নাসিরনগরে বেওয়ারিশ কুকুরের অবাধ বিচরণ ॥ নিধন জরুরী

আকতার হোসেন ভুইয়া,নাসিরনগর :–

নাসিরনগরে পাগলা বেওয়ারিশ কুকুরের যত্রতত্র অবাধ বিচরণে শংকিত হয়েছেন উপজেলা সদরে আগমনকারী রাস্তায় যাতায়াতকারী পথচারী,ছাত্রছাত্রী ও সচেতনমহল। উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ জনবহুল এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে কুকুর নিধন অভিযান পরিচালিত না হওযার ফলে উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন এলাকায় জ্যামিতিক হারে বেওয়ারিশ কুকুরের বংশবৃদ্ধি ঘটেছে। এসব অভিভাবকবিহীন কুকুর প্রতিদিন উপজেলা সদরের বিভিন্ন মোড়ে , বাজারে ও সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্টানের পাশে বেপরোয়া ঘুরাফেরা করে। এদের মধ্যে অনেক কুকুর জলাতংক রোগের জীবানু বহনকারী । ক্ষ্যাপাটে এসব পাগলা কুকুর যে কোন মূর্হুতে যে কাউকে কামড় দিতে পারে। ফলে রাস্তায় যাতাযাতকারী পথচারী,শিক্ষার্থী ও চাকুরিজীবি মানুষ প্রতিদিন কুকুর আতংকে ভোগছেন। এছাড়া ভাদ্রমাস কুকুরের প্রজনন মৌসুম হওযায় এসময়ে স্বভাবেই সব কুকুর ক্ষ্যাপাটে ধরণের হয়ে তাকে। আর এসব পাগলা কুকুর কামড়ালে যে কেউ মারাত্মক জলাতংক রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়তে পারে। ভাদ্রমাস শেষ হলেও কুকুরের উৎপাত কমেনি। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ সফিকুল ইসলাম জানান, বর্তমানে জলাতংক অথ্যাৎ হাইড্রোফোবিয়া রোগের ভেসকিন যদিও সহজপ্রাপ্য তারপরও তা সময় মত গ্রহণ না করলে পরবর্তীতে রোগীর মৃত্যু হওয়া বিচিত্র নয়। উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা সামিহা ফেরদৌসী জানান বেওয়ারিশ কুকুরের অবাধ বিচরণে আমি নিজেও শংকিত। কুকুর নিধনে সরকারি কোন বরাদ্দ নেই তবে এ বিষয়ে খুব শীঘ্রই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে পাগলা কুকুর নিধনে অনতি বিলম্বে অভিযান চালানোর দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

Check Also

আশুগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামির মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :– ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মো. হারুন মিয়া (৪৫) নামে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামির ...

Leave a Reply