কুমিল্লা-২ (তিতাস-হোমনা) নির্বাচনী এলাকা : বিএনপির দূর্গে আঘাত আনতে চান পারভেজ হোসেন সরকার

নাজমুল করিম ফারুক,তিতাস :–

নির্বাচনকালীন সরকার পদ্ধতির বিষয়টি আদৌ সুরাহ হবে কিনা এনিয়ে যথেষ্ট মতপার্থক্য থাকা স্বত্ত্বেও নির্বাচন আমেজ বিরাজ করছে সবর্ত্র। দলীয় মনোনয়ন নিয়ে তদবির লবিং, গ্রুপিং বিশেষ করে প্রার্থী ও কর্মী সমর্থকদের দৌড়ঝাঁপ চলছে সমানতালে। সারাদেশের ন্যায় কুমিল্লা-২ (তিতাস-হোমনা) নির্বাচনী এলাকায়ও আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে জল্পনা কল্পনার শেষ নেই। বিএনপি প্রার্থী সাবেক মন্ত্রী ও বর্তমান এমপি এমকে আনোয়ারের বিকল্প না থাকলেও ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের প্রার্থীতা এখনও চুড়ান্ত হয়নি। অধ্যক্ষ আবদুল মজিদের পাশাপাশি এখন তিতাস উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পারভেজ হোসেন সরকার আওয়ামীলীগের হাল ধরতে প্রার্থীতা ঘোষণা করেছেন। তাই পাল্টে যাচ্ছে কুমিল্লা-২ (তিতাস-হোমনা) নির্বাচন এলাকার ভোটের হিসাব নিকাশ। নবীন প্রবীনের এই লড়াইয়ে বাজিমাত করতে বিএনপির দূর্গে আঘাত আনতে কোমড় বেধে মাঠে নেমেছেন পারভেজ হোসেন সরকার।
কুমিল্লা-২ (তিতাস-হোমনা) নির্বাচন এলাকায় বিএনপির প্রার্থী সাবেক মন্ত্রী ও দলের স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য এমকে আনোয়ার এতে কোন সন্দেহ নেই। তবে আওয়ামীলীগ এর প্রার্থীতা এখনও চুড়ান্ত হয়নি। এই আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশি সিআইপি মাহবুবুর রহমানের আকস্মিক মৃত্যুতে অধ্যক্ষ আবদুল মজিদ নিজেকে একক প্রার্থী মনে করলেও গত ১৫ আগস্টে শোক দিবসের আলোচনা সভায় তিতাস উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পারভেজ হোসেন সরকার দলীয় মনোনয়ন লাভের ইচ্ছা ব্যক্ত করার ক্রমশঃ পাল্টে যাচ্ছে দৃশ্যপট। তিতাস ও হোমনার তৃণমূল নেতাকর্মীরাও পারভেজের এ ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছে। এমকে আনোয়ার ও অধ্যক্ষ আবদুল মজিদ হোমনার বাসিন্দার হওয়ায় বিশেষ করে তিতাসবাসীর মধ্যে নতুন করে ভাববার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। অধ্যক্ষ আবদুল মজিদের দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে দূরত্ব সৃষ্টি এবং দলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস ২৫ আগস্টে কোন কর্মসূচী না দেয়ায় দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা তার উপর থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। মূলতঃ এখন তাকে ব্যক্তিগত কর্মচারীদের মাধ্যমেই কর্মকান্ড চালাতে হচ্ছে। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে পারভেজ হোসেন সরকার মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে আছেন। তৃণমূল নেতাকর্মীরা অনেকে তাদের অভিমত ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, আমাদের প্রত্যাশা পারভেজ হোসেন এর মত একজন সৎ নিষ্ঠাবান ও গতিশীল তরুণ নেতৃত্ব এ আসনে আওয়ামীলীগের হাল ধরুক। তবে বিজ্ঞ মহলের ধারনা পারভেজ হোসেন সরকার প্রার্থী হলে পাল্টে যাবে এ আসনের ভোটের হিসাব নিকাশ। তার নিজস্ব জনপ্রিয়তা এবং তার পিতা মরহুম বেলায়েত হোসেন সরকারের প্রতি এলাকার সাধারন মানুষের ভক্তি শ্রদ্ধা বড় পুঁজি হিসেবে কাজ করবে। লড়াই হবে তখন নবীন প্রবীনের। অধ্যক্ষ আবদুল মজিদের সাথে বিএনপির হেডিওয়েট প্রার্থী এমকে আনোয়ার অবলীলায় জয়ী হবেন এমনটা ভেবে খোশ মেজাজেই ছিল বিএনপি শিবির। কিন্তু পারভেজ হোসেন সরকার উপজেলা নির্বাচনে যে কারিশমা দেখিয়েছেন তাতে যে কোন প্রার্থীর জন্যই তিনি শক্ত প্রতিপক্ষ হিসেবে বিবেচিত হবে বলে রাজনৈতিক বুদ্ধাদের ধারনা।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply