নাঙ্গলকোটকে একটি মডেল উপজেলায় প্রতিষ্ঠা করাই আমার লক্ষ্য—-চেয়ারম্যান প্রার্থী নজির আহমেদ ভূঁইয়া

মোঃ আলাউদ্দিন,নাঙ্গলকোট(কুমিল্লা):–

আসন্ন চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় দফায় নির্বাচন কমিশন কর্তৃক ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ১৫ মার্চ কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে ১৯ দলীয় জোটের একক প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বিশিষ্ট শিল্পপতি নজির আহমেদ ভূঁইয়া। ইতিমধ্যে তিনি মোটর সাইকেল প্রতীক বরাদ্দ পেয়ে বিরামহীনভাবে গণসংযোগ ও নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। সততা ও যোগ্যতার মাপকাঠিতে একজন যোগ্যপ্রার্থী হিসেবে তিনি আলোচনার শীর্ষে রয়েছেন। অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে চেয়ারম্যান শেষ পর্যন্ত তিনিই চমক দেখাতে পারেন। কিশোর বয়স থেকেই তিনি বিভিন্ন সমাজসেবা মূলক সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে জনকল্যানে কাজ করে আসছেন। আসন্ন এই উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে হয়ে তিনি এবার নাঙ্গলকোটের বৃহৎ জনগোষ্ঠীর কল্যানে কাজ করতে চান। নির্বাচনে অংশগ্রহন, দলের একক সমর্থন লাভ করা, নিজ দলের অবস্থান, উপজেলাবাসীর সমর্থন, উন্নয়ন কর্মকান্ড, মানুষের মৌলিক অধিকারসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী নজির আহমেদ ভূঁইয়ার সাথে আমাদের স্থানীয় প্রতিনিধি মোঃ আলাউদ্দিনের একান্ত আলাপচারিতায় উঠে আসে সব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। দলের অবস্থান সম্পর্কে তিনি বলেন- আমাদের দলের মধ্যে কিছুটা বিবাদ ছিল। তবে এখন সেটা মিটে গেছে। জোট ও দলের সবাই ঐক্যমতের ভিত্তিতে আমাকে ১৯দলীয় জোটের একক প্রার্থী হিসেবে ঘোষনা করেছে। দলের অবস্থান নিয়ে বলেন- দলের নেতাকর্মীরা সব বিবাদ ভুলে গিয়ে আমার জন্য নির্বাচনের মাঠে নেমেছে। তারা আমার বিজয় নিয়ে ঘরে ফিরতে চায়। জনগনের মৌলিক অধিকার রক্ষায় আমাকে তাদের অভিভাবক হিসেবে দেখতে চায়। আমি মনেকরি, জনগণের এ ভালোবাসায় আমার বিজয় কেউ ছিনিয়ে নিতে পারবে না। ক্ষমতাশীন দলের অধিনে নির্বাচন হচ্ছে। তাই উপজেলায় সুষ্ঠ ভোট হওয়া নিয়ে কোন সংশয় রয়েছে কি না? প্রতিনিধি আলাউদ্দিনের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন- কিছুটা সংশয় তো অবশ্যই আছে। তবে, যাতে কোন ষড়যন্ত্র বা প্রহসনের সুযোগ না পায় সে জন্য সাধারণ জনগণ সজাগ আছে। আমি জনগণের শক্তি নিয়ে নির্বাচন করছি। এ উপজেলায় আওয়ামীলীগের প্রার্থী ২ (দুই) জন। তাই তারা ভোটে নির্বাচিত হতে পারবেনা বলে ভোট কেন্দ্র দখল, সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও জাল ভোটের মাধ্যমে বিজয় ছিনিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করতে পারে। এসব বিষয় নিয়ে ভোটাররা আমাকে অবগত করে আসছে। আমি বলেছি- ক্ষমতাশীনদের সকল ষড়যন্ত্র প্রতিরোধ করে প্রমান করতে হবে, জনগণের শক্তির উপর কারো শক্তি নেই। আমার বিজয় মানে জনগণের বিজয়। জনগণের বিজয় সন্ত্রাসীরা কখনো কেড়ে নিতে পারবেনা। তিনি আরও বলেন- সারাদেশের ছেয়ে আমার উপজেলায় নির্বাচন হবে ভিন্ন। জনগণ ভোটের আগের রাত থেকেই সন্ত্রাসীদের প্রতিহত করার প্রস্তুতি নিবে। সুষ্ঠ ভোট গ্রহণের জন্য সকালেই ভোট কেন্দ্রে অবস্থান নিবে। উপজেলার সাধারণ মানুষ আমাকে এমনটাই বলেছেন। উপজেলার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন- আ’লীগও বিএনপির মত একটি বড় রাজনৈতিক দল। আ’লীগ দলের নেতাকর্র্মীরা উপজেলার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি দিন দিন অবনতির দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এ উপজেলার সাধারণ মানুষ চায় নিরাপদ জীবন ও শাসন প্রতিষ্ঠা। মানুষের এ চাওয়া ও প্রত্যাশায় আমাকে নির্বাচনে আসতে হয়েছে। ঐতিহ্যবাহী কুমিল্লার জেলার মধ্যে একমাত্র নাঙ্গলকোট উপজেলাটিই সবেছেড়ে বেশি অবহেলিত ও সুবিধাবঞ্চিত। এখনো নাঙ্গলকোটের অনেক এলাকাই বিদ্যুতের আলো পৌঁছায়নি। এই নাঙ্গলকোটের উপর দিয়ে গ্যাস লাইন গেলেও গ্যাস সুবিধা থেকে আমরা বঞ্চিত। নাঙ্গলকোটের সর্বস্তরের মানুষের আন্তরিক সহযোগিতায় চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হলে এখানকার মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে কাজ করে যাব। আগামী ১৫ মার্চের নির্বাচনে ভোটাররা তাদের মূল্যবান ভোট দিয়ে আমাকে চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত করলে উপজেলার সদরসহ প্রত্যন্ত অঞ্চলের বিদ্যুৎ, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন, গ্যাস সংযোগের ব্যবস্থা, ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন, সামাজিক নিরাপত্তা, শিক্ষার উন্নয়নে, মদ-জুয়া তথা অসামাজিক কার্যকলাপ থেকে যুবসমাজকে রক্ষা করে দেশের স্বার্থে কাজে লাগিয়ে সততা ও জবাবদিহিতার মাধ্যমে সুন্দর আধুনিক ও সুশৃঙ্খল উপজেলা গঠনে কাজ করে যাব। এ নাঙ্গলকোটকে একটি মডেল উপজেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করাই আমার লক্ষ্য। ইনশাআল্লাহ, আমি চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হলে অবহেলিত এবং সুবিধাবঞ্চিত এ নাঙ্গলকোট উপজেলাকে একটি মডেল উপজেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করব।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply