সংকটে মহাজোট : শক্ত অবস্থানে ১৯ দলীয় জোটের প্রার্থী

স্টাফ রির্পোটারঃ–
কুমিল্লা জেলার  ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলাটি ৮টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত । এ উপজেলায় মোট ভোটের সংখ্যা ১ লক্ষ ৩৩ হাজার ৫শত ২ জন। জোটগত ভাবে আওয়ামীলীগ একক প্রার্থী দিতে ব্যর্থ হওয়ায় আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। যদিও দলগত সমর্থন নিয়ে একক প্রার্থী হিসাবে আছেন বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী জাহাঙ্গীর খান চৌধুরী। তিনি আনারস প্রতীক নিয়ে লড়ছেন। আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদেরকে নিয়ে বিরামহীন ভাবে প্রচার প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। অপরদিকে জেলা আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী সদস্য ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলহাজ্ব আবু তাহের তিনি দোয়াত কলম প্রতীক নিয়ে মাঠে আছেন। দলীয় শীর্ষ স্থানীয় নেতাকর্মীদের সংখ্যা কম থাকলেও আওয়ামীলীগের সাবেক নেতা ও সাধারণ সমর্থকদের নিয়ে দিন রাত ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গুরছেন। অন্যদিকে আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং ব্রাহ্মণপাড়া সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজী জসিম উদ্দিন কাপ পিরিজ প্রতীক নিয়ে চালিয়ে যাচ্ছেন প্রচার প্রচারনা। সাথে রয়েছেন আওয়ামীলীগের কিছু নেতাকর্মী ও সমর্থক। তিনি নিজেকে সৎ যোগ্য প্রার্থী হিসাবে দাবী করে মাঠে ঘুরে বেড়াচ্ছেন তিনি। এদিকে আমরা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংগঠনের আহবায়ক আওয়ামীলীগ নেতা ক্যাপ্টিন (মেরিন) জিয়াউল হাসান মাহমুদ হেলিকপ্টার প্রতীক নিয়ে এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। বাবা ভাষা সৈনিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা সাবেক এমপি আমীর হোসেন। বাবার আদর্শকে কাজে লাগিয়ে ভোটারদের মাঝে ছুটে যাচ্ছেন তিনি। স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রবাসী আবুল কালাম ইদ্রিস কোন কর্মী সমর্থক ছাড়াই মোটর সাইকেল প্রতিক নিয়ে ভোটারদের কাছে ছুটে বেড়াচ্ছেন। তিনি নিজেকে সৎ ও নিষ্ঠাবান প্রার্থী দাবী করে গনসংযোগ করছেন।   তবে উপজেলা বিএনপির তথা ১৯ দলীয় জোটের একক প্রার্থী হিসাবে দলের সমর্থন নিয়ে বিভিন্ন গ্রামে বিরামহীন ভাবে গনসংযোগ করে যাচ্ছেন উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক এবং সাবেক উপজেলার দুই বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান মোঃ সামসুল আলম। তিনি টেলিফোন প্রতীক নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। দলের নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে চালিয়ে যাচ্ছেন প্রচার প্রচারনা। একক প্রার্থী হওয়ার সুবাধে সুবিধাজনক অবস্থানে আছেন এই ১৯ দলীয় জোটের প্রার্থী।  সাধারণ ভোটাররা মনে করছেন সর্বশেষ ভোট যুদ্ধে আওয়ামীলীগ যদি দলীয় কোন্দল মিটিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করেন তা হলে হাজী জাহাঙ্গীর খান চৌধুরী এবং সামসুল আলম ও আলহাজ্ব মুহাম্মদ আবু তাহেরের মধ্যে ত্রিমুখী লড়াই হবে। আওয়ামীলীগ যদি দলীয় কোন্দল মেঠাতে ব্যর্থ হয় তাহলে  ১৯ দলীয় জোটের প্রার্থীর বিজয় হবার সম্ভাবনা অনেক বেশী।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply