কুমিল্লার তিতাসে যোগ্য ব্যক্তির সন্ধানে ভোটারা

নাজমুল করিম ফারুক :–
জমে উঠেছে কুমিল্লার তিতাস উপজেলা পরিষদ নির্বাচন-২০১৪। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে (তিতাস-হোমনা) উপজেলা নিয়ে গঠিত কুমিল্লা-২ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় তিতাস উপজেলার ভোটাররা নির্বাচনী আমেজ থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। সংসদ নির্বাচনে এ শূন্যতাকে পূরণ করে দিতে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী সমর্থক ও ভোটাররা নির্বাচনের ময়দানে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন। প্রার্থীরা দিচ্ছেন অতীত কর্মকাণ্ডের ফিরিস্তি। বিশেষ করে লিফলেট হাতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন প্রার্থীরা।
অনেকে নিজেদের পছন্দের প্রার্থীকে জয়ী করতে বিভিন্ন কৌশলে ভোটারদের মন জয় করার চেষ্টা করছেন। কর্মজীবী মানুষ সারা দিন পরিশ্রম করে নিজেদের কাজ শেষে সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত চায়ের দোকানে আড্ডা দিয়ে প্রার্থীদের অতীত জনসেবামূলক কর্মকাণ্ড মূল্যায়ন নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন পাশাপাশি ঘুষ, দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে যে প্রার্থী সোচ্চার হবে যার দ্বারা এলাকায় উন্নয়নে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা হবে এবং সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করবে এমন প্রার্থীকে ভোট দেয়ার অভিমত ব্যক্ত করছেন।
উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে ৪৫টি ভোট কেন্দ্রের মোট ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ১৭ হাজার ৯শ ৬২। যার মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫৭ হাজার ৮৯ জন এবং মহিলা ভোটার সংখ্যা ৬০ হাজার ৮শ ৭৩ জন। ২০০৯ সালের ২২ জানুয়ারি এ উপজেলায় প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী পারভেজ হোসেন সরকার আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী এম.এ খালেক সরকারকে প্রায় ৮ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে প্রথম উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।
তিতাস উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ পারভেজ হোসেন সরকার (চিংড়ি) এবং উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও বিএনপি মনোনীয়ত প্রার্থী মোঃ সালাহ উদ্দিন সরকার (ঘোড়া) সমান তালে চালিয়ে যাচ্ছেন প্রচার-প্রচারণা। সাধারণ ভোটাদের ধারনা মূলত এ দুজনের মধ্যেই হবে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। এছাড়াও চেয়ারম্যান পদে বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নুরুন নাহার (কাপ-পিরিচ), সাবেক উপজেলা শ্রমিকদলের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আনোয়ার হোসেন (দোয়াত কলম), বাতাকান্দি বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সাবেক সভাপতি নাছির আলম (আনারস) ও ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন মনোনীয়ত প্রার্থী মোঃ আব্দুল হান্নান (মোটর সাইকেল) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। গত সপ্তাহে নাছির আলম প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নিয়েছে বলে গুঞ্জরণ শোনা গেলেও পরে এটা তার বড় ভাইয়ের অপ্রচার বলে নাছির আলম দাবী করেন। এদিকে পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা শ্রমিকদলের সাধারণ সম্পাদক ও বিএনপির মনোনীত প্রার্থী জহিরুল ইসলাম জাদু মোল্লা (টিউবওয়েল), উপজেলা যুবলীগ নেতা ও আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী মোঃ শাহিনুল ইসলাম সোহেল শিকদারের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হওয়ার সম্ভাবনা থাকলেও অনেকটা এগিয়ে আছেন সাবেক উপজেলা ইউসিসি চেয়ারম্যান বৃহত্তর দাউদকান্দির সফল ছাত্রনেতা ও উপজেলা বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল লতিফ সরকার (উড়োজাহাজ) এবং সাবেক উপজেলা সদর কড়িকান্দি ইউনিয়ন জামায়তের সভাপতি মোঃ ছবির হোসেন (বৈদুত্যিক বাল্ব)। এছাড়াও পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা যুবলীগ নেতা মোহাম্মদ আতিকুর রহমান (বই) ও কাউছার আহম্মেদ ভূঁইয়া (তালা), সাবেক উপজেলা জাতীয়পার্টির সাধারণ সম্পাদক সামছুল হক মোল্লা (টিয়াপাখি), বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা এম রিয়াজ উদ্দিন (চশমা) নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। অপরদিকে বিএনপির মনোনীয়ত প্রার্থী সামিয়া সুলতানা শিলা (কলস) ও আওয়ামীলীগ মনোনীয়ত প্রার্থী ছালেহা খাতুন (হাঁস) এর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হওয়ার আবাস পাওয়া গেলেও প্রচারণার ক্ষেত্রে অনেকটা এগিয়ে আছেন মোসাঃ শাকিলা পারভিন (প্রজাপতি)। এছাড়াও সোনিয়া পারভিন (ফুটবল) ও আশরা বেগম (পদ্মফুল) নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ১৯ জন প্রার্থীর প্রচার প্রচারণায় তিতাসে এখন ভোটের আমেজ জমজমাট হয়ে উঠেছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply