নেতা মঈনুল ইসলাম বলেন, বরইতলী ইউনিয়নে ২ শতাধিক ফুল চাষি রয়েছেন। এদের মধ্যে শতাধিক চাষী  ৪-৫ কানি (দুই একর) জমিতে ও অন্যরা অল্প পরিমাণ জমিতে ফুল চাষ করেন।  তিনি বলেন, গত দুই দশক ধরে এখানকার চাষীরা রুটি রুজির একমাত্র অবলম্বন হিসেবে ফুল চাষেই ঝুঁকে পড়েছেন। বর্তমানে ইউনিয়নে প্রায় দুইশত একর জমিতে হচ্ছে ফুলের চাষ। হিসেব মতে, স্থানীয় চাষিরা ফুল বিক্রী করে বছরে প্রায় ১০ কোটি টাকা আয় করছেন।
দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এমনিতেই ফুলের ব্যাপক কদর রয়েছে জাতীয় দিবসগুলিতে। এর মধ্যে ২১ শে ফেব্রুয়ারি, ১লা বৈশাখ, থার্টি ফাস্ট নাইট, ডেলেন্টাইনস ডে ইত্যাদি অন্যতম।
আমাদের কুমিল্লাতেও আছে ফুলের বেশ কদর ও চাহিদা। আমাদের ধারণা কুমিল্লাও হতে পারে ফুল চাষের জন্য একটি অনন্য জেলা।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply