মসজিদে নামাজ পড়তে না দেয়ার অপমানে মুক্তিযোদ্ধার আত্মহত্যা

মুরাদনগর প্রতিনিধি:–

কুমিল্লার মুরাদনগরে এক মুক্তিযোদ্ধাকে লাঞ্চিত করে মসজিদ থেকে বের করে দেওয়ার অপমানে ওই মুক্তিযোদ্ধা বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন বলে তার পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়। এ ঘটনায় নিহত মুক্তিযোদ্ধা কাজী আবুল হোসেনের (৬৫)  ছেলে বিল্লাল হোসেন বাদী হয়ে মুরাদনগর থানায় সোমবার দুপুরে ওই মসজিদ কমিটির কোষাধ্যক্ষসহ ৫জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। নিহত মুক্তিযোদ্ধা কাজী আবুল হোসেন মুরাদনগর উপজেলার খুরুইল গ্রামের মৃত কাজী ইব্রাহিম খলিলের ছেলে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত শনিবার মুক্তিযোদ্ধা কাজী আবুল হোসেনের নিজ বাড়ির পাশের জমি থেকে খুরুইল উত্তর পাড়া বায়তুল আমান জামে মসজিদ ও মাদ্রাসা কমিটির লোকজন জোরপূর্বক মাটি কেটে নিয়ে গেলে তিনি তাতে বাঁধা দেন। এর প্রতিকার চেয়ে ওই দিনই তিনি মুরাদনগর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। পুলিশ ঘটনাস্থল এসে সত্যতা পেয়ে মসজিদ ও মাদ্রাসা কমিটিকে মাটি কাটা বন্ধ করার নির্দেশ দিয়ে মসজিদ ও মাদ্রাসা কমিটিকে এ নিয়ে এলাকায় শালিস করে তা মিমাংশা করার জন্য বলে। মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন রোববার বিকেলে আসর নামাজ পড়তে ওই মসজিদ গেলে মসজিদ কমিটির কোষাধ্যক্ষ মনির হোসেন, মহসিন, নোমান, রহিম ও মনির মিয়া মুক্তিযোদ্ধাকে নামাজ পড়তে না দিয়ে অপমান করে মসজিদ থেকে বের করে দেয়। তাদের এ অপমান সহ্য করতে না পেরে রোববার বিকেলে তিনি বিষপান করেন। তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।
নিহত মুক্তিযোদ্ধার ছেলে মোঃ বিল্লাল হোসেন বলেন, আমাদের জায়গায় মাটি কাটায় বাঁধা দেওয়ায় বাবাকে নামাজ পড়তে না দিয়ে অপমান করে মসজিদ থেকে বের করে দেয়। বাড়িতে এসে বাবা মায়ের সাথে দুঃখ করে বলেছেন, অপমান করে আমাকে মসজিদ থেকে বের করে দিল, আমার এ জীবন রেখে লাভ কি? এরপরই সবার অলক্ষ্যে বিষপানে আত্মহত্যা করেন।
মুরাদনগর থানার ওসি নাজিম উদ্দিন বলেন, যারা মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেনকে অত্মহত্যার জন্য প্ররোচনা দিয়েছে তাদেরকে ধরার জন্য আমাদের অভিযান চলছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply