আমরা একজন অভিভাবককে হারালাম —সৈয়দ একে একরামুজ্জামান

আকতার হোসেন ভুইয়া,নাসিরনগর প্রতিনিধি:–
কেন্দ্রীয় বি,এন,পির প্রবাসী কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক ও উপজেলা বি,এন,পির সভাপতি  শিল্পপতি আলহাজ্ব সৈয়দ একে একরামুজ্জামান সুখন বলেন ঠিক যে মুর্হূতে রাজনৈতিক,সামাজিক,অর্থনৈতিক স্থবিরতা বিদ্যমান,ঠিক সে মুর্হূতে প্রয়োজনীয়তা অনুভব হচ্ছে ।  তিনি দেশ ও দলের জন্য ত্যাগ-তিতিক্ষা ,সততা-নিষ্ঠার ও দেশপ্রেমিক নেতা ছিলেন। এবং তিনি ছিলেন প্রতিষ্ঠানিক রাজনীতির ধারক,বাহক ও আমাদের একজন রাজনৈতিক অভিভাবক। আজ বৃহস্পতিবার সৈয়দ মোশের্দ কামাল স্মৃতি সংসদের  উদ্যোগে বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ,মুক্তিযোদ্ধা, সাবেক সংসদ সদস্য, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও কেন্দ্রীয় রেডক্রিসেন্টের সাবেক অন্যতম সদস্য মরহুম সৈয়দ মোর্শেদ কামালের ১ম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্ততায় একথা বলেন। স্থানীয় কৃষি ব্যাংক প্রাঙ্গণে সংসদরে আহবায়ক প্রফেসার মোঃ আবু তাহেরের  সভাপতিত্বে  সদস্য সচিব এডভোকেট আমিনুল ইসলাম মনিরের পরিচালনায় স্মরণ সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় গনফোরামের আন্তজাতিক বিষয়ক সম্পাদক আবদুল আসিফ চৌধুরী,উপজেলা বি,এন,পির সাধারন সম্পাদক ও ইউ,পি চেয়ারম্যান এম,এ হান্নান,ধরমন্ডল ইউ,পি চেয়ারম্যান মোঃ আবদুল হাই, চাপরতলা ইউপি চেয়ারম্যান ফয়েজ উদ্দিন ভুইয়া,লেখক ও গবেষক সাইদুর রহমান । বক্তব্য রাখেন, প্রেসক্লাব সভাপতি আজিজুর বহমান চৌধুরী, মরহুমের ছেলে সৈয়দ সাফায়েত মোর্শেদ শুভ,সৈয়দ সাজ্জাত মোর্শেদ সোহান, জেলা বিএনপির সদস্য ইব্রাহিম ভুইয়া, উপজেলা সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক ্্ইউপি চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন ভুইয়া,আবুল হোসেন, হাজ্বী তারিক মিয়া,  , সফিকুল ইসলাম, হাজ্বী সোনা মিয়া, যুবদল সভাপতি সৈয়দ আবু সারোয়ার , ছাত্রদল সভাপতি সৈয়দ নাসির রহমান,জাসাস সভাপতি শাখাওয়াত হোসেন ভুইয়া প্রমূখ।  পরে সৈয়দ মোর্শেদ কামালের স্মরণে  দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।
উল্লেখ্য, বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১(নাসিরনগর) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য , সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও কেন্দ্রীয় রেডক্রিসেন্টের সাবেক অন্যতম মুক্তিযোদ্ধা সদস্য সৈয়দ মোশের্দ কামাল এরশাদ সরকারের আমলে একবার উপজেলা চেয়ারম্যান ও ৯১-এর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির হয়ে সংসদ সদস্য নিবার্চিত হন। পরে তিনি ১৯৯৫ সালে বিএনপিতে যোগদান করেন। ১৯৯৬ সালের ১৫ ফ্রেরুয়ারি নিবার্চনে সৈয়দ মোর্শেদ কামালকে এ আসনে বিএনপির মনোনয়ন দেয়া হলে স্থানীয় বিএনপির একটি অংশ বিদ্রোহ করেন। এ নির্বাচনে তিনি পরাজিত হন। পরবর্তীতে ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় এসে সৈয়দ মোশের্দ কামালকে কেন্দ্রীয় রেডক্রিসেন্টের  অন্যতম সদস্য নিবার্চিত করেন। ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন না পেয়ে তিনিবিবৃতি দিয়ে বিএনপি থেকে পদত্যাগ করেন। এর পর থেকেই তিনি অনেকটা রাজনীতি থেকে দূরে সরে পড়েন। তারপর তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরবর্তীতে ধরা পড়ে মরণব্যধি ক্যানর্সা । দীর্ঘদিন লড়াই করে ১৪ জানুয়ারি ২০১৩ ঢাকা পিজি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন। তার মৃত্যুতে তখন এলাকায় শোকের ছায়া নেমে পড়ে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply