জনসমর্থনহীন সরকার জনগণের কল্যাণে আসবে না ——–ড. খন্দকার মোশাররফ

আলমগীর হোসেন,দাউদকান্দি প্রতিনিধি:–
জনসমর্থনহীন সরকার দেশ ও জনগণের কোন কল্যাণে আসবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য, সাবেক মন্ত্রী এবং মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেন, সংবিধানের দোহাই দিয়ে আ.লীগ ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার জন্য দেশে একটি তামাশার নির্বাচন করেছে। ভোটারশূণ্য, প্রার্থীবিহীন এই নির্বাচনে নৈতিকভাবে আ.লীগের পরাজয় হয়েছে। বিজয়ী হয়েছে দেশের জনগণ এবং বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৯ দলীয় জোট। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আহ্বানে সাড়া দিয়ে জনগণ ভোটকেন্দ্রে যায়নি। জনসমর্থনহীন এই সরকার দেশ ও জনগণের কোন কল্যাণে না এলেও আ.লীগ এবং তাদের গৃহপালিত বিরোধী দলের নেতাদের ভাগ্যোন্নয়নে কাজে আসবে। ড. মোশাররফ আরো বলেন, জনগণের কাংখিত উন্নয়ন, স্থিতিশীলতা ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সকল দলের অংশগ্রহণে একটি অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠান জরুরী।  এই বাস্তবতা উপলব্ধি করে সরকার যত দ্রুত উদ্যোগ নেবে, দেশের জন্য ততই মঙ্গল।
তিনি আজ শনিবার কুমিল্লার দাউদকান্দি সদরে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে দাউদকান্দি উপজেলা ও পৌর বিএনপি আয়োজিত এক প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। এর আগে সকালে তিনি নৈয়াইর ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা ও বার্ষিক মিলাদ মাহ্ফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন।
ড. মোশাররফ অভিযোগ করেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচন প্রত্যাখান করায় সরকার জনগণের প্রতি ক্ষিপ্ত হয়ে সারাদেশে হত্যা, গুম, গ্রেফতার-নিপীড়ন, মামলা-হামলা করছে। কথিত বন্দুক যুদ্ধের নামে বিএনপি নেতা-কর্মীদের হত্যা করছে। মানবিক মূল্যবোধ আজ ভুলুণ্ঠিত। এইভাবে তারা জনজীবনে চরম নৈরাজ্য ও অশান্তির সৃষ্টি করেছে। অবিলম্বে সরকারের এইসব পৈশাচিক আচরণ বন্ধ করার জন্য দাবি করেন বিএপি’র এই সিনিয়র নেতা।
৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে ক্ষমতায় থাকার একটি সাজানো নাটক অভিহিত করে তিনি বলেন, এই নির্বাচন দেশে-বিদেশে কোথাও গ্রহণযোগ্যতা পায়নি। বিদেশী পর্যবেক্ষক এই নির্বাচনি নাটক দেখতে আসার সামান্যতম প্রয়োজন বোধ করেনি। ড. মোশাররফ ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে প্রত্যাখান করায় জনগণকে অভিনন্দিত করেন এবং গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও দেশ বাঁচানোর আন্দোলনে শরিক হতে দলমত নির্বিশেষে সকলের প্রতি উদাত্ত আহবান জানান।
দাউদকান্দি উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি এ.কে.এম শামসুল হকের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তৃতা করেন, কেন্দ্রীয় যুবদলের সহ-সভাপতি কে.এম.আই খলিল, সুপ্রীমকোর্টের তরুণ আইনজীবী ড. খন্দকার মারুফ হোসেন, সাইফুল আলম ভূঁইয়া, জসিম উদ্দিন আহমেদ, আবুল হাসেম চেয়ারম্যান, বিএনপি নেতা আলহাজ্ব আব্দুস সাত্তার, এম. আব্দুস সাত্তার, আহাম্মদ হোসেন তালুকদার, নুর মোহাম্মদ সেলিম, শাহজাহান আলী ভূঁইয়া, যুবদল নেতা ভিপি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম ও মো: কামাল হোসেন, শাহ-আলম, দেওয়ান আব্দুস সাত্তার, মোঃ মোশাররফ হোসেন হাজারী, ছাত্রদল নেতা ভিপি সাহাবুদ্দিন ভূঁইয়া, রোমান খন্দকার, রেজাউল করিম ভূঁইয়া, আসিফ কবির, আল আমিন সরকার, শাহীন আলম দিপু, লিপন, পলাশ মহিলা দল নেত্রী আইরিন সরকার, রাজিয়া সুলতানা, ফরিদা ইয়াসমিন ও বিউটি আক্তার প্রমুখ।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply