মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস নিশ্চুপ : মতলবে জেএসসি’র মডেল টেষ্ট পরীক্ষার নামে অর্থ বানিজ্য

শামসুজ্জামান ডলার :–

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ৫১টি মাদ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জেএসসি ও সমমানের পরীক্ষার মডেল টেষ্টের নামে চলছে অর্থ বানিজ্য। উপজেলার ৩৯টি উচ্চ বিদ্যালয়ে ও ১২টি মাদ্রাসায় একযুগে চলছে এই পরীক্ষা। বেসরকারী মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জেএসসি ও সমমানের এজাতীয় কোন মডেল টেষ্ট পরীক্ষা নেয়ার বিধান না থাকলেও এখানে তাই চলছে। কিন্তু উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস রহস্যজনক কারনে রয়েছে নিশ্চুপ।
উপজেলার ৩৯টি স্কুলের ৪ হাজার ৬২৬ জন এবং ১২টি মাদ্রাসার ৪০৭ জন সর্বসাকুল্যে ৫ হাজার ৩৩ জন পরীক্ষার্থী এবছরের জেএসসি ও সমমান পরীক্ষার মডেল টেষ্টে অংশ নিয়েছে। যাদের কাছ থেকে জনপ্রতি ৩০০টাকা থেকে ৪০০টাকা পর্যন্ত ফি হিসাবে উত্তোলন করেছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো। আর হিসাবমতে এই উপজেলায় ৩০০ টাকা হারে ফি উত্তোলন করলে জেএসসি ও সমমানের পরীক্ষার্থীদের থেকে উত্তোলিত হবার কথা ১৫লক্ষ ৯হাজার ৯শত টাকা। এই মডেল টেষ্ট পরীক্ষা গত ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়ে আগামী ৭ অক্টোবরে শেষ হবে। অথচ পরীক্ষা শেষ হবার ২৭ দিন পরেই মূল জেএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হবে। তবে এর মধ্যে মডেল টেষ্ট পরীক্ষার খাতা মূল্যান করে ফলাফল প্রকাশ করতেও সময় লাগবে আরো ৮/১০দিন। এর মধ্যে মডেল টেষ্টের খাতা মূল্যায়ন করে ফলাফল প্রকাশ, পরীক্ষার্থীরা কোন কোন বিষয়ে ফলাফল খারাপ করেছে তা চিহ্নিত করে সেসব বিষযে আরো ভালো প্রস্তুতি নেয়ার জন্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার কোন সময়ই থাকছেনা। এমনকি গত বছরেও মডেল টেষ্টের নামে এ রকম অর্থ বানিজ্য হয়েছে এবং তখন উপজেলার বেশিরভাগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই মডেল টেষ্টের ফলাফল প্রকাশের পূর্বেই মূল জেএসসি পরীক্ষা শুরু হয়ে গিয়েছিল। একবছরেও সেই একই ঘটনার পূনরাবৃত্তি ঘটার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। তবে উপজেলার ৫১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ৫হাজার ৩৩জন শিক্ষার্থীর সাথে মডেল টেষ্ট নামের এই অর্থ বানিজ্য কেন এমনটাই জিজ্ঞাসা উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলের সচেতন অভিভাবকদের। এব্যপারে কিছু অভিভাবক প্রতিবাদ করেও কোন সুফল পায়নি বলে অভিযোগ করেন।
বিষয়টি নিয়ে উপজেলার ছেংগারচর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোল্লা মোঃ বোরহান উদ্দিন এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমার স্কুলে ২৮০জন জেএসসি’র মডেল টেষ্ট পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। উপজেলা শিক্ষক সমিতি এই পরীক্ষার্থীদের থেকে ৪০০টাকা হারে ফি নেয়ার কথা বল্লেও আমরা নিচ্ছি জনপ্রতি মাত্র ৩০০টাকা হারে।
মতলব উত্তর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কাজী ওয়াহিদ মোঃ সালেহ বলেন, জেএসসি’র মডেল টেষ্ট পরীক্ষা নেয়া না নেয়ার ব্যপারে বিধিতে সুনির্দিষ্ট কিছুই বলা নাই। তবে আমাদের উপজেলায় যে এখন জেএসসি’র মডেল টেষ্ট পরীক্ষা চলছে তা আমি জানি।

Check Also

যে কোনো আন্দোলন-সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে : বিএনপি

চাঁদপুর প্রতিনিধি :– চাঁদপুর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সাধারণ সভায় বক্তারা বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম ...

Leave a Reply