চান্দিনায় ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বন্ধ হলো ৩টি বাল্য বিয়ে; ইউপি সদস্যের কারাদণ্ড

মাসুমুর রহমান মাসুদ,চান্দিনা(কুমিল্লা):–
কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ ছালেহ্ আহাম্মদ এর হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ের অভিশাপ থেকে রক্ষা পেয়েছে ৩ বালিকা। এরা হলেন- গল্লাই ইউনিয়নের মীরাখোলা গ্রামের আলী আশরাফ এর মেয়ে কংগাই উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর মেধাবী ছাত্রী আয়েশা আক্তার (১৫), একই গ্রামের মো. দেলোয়ার হোসেনের মেয়ে মাহফুজা আক্তার (১৫) এবং কুমিল্লার নোয়াপাড়ার সুভ্রাতি শাহজাদি উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী শিল্পী আক্তার (১৪)।
এদিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শেখ ছালেহ্ আহাম্মদ বাল্য বিয়ের আয়োজন করায় গল্লাই ইউনিয়ন পরিষদের ৪নং ওয়ার্ড মেম্বার মো. ইদ্রিস মিয়া (৬৫) কে ১০ দিনের কারাদণ্ড প্রদান করেন। তাকে বুধবার (৫ মার্চ) কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।
জানাযায়, বুধবার পার্শ্ববর্তী কচুয়া উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামের সাবেক মেম্বার মৌলভী ওয়াহাব এর ছেলে প্রবাসী মো. ছফিউল্লাহ’র সাথে আয়েশা আক্তার (১৫) এর বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। একই দিনে চান্দিনা উপজেলার মাইজখার ইউনিয়নের আওড়াল গ্রামের আবদুল মতিন এর ছেলে আনোয়ার হোসেন এর সাথে মীরাখোলা গ্রামের মাহফুজা আক্তার (১৫) এর বিয়ে হওয়ার কথা ছিল।
এর আগে মঙ্গলবার রাতে উপজেলার গল্লাই ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রামের ছিদ্দিক মিয়ার পুত্র প্রবাসী অহিদ মিয়ার (২৩) সাথে কুমিল্লার নোয়াপাড়ার সুভ্রাতি শাহজাদি উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী শিল্পী আক্তার (১৪) এর বিয়ের আয়োজন করেন স্থানীয় মেম্বার মো. ইদ্রিস মিয়া। বাল্য বিয়েতে বাঁধা দেওয়ায় কাজী মো. ইমরান, গ্রাম পুলিশ, স্থানীয় সুশীল সমাজ নেতৃবৃন্দ এবং ইউপি সচিব নেপাল চন্দ্র দাস এর সাথে অসদাচরণ করেন ওই ইউপি মেম্বার। পরে মঙ্গলবার রাত ১টায় চান্দিনা থানার উপ-পরিদর্শক ওয়ালীউল্লাহ্সহ পুলিশের সহযোগীতায় ওই মেম্বারকে আটক করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শেখ ছালেহ্ আহাম্মদ তাকে ১০ দিনের কারদন্ড প্রদান করেন।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply