কুমিল্লার মেঘনায় লুটেরচর মফিজুল ইসলাম উচ্চ বিদ্যালয়ের ২৫ বছর পূর্তি উৎসব

মেঘনা প্রতিনিধি:–
কুমিল্লার মেঘনায় লুটেরচর মফিজুল ইসলাম উচ্চ বিদ্যালয়ের ২৫ বছর পূর্তি উৎসব উপলক্ষে ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৪, কুমিল্লা জেলার মেঘনা উপজেলার লুটেরচর বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গনে এক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ইউরোপিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আবদুল মান্নান।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আবদুল গাফ্ফার স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি ড. মুহাম্মদ আবদুল মান্নান সরকার, লুটেরচর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সানাউল্লাহ শিকদার।
আলোচনায় অংশগ্রহন করেন লুটেরচর মফিজুল ইসলাম উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি সাইফুল্যাহ মিয়া রতন শিকদার, লুটেরচর মফিজুল ইসলাম উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষানুরাগী সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আঃ গাফ্ফার ও স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী।
সভাপতিত্ব করেন ২৫ বছর পূর্তি উৎসব কমিটির আহবায়ক ও ন্যাশনাল আইডিয়াল কলেজের ইংরেজী প্রভাষক মোঃ হাবিবুর রহমান।
দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীরা অতিথিদের ফুল দিয়ে বরণ করেন। প্রধান অতিথি জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন এবং প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীরা স্মৃতিচারণ করেন। প্রথম পর্বের সবশেষে অতিথিদের সম্মাননা জানাতে ক্রেস্ট প্রদান করেন প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীবৃন্দ।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, মফিজুল ইসলাম একজন উচ্চ শিক্ষিত লোক না হয়েও  এলাকার উন্ননে একটা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রয়োজন তা তিনি উপলব্ধি করেছিলেন। আর তাই অজপাড়াগাঁয়ে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এই সুদীর্ঘ ২৫ বছর উত্তীর্ণ হলেও যেভাবে জ্ঞানের আলো আলোকিত হওয়ার কথা তার কাক্সিক্ষত লক্ষে আমরা পৌঁছতে পারছিনা।
বক্তারা আরও বলেন, ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে বাঁধন নামে একটি স্মরণিকা প্রকাশ হয়েছে। এতে স্কুলে ১৯৯৩ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত পাশের হার দেয়া আছে। এতে দেখা যাচ্ছে স্কুলের পাশের হার খুবই ভাল। কিন্তু অত্র স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের উচ্ছ শিক্ষার প্রবণতা খুবই কম। ৬ষ্ঠ শ্রেণীতের ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা বর্তমানে  যেখানে ১৮৫ জন। যেখানে এ সংখ্যা ক্রমাগতভাবে কমে ৭ম, ৮ম, ৯ম ও ১০ শ্রেণীতে গিয়ে দেখা যাচ্ছে ৭০ এর কোঠায় চলে যাচ্ছে। এর মূল কারণ বাল্য বিয়ে। বাল্য বিয়ের জন্য মেয়েদের উচ্চ শিক্ষা বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। তাই অত্র স্কুলটিকে যদি কলেজে রুপান্তরিক করা যায় অথবা একটি পূর্ণাঙ্গ কলেজ প্রতিষ্ঠা করা যায় তাহলে এই ঝড়ে পড়ার হার রোধ করা সম্ভব। অনুষ্ঠানে বক্তারা লুটেরচর ইউনিয়নে একটি আদর্শ কলেজ প্রতিষ্ঠার জোর দাবী জানান।
দুপুরের খাবার বিরতির পর বিকাল ৩টায় অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্ব শুরু হয়। এ পর্বে প্রথমে লোকাল শিল্পীদের সমন্বয়ে সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। সবশেষে সন্ধ্যায় কন্ঠশিল্পী আলম আরা মিনু, রাজীব, হেমা, হিরুসহ জাতীয় সঙ্গীতশিল্পীদের সমন্বয়ে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply