বরুড়ায় মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

শাহিন জামান, বরুড়া :–
কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার পয়ালগাছা ইউনিয়নের হালগাঁও গ্রামের সৌদি প্রবাসী তাজুল ইসলামের পুত্র তানভির হোসেন (৯) এর মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ এনে সোমবার বরুড়া প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করে বিবাদী কাউছারের পিতা জয়নাল আবেদীন।
সংবাদ সম্মেলনে জানায়, পার্শ্বের লাকসাম উপজেলার পূর্বপাঁচপাড়া তা’লিমুল কোরআন মাদ্রাসার দ্বিতীয় জামাতের ছাত্র মোঃ তানভীর হোসেন (৯) গত ২০ই আগষ্ট ৭.৩০ মিনিটে বাড়ি থেকে মাদ্রাসার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিয়ে বাড়ি থেকে বের হয় ঐ দিন থেকে তাকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। গত ২২ই আগষ্ট বৃহস্পতিবার দুপুরে গ্রামের পূর্ব দিকে খাল পাড়ে জনৈক মহিলা দেখতে পায় তানভীর এর লাশ খালের পানিতে ভেসে উঠেছে। ঐ সময় মহিলা লাশ দেখে চিৎকার দিলে এলাকাবাসী এসে নিহত তানভীর কে উদ্ধার করে এবং গ্রামবাসী ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও চেয়ারম্যান মেম্বার সহ নিহতের মা নিশ্চিত হয় যে, তার ছেলে তানভীর হোসেন পানিতে ডুবে মৃত্যুবরণ করেন। তানভীর এর বাবা সৌদি আরবে থাকায় তিনি বাংলাদেশে আসা পর্যন্ত নিহতের লাশ দাফন করা হয়নি। ২৩ই আগষ্ট রাতে তাজুল ইসলাম দেশে আসলে ২৪ই আগষ্ট সকাল ৮.০০ ঘটিকায় নিহতের বাবা তাজুল ইসলাম ও গ্রামবাসীর সম্মতিক্রমে মৃত দেহ তাদের নিজস্ব জায়গায় দাফন করে। তখন পর্যন্ত কাহারো বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ তুলেননি। কিন্তু নিহতের মা সন্দেহজনক ভাবে গত ০৯ই সেপ্টেম্বর একই গ্রামের তিন পরিবারের চারজনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করে। মামলায় আসামীগন হচ্ছে ১। রেদোয়ান, ২। মোঃ শরীফ, পিতা- মৃত আবদুল খালেক দরবেশ, ৩। কাউছার, পিতা- জয়নাল আবেদীন, ৪। মোঃ ফয়েজ, পিতা- আলী আকবর, সর্বসাং- হালগাঁও। নিহতের মা পারভীন মামলা উল্লেখ করেন ২০ই আগষ্ট বিকাল বেলা আসামীরা এলাকায় ঘুরাফেরা করে এবং দোকান-পাটে আড্ডা দিতে দেখেছেন। জয়নাল জানান জিন-ভুতের আছরের কারণে হয়ত ছেলেটির মৃত্য হয় বলে আমার ধারনা। কারণ ছেলেটি বিভিন্ন সময় ঘরের চালের উপরে বসে থাকত, কবরস্থানের মাটিতে লুকিয়ে থাকত। যেহেতু একই এলাকার বাসিন্দা বিধায় অবসর সময় বিশেষ করে গ্রাম অঞ্চলের মানুষ এলাকার দোকান-পাটে আড্ডা জমায়, আশে-পাশের লোকজন চিনে জানে। কিন্তু তাদের সাথে কোন শত্র“তা নেই। আমরা অসহায় নিঃষ খেটে খাওয়া মানুষ। মামলার কারণে আজ আমরা এলাকা ছাড়া, আমাদের পরিবার পরিজন আজ না খেয়ে জীবন-যাপন করছে। সাংবাদিক ভাইদের মাধ্যমে ঘটনাটি সংশ্লিষ্ট প্রশাসন সরজমিনে তদন্ত করলে সত্য ঘঠনাটি বেরিয়ে আসবে। এ ব্যপারে নিহত তানভীরের বাবা তাজুল ইসলাম জানান, রেদোয়ান ও অন্যান্য আসামীদের চলাফেরা ও কথাবার্তায় সন্দেহজনক হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে আমার স্ত্রী বাদী হয়ে কুমিল্লার আমলী আদালতে মামলা করেছে। আমার ধারনা তারা এ ঘটনার সাথে জড়িত থাকতে পারে।
এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী অফিসার মাসুদ আলম জানান, ঘঠনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তদন্ত স্বাপেক্ষে অভিযুক্ত যেই হউক তাকে শীঘ্রই আইনের আওতায় আনা হবে।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply