কুমিল্লার ৬ উপজেলার নির্বাচন:কেন্দ্র দখল, ব্যালট বাক্স-পেপার ছিনতাই-ভাংচুরের অভিযোগ, ৬ কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত

কুমিল্লা প্রতিনিধি:–
কেন্দ্র দখল, ব্যালট বাক্স-পেপার ছিনতাই-ভাংচুরসহ ভোট জালিয়াতির অভিযোগে কুমিল্লা জেলার নাঙ্গলকোটে ৩টি, চৌদ্দগ্রামে ২টি ও তিতাসে ১টিসহ ৬ কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। এছাড়াও শনিবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে চৌদ্দগ্রাম ও নাঙ্গলকোট উপজেলায় ভোট বর্জনসহ ফলাফল স্থগিতের দাবিতে ওই দুই উপজেলায় ১৯ দলীয় জোট রোববার অর্ধদিবস হরতাল আহবান করেছে। ব্রাহ্মণপাড়া, চৌদ্দগ্রাম, বুড়িচং,নাঙ্গলকোট ও তিতাস উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্রে ব্যালট বাক্স-পেপার ছিনতাই-ভাংচুর, সাংবাদিক লাঞ্ছিত, পুলিশের গাড়িতে আগুন, এজেন্ট বের করে দেয়া, সংঘর্ষ, গুলি, ধাওয়া- পাল্টা ধাওয়া ও বাড়ি-ঘরে হামলার ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনায় পুলিশ ১২ জনকে আটক এবং ভ্রাম্যমান আদালত নির্বাচনী বিধি লংঘনের দায়ে ৫ জনকে ৬ মাস করে সাজা প্রদান করে। স্থগিত হওয়া কেন্দ্র গুলি হচ্ছে, চৌদ্দগ্রাম উপজেলার নারায়ণপুর ও ফালগুনকরা, নাঙ্গলকোট উপজেলার পরিকোট, মাহিনী ও সিজিয়ারা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র এবং তিতাস কালা গোবিন্দপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র।

সরেজমিন ঘুরে ও বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, শনিবার ভোটগ্রহণ চলাকালে জেলার বুড়িচং উপজেলার শিবরামপুর, রামপুর, শাহদৌলতপুর, বাকশীমুল, চড়ানল, খাড়াতাইয়া, পশ্চিমসিং কেন্দ্রে প্রতিদ্বন্দ্বি চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। রামপুর কেন্দ্রে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ১০ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে। এসময় ভ্রাম্যমান আদালতের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাজ্জাদ হোসেন নির্বাচনী আচরণবিধি লংঘনের দায়ে শহিদ, হাবিব, নাজমুল, রবিউল ও সাকিব নামের ৫ জনকে ৬ মাস করে সাজা প্রদান করেছে।

ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার গোলাবাড়িয়া ও মহালক্ষ্মীপাড়া কেন্দ্রে ব্যালট বাক্স ভাংচুর ও পেপার ছিনতাইয়ের ঘটনায় ওই ২টি কেন্দ্রে প্রায় ২ ঘন্টা ভোটগ্রহণ স্থগিত রাখা হয়। গোলাবাড়িয়া কেন্দ্র থেকে পুলিশ শাহাদাত, রুবেল মিয়া, আলম, রুবেল নামে ৪ জনকে আটক করে।

চৌদ্দগ্রাম উপজেলার নানকড়া কেন্দ্রে সকাল ১০টার দিকে বিএনপি-জামায়াত শিবিরের নেতা-কর্মীরা হামলা-গুলিবর্ষন ও ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ৩টি বুথ থেকে ৩টি ব্যালট বাক্স ছিনিয়ে নিয়ে ভাংচুর করে। এসময় পুলিশ ৩২ রাউন্ড গুলিবর্ষন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। হামলায় কাজী রাজীব (২২), সোহেল (৩৫) ও রুবেল (২৫)সহ ৩ জন আহত হয়। এ ঘটনায় পুলিশ ৩ জনকে আটক করে। এতে প্রায় আধাঘন্টা ওই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ বন্ধ থাকে। এছাড়া চৌদ্দগ্রাম বালিকা বিদ্যালয় ও অশ্বদিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে পৃথক ঘটনায় ৩ সাংবাদিক লাঞ্ছিত হয়েছেন। ভোট চলাকালে আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটায় উপজেলার নারায়ণপুর ও ফাল্গুনকড়াসহ ২টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। এ উপজেলার এদিকে কেন্দ্র দখল ও জালভোটের প্রতিবাদে দুপুর সাড়ে ১২টায় উপজেলা বিএনপি কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে ১৯ দলীয় জোটের চেয়ারম্যান প্রার্থী কামরুল হুদা ভোটগ্রহণ স্থগিতের দাবি জানান এবং আজ রবিবার অর্ধদিবস হরতালের ঘোষণা দেন। এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও জাপার একাংশের চেয়ারম্যান কাজী জাফর আহমদ, জাপা নেতা এয়ার আহমদ সেলিম, বিএনপি নেতা কাজী নাছিমুল হক, জি.এম তাহের পলাশী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী রাহেনা বেগম প্রমুখ।

নাঙ্গলকোট উপজেলার পাটুয়ার, মাহিনী, মক্রবপুর কেন্দ্রে সংঘর্ষ ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। এছাড়া জোড্ডা প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় পুলিশের একটি ভাড়া করা গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করলে গাড়ির চালক আনোয়ারসহ ৩ জন আহত হয়। এছাড়া কাকৈরতলা ভোট কেন্দ্রের বাইরে বিএনপি সমর্থকদের ৩টি বাড়িঘরে হামলা-ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটায় এ উপজেলার পরিকোট, মাহিনী ও সিজিয়ারাসহ ৩টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। দুপুর ১২টার দিকে উপজেলা সদরে সংবাদ সম্মেলন করে বিভিন্ন কেন্দ্রে ভোট জালিয়াতি ও অনিয়মের অভিযোগ এনে নির্বাচন বর্জন ও আজ রবিবার উপজেলায় অর্ধদিবস হরতালের ঘোষণা দেন ১৯ দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী নজির আহমেদ ভূঁইয়া।

হোমনা উপজেলার শাহদৌলতপুর কেন্দ্রে আওয়ামীলীগ চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মীরা ব্যালট পেপারে জোর করে সিল মারার সময় উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এতে ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার মাহবুব আলম খান ১১৭টি ভোট বাতিল করলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।
তিতাস উপজেলার বিরামকান্দি, সাতানী, কলাকান্দি, করিমাবাদ, একলারামপুরসহ ৭টি কেন্দ্রে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এসব কেন্দ্রে সাময়িকভাবে ভোটগ্রহণ বন্ধ থাকলেও পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হলে ভোটগ্রহণ স্বাভাবিক হয়। এ উপজেলার কালাগোবিন্দপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে।
কুমিল্লার সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার রাশেদুল ইসলাম জানান, ভোট চলাকালে আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটায় নাঙ্গলকোটের ৩টি, চৌদ্দগ্রামের ২টি ও তিতাসের ১টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply