কুমিল্লার দেবিদ্বরের ঊষা জুট মিলে ২২ ঘন্টা পরও জ্বলছে আগুন!

মাসুমুর রহমান মাসুদ :–

টানা ২২ ঘন্টা চেষ্টার পরও সম্পূর্ণ ভাবে নিভানো যায়নি কুমিল্লার ঊষা জুট মিলের আগুন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (সোমবার সন্ধ্যা ৬টা) নিভে-নিভে জ্বলছে আগুন। আগুন নিভানোর কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের ২টি ইউনিট। ২৫ হাজার মন পাট পুড়ে ছাই ও অকেজো হয়ে হয়ে যাওয়ায় ওই মিলের ব্যাপক লোকসানের আশংকা বিরাজ করছে।

সরেজমিনে সোমবার চান্দিনা উপজেলার বেলাশহর-হাড়িখোলা ও দেবিদ্বার উপজেলার সানানগর এলাকার ঊষা জুট স্পিনার্স লি: ঘুরে দেখা যায় ওই মিলের ২টি বড় গুদামের পিছনের গুদামটিতে অগ্নিকান্ড ঘটে।

রবিবার রাত ৮টা থেকে কুমিল্লা জেলার বিভিন্ন ফায়ার সার্ভিসের ৮টি ইউনিটের চেষ্টায় সকাল ৬টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রনে আসে। কিন্তু ওই গুদামে পর্যাপ্ত পরিমান পাট মজুদ থাকায় ওই আগুন এখনও নিভে নিভে জ্বলছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (সন্ধ্যা ৬টায়) কুমিল্লা ও চান্দিনা ফায়ার সার্ভিসের ২টি ইউনিট সম্পূর্ণ রূপে আগুন নিভানোর কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

ফায়ার সার্ভিস বৃহত্তর কুমিল্লা অঞ্চলের সহকারি পরিচালক মো. শাহাবুদ্দিন মজুমদার জানান, ‘ওই গুদামে যে পরিমান পাট আছে তাতে তিল ঠাঁই নেই। যারফলে আগুন সম্পূর্ণ ভাবে নিভানো যাচ্ছে না। অগ্নিকান্ড ঘটার পর থেকে আমরা দেয়াল ভেঙ্গে ও চালের টিন খুলেও পানি দিচ্ছি তাতেও আগুন নেভানো যায়নি। সকাল থেকে পুড়ে যাওয়া পাটের অংশ ও স্তুপ আকারে থাকা ভেজা পাট বের করার সাথে সাথে এখনও ২টি ইউনিট পানি ছিটিয়ে আগুন নিভানোর কাজ চালিয়ে যাচ্ছে’।

আগুনের সূত্রপাত সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি জানান, ‘গুদামের পাশে স্পিনিং মিল থাকায় সেখান থেকে বৈদ্যুতিক সর্ট সার্কিটের কারণে আগুনের সূত্রপাত ঘটতে পারে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে’।

ঊষা জুট স্পিনার্স লি: এর সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার আলহাজ মো. ফরহাদ হোসাইন জানান, ‘এ মিলের পাশাপাশি ২টি গুদাম রয়েছে। পিছনের গুদামে এ অগ্নিকান্ড ঘটে। আর ওই গুদামে ২৫ হাজার ১৭০ মন পাট ও সামনের গুদামেও সমপরিমান পাট ছিল। অগ্নিকান্ডে পিছনের গুমামের সকল পাট পুড়ে ছাই হয়ে যায়। অপরদিকে আগুন নিভাতে ফায়ার সার্ভিসের পানিতে সামনের গুমাদের সকল শুকনো পাট ভিজে যায়, সে পাটগুলোরও গুনগত মান নষ্ট হয়ে যাওয়ায় বিদেশে রপ্তানী যোগ্য হবে না। পুড়ে ছাই-ভিজে নষ্ট হয়ে যাওয়া পাট ও আগুনে পুড়ে নষ্ট হওয়া গুদামসহ ক্ষয়-ক্ষতির পরিমান এখনও সঠিক ভাবে নির্ধারণ করা যাচ্ছে না’।

এ ঘটনায় দেবিদ্বার থানায় মিল কর্তৃপক্ষ থেকে একটি সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) হারুন-অর রশিদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

উল্লেখ্য, রবিবার রাত ৮টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক সংলগ্ন চান্দিনার হাড়িখোলা ও দেবিদ্বার উপজেলার সানানগর এলাকার সীমান্তবর্তী এলাকায় অবস্থিত ঊষা জুট মিলের পাটের গুদামে এই অগ্নিকান্ড ঘটে। কুমিল্লা ফায়ার সার্ভিসের ৬টি ইউনিট এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। পাটের ওই গুমাদটি সোনালী ব্যাংকের কাছে দায়বদ্ধ রয়েছে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply