ওমানে ভবনধসে নিহত ব্রাহ্মণপাড়ার শ্রমিক মিজানের মায়ের আহাজারি, তোমরা আমার ছেলের লাশটা এনে দাও

সৈয়দ আহাম্মদ লাভলুঃ —
ওমানে কর্মরত অবস্থায় ভবনের ছাদ ধসে নিহত শ্রমিক মিজান মিয়ার মা পরীজা বেগমের কান্না থামছেনা। কাউকে দেখলেই বুক চাপরিয়ে বলতে থাকেন তোমরা আমার ছেলের লাশটা আইন্যা দাও, বাবারে আমি একবার নয়নভইরা দেখি। আতœীয় স্বজনরা বিভিন্নভাবে শান্তনা দেওয়ার চেষ্টা করেও বিফল হচ্ছেন। গতকাল বুধবার ২৮ আগষ্ট কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদল ইউনিয়নের আশাবাড়ি গ্রামের নিহত মিজানের বাড়িতে গিয়ে এমন করুন দৃশ্য দেখা গেছে।
পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত দেড় বছর আগে পারিবারিক স্বচ্ছলতার জন্য মিজান মিয়া ওমানে পাড়ি জমান। সেখানে তিনি নির্মান শ্রমিকের কাজ করতেন। গত ২৫ আগষ্ট কর্মরত অবস্থায় নির্মানাধীন ছাদ ধসে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান। বর্তমানে তার লাশ ওমানের চুয়ান হাসপাতালের হিমাঘরে রাখা হয়েছে। আর্থিক অস্বচ্ছলতা ও লাশ ফেরতের প্রক্রিয়া না জানায় শংকায় দিন গুনছেন পরিবারের সদস্যরা।
নিহত মিজান মিয়ার বড় ভাই মো. শাহজাহান মিয়া বলেন, মিজানের মারা যাওয়ার খবর শুনার পর থেকে মায়ের আহাজারি থামানো যাচ্ছেনা। চার দিন গত হয়ে গেলেও লাশ আনার কোন উদ্যোগ নিতে পারিনি। আমি পরিবারের পক্ষ থেকে দূতাবাসের মাধ্যমে মিজানের লাশ ফেরত পাবার জন্য সরকারের নিকট সাহায্য প্রার্থনা করছি। এ বিষয়ে সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করলে আমরা চিরকৃতজ্ঞ থাকব।

Check Also

করোনাযুদ্ধে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিমকে বুড়িচংয়ে সমাহিত

বুড়িচং প্রতিনিধিঃ করোনাযুদ্ধে পুলিশে প্রথম জীবন উৎসর্গকারী কনস্টেবল জসিম উদ্দিনকে (৩৯) কুমিল্লায় সমাহিত করা হয়েছে। ...

Leave a Reply